কলকাতা

corona virus btn
corona virus btn
Loading

উমা বিদায়ের সঙ্গে সঙ্গেই আবাহনের প্রস্তুতি শুরু! ২০২১-এ শহরের কোন পুজোয় কী বিশেষ চমক! দেখুন...

উমা বিদায়ের সঙ্গে সঙ্গেই আবাহনের প্রস্তুতি শুরু! ২০২১-এ শহরের কোন পুজোয় কী বিশেষ চমক! দেখুন...
ফাইল ছবি

২০২১ সালের ১১ অক্টোবর, সোমবার মহাষষ্ঠী। ১২ অক্টোবর, মঙ্গলবার মহাসপ্তমী, ১৩ অক্টোবর, বুধবার মহাঅষ্টমী, ১৪ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার মহানবমী এবং ১৫ অক্টোবর, শুক্রবার বিজয়া দশমী।

  • Share this:

কলকাতা: এবারের মতো পুজো শেষ। শহর থেকে শহরতলির প্রতিমা নিরঞ্জনের প্রক্রিয়া শেষ হয়েছে। কিন্তু শেষ বললেই কী আর শেষ হয়? মোটেই না। তাই এবারে যেটুকু কম হয়েছে, তার সবটুকু সুদে-আসলে উসুল করার জন্য ইতিমধ্যেই প্রস্তুতি শুরু হয়ে গিয়েছে পুরোদমে।

প্রতিবারের মতো এবারও মাকে বিদায় দেওয়ার সময় ঢাকের তালে সবার মুখে মুখে ফিরেছে, 'আসছে বছর আবার হবে', 'বছর বছর আবার হবে'৷ যদিও এবারে যেন পরের বছরে অপেক্ষা আরও অনেক বেশি তীব্র ৷ বিশেষ করে বাঙালিরা তো প্রহর গোনা শুরু করে দিয়েছেন কবে আসবে পুজো। ক্যালেন্ডার হাতে আসতেই শুরু হয়ে গিয়েছে প্ল্যানিং। একই সঙ্গে প্রহর গোনা শুরু করে দিয়েছেন শহরের পুজো উদ্যোক্তারা। ইতিমধ্যেই অনেক ক্লাব চূড়ান্ত করে ফেলেছে কোন শিল্পী, তাদের ক্লাব বা সর্বজনীনের দায়িত্ব নিজের কাঁধে তুলে নেবেন। ঠিক একইভাবে আগামী বছরের প্ল্যানিং শুরু করে দিয়েছেন অনেক শিল্পী বা থিম মেকার। কোন চমক দেবেন তাঁরা , তা নিয়ে চলছে বিস্তর ভাবনা চিন্তা।

বিশুদ্ধ সিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে, আগামী বছর ৬ অক্টোবর, বুধবার মহালয়া। করোনামুক্ত পৃথিবীতে আগামী বছর করা যাবে তো দেবীর বোধন? উত্তর থেকে দক্ষিণে প্রার্থনা একটাই! আসছে বছর আবার হবে! যাই হোক করোনাকে দূরে সরিয়ে আনন্দে মেতে উঠতে নজর দিন আগামী বছরের পুজোর ক্যালেন্ডারে। ২০২১ সালের ১১ অক্টোবর, সোমবার মহাষষ্ঠী। ১২ অক্টোবর, মঙ্গলবার মহাসপ্তমী,   ১৩ অক্টোবর, বুধবার মহাঅষ্টমী, ১৪ অক্টোবর, বৃহস্পতিবার মহানবমী এবং  ১৫ অক্টোবর, শুক্রবার বিজয়া দশমী।  

করোনা আবহে এবারে বহু বিধিনিষেধ থাকায় উদ্যোক্তাদের মন ভরেনি। তাঁদের আক্ষেপ যাঁদের জন্য এত আয়োজন, তারাই তো ঠিকমতো ঠাকুর দেখতে পেলেন না! যদিও, তা যে অনেকাংশে সাধারণ মানুষের সচেতনতার ফল, তাও স্বীকার করে নিয়েছেন অনেকে। অনেক কমিটি সব প্রস্তুতি সারার পরেও মানুষের স্বার্থেই  নিজেরা বন্ধ করে দিয়েছিলেন মণ্ডপের দরজা। তাই আগামী বছরে এই সব ভুলে আরও ভাল পুজো হোক চান সকলেই। ফলে বিসর্জনের সঙ্গে সঙ্গেই আবাহনের প্রস্তুতি শুরু করে দিয়েছে শহরের বেশ কিছু পুজো কমিটি।

ঠাকুরপুকুর স্টেট ব্যাঙ্ক পার্ক সর্বজনীনের ৫০তম বছরের পুজো কেটেছে করোনা আবহে। ৫১ তম বর্ষে দর্শকদের মন ভরাতে বদ্ধপরিকর তাঁরা। আগামী বছরের শিল্পীর নামে ব্যানার পড়েছে এখনই। উদ্যোক্তারা জানিয়েছেন, এ বছরের শিল্পী পার্থ দাসগুপ্তই পরের বছর তাঁদের মণ্ডপ সাজাবেন দর্শকদের জন্য। প্রস্তুতি শুরু টালা পার্ক প্রত্যয়েরও। এবারের মতো আগামী বছরেও সেখানকার প্রতিমা তৈরি হবে শিল্পী সুশান্ত পালের হাতেই। আগামী বছর পুজোয় শিল্পীতে বদল আনছে না চোরবাগান সর্বজনীন, দমদমপার্ক ভারতচক্রের মতো বিগ বাজেটের পুজো। আগামী বছরেও দমদমপার্ক ভারতচক্রের মণ্ডপ সাজাবেন শিল্পী অনির্বাণ দাস। কেষ্টপুর প্রফুল্লকানন পশ্চিম অধিবাসীবৃন্দের থিম মেকারও বদল হচ্ছে না বলেই পোস্টার দিয়েছেন ক্লাব কর্মকর্তারা।

Published by: Shubhagata Dey
First published: October 30, 2020, 8:10 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर