Football World Cup 2018

মূর্তি ছাড়াই কালীপুজোর রীতি এই সতীপীঠে, অমাবস্যার রাতে জমজমাট হয়ে ওঠে মন্দির প্রাঙ্গন

Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Oct 19, 2017 04:21 PM IST
মূর্তি ছাড়াই কালীপুজোর রীতি এই সতীপীঠে, অমাবস্যার রাতে জমজমাট হয়ে ওঠে মন্দির প্রাঙ্গন
নিজস্ব চিত্র
Dolon Chattopadhyay | News18 Bangla
Updated:Oct 19, 2017 04:21 PM IST

#কেতুগ্রাম: কেতুগ্রামের বহুলা। একান্ন পীঠের অন্যতম এই পীঠে সতীর বাম বাহু পড়েছিল বলে জনশ্রুতি। মূর্তি ছাড়াই কালীপুজোর রীতি এই সতীপীঠে। হাজার বছরের প্রাচীন রাজার কালী পরম্পরা মেনে আজও অমাবস্যার রাতে জমজমাট হয়ে ওঠে মন্দির প্রাঙ্গন।

কেতুগ্রামের রাজা ছিলেন চন্দ্রকেতু। মতান্তরে অনেক ইতিহাসবিদ অবশ্য বলেন , ভূপাল রাজার পাথরের বিশাল দালান ছিল ইশানি নদীর তীরে। সেখানেই নাকি ছিল বহুলাক্ষী দেবীর প্রস্তর মূর্তি। ভোপাল রাজার ইচ্ছেতেই এই সতীপীঠে প্রথম কালী সাধনা শুরু হয়। তন্ত্রচূড়ামণির বা শিবচরিত মতে কেতুগ্রামের বহুলায় সতীর বাম বাহু পড়েছিল। আর তাই এখানকার দেবী বহুলাক্ষী হিসেবে পরিচিত। দেবীর প্রস্তর মূর্তি ভগবতী হিসেবে পূজিত হলেও দুই পাশে আছে বিরল দুই মূর্তি। ডান পাশে অষ্টভূজা গণেশ ও বাম পাশে শক্তিধর ভৈরব। দেবীর মূর্তি সবসময়েই কাপড়ে ঢাকা থাকে।

প্রতিমা ছাড়াই কালীপুজোর নিয়ম। শুধুই কালিকা পুরাণের বীজমন্ত্র দিয়ে দেবী পূজিতা হন বহুলায়। হাজার বছরের প্রাচীন এই কালী পুজো দেখতে বীরভূম, মুর্শিদাবাদ ও অন্যান্য জায়গা থেকে ভক্তদের ঢল নামে।

কালী সাধনার জন্য বহু সাধক এসেছেন বহুলার এই মহাপীঠে । বীজ মন্ত্রে পুজো হলেও বহুলাক্ষীর মহাভোগ দেওয়া হয় রাজার আরাধ্যা মা কালীকে। পশু বলির রীতি আজও আছে। কালীপুজো উপলক্ষে আলোর মালায় সেজে ওঠে মন্দির চত্বর।

First published: 04:21:04 PM Oct 19, 2017
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर