হোম /খবর /জলপাইগুড়ি /
কেটে গিয়েছে রাহুকাল, এবার শুরু করতে পারবেন শুভ কাজ, মিলবে সুফল

কেটে গিয়েছে রাহুকাল, এবার শুরু করতে পারবেন শুভ কাজ, মিলবে সুফল

প্রচলিত বিশ্বাস- এই মুহূর্তগুলিতে যে কাজ করা হচ্ছে, সেই অনুসারে শুভাশুভ ফললাভ হয়ে থাকে।

  • Share this:

#কলকাতা: পঞ্চ অঙ্গের সমাহার, তাই জ্যোতিষশাস্ত্রের ভাষায় একে বলা হচ্ছে পঞ্চাঙ্গ বা পঞ্চিকা, সেখান থেকে অপভ্রংশে পঞ্জিকা। আদতে এটি গ্রহ-নক্ষত্র, বিশেষ করে চান্দ্র-সৌর অবস্থানের উপরে ভিত্তি করে রচিত প্রাচীন দিনপঞ্জি। প্রচলিত বিশ্বাস- এই মুহূর্তগুলিতে যে কাজ করা হচ্ছে, সেই অনুসারে শুভাশুভ ফললাভ হয়ে থাকে।

এই সংক্রান্ত আলোচনায় আসার আগে আরেকটি কথা একটু ব্যাখ্যা না করলেই নয়। বলা তো হচ্ছে পাঁচটি অঙ্গ, কিন্তু এগুলো আসলে কী?

আরও পড়ুন: আবাস যোজনায় বাড়ি মিলবে কবে? চলো গ্রামে যাই কর্মসূচিতে সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন

ভারতীয় দিনপঞ্জির এই পাঁচটি অঙ্গ হল তিথি, বার, নক্ষত্র, যোগ এবং করণ। সেই অনুসারে ৩০ নভেম্বরের কিছুটা পড়েছে ১৪২৯ বঙ্গাব্দের অগ্রহায়ণ মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী তিথিতে, বঙ্গাব্দের তারিখ ১৩ অগ্রহায়ণ। এই বঙ্গাব্দ গণনা করা শুরু হয়েছিল পঞ্জিকা নির্ণয়ের প্রথম এবং প্রাচীন পদ্ধতি সূর্যসিদ্ধান্ত অনুসারে, পরবর্তীকালে যাকে সংস্কার করে প্রতিষ্ঠিত হয় দৃকসিদ্ধান্ত বা বিশুদ্ধসিদ্ধান্ত মত। বাংলার জনমানসে বহুল জনপ্রিয়তার কারণে এখানে সূর্যসিদ্ধান্তসম্মত ফলাফল উল্লেখ করা হল। বার হল মঙ্গল এবং এই সপ্তমী তিথি থাকবে ৩০ নভেম্বর দুপুর ১টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত। এর পরে শুরু হয়ে যাবে শুক্লপক্ষের অষ্টমী তিথি।

সূর্যসিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে ৩০ নভেম্বর সূর্যোদয় হবে ভোর ৬টা ১৪ মিনিটে, সূর্যাস্ত হবে বিকাল ৪টে ৫৯ মিনিটে। অন্য দিকে, চন্দ্রোদয় হবে ৩০ নভেম্বর দুপুর ১২টা ০৭ মিনিটে। চন্দ্র অস্ত যাবে ৩০ নভেম্বর রাত ১১টা ৪৪ মিনিটে।

আরও পড়ুন: প্রণয়-রাধিকার ইস্তফা, এনডিটিভি-র রাশ আদানিদের হাতেই

এই ১৪২৯ বঙ্গাব্দের অগ্রহায়ণ মাসের শুক্লপক্ষের সপ্তমী তিথির নক্ষত্র হল ধনিষ্ঠা। ৩০ নভেম্বর, দুপুর ১২টা ১৯ মিনিট পর্যন্ত ধনিষ্ঠা নক্ষত্রের অবস্থান থাকবে। এর পরে তিথিতে অবস্থান করবে শতভিষা নক্ষত্র।

সূর্য অবস্থান করবেন বৃশ্চিক রাশিতে। চন্দ্র অবস্থান করবেন কুম্ভ রাশিতে।

শুভ মুহূর্ত- সূর্যসিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে ৩০ নভেম্বর মাহেন্দ্রযোগ পড়েছে সকাল ৬টা ৫৭ মিনিট থেকে সকাল ৭টা ৪০ মিনিট এবং দুপুর ১টা ২৪ মিনিট থেকে দুপুর ৩টে ৩৩ মিনিট দুই সময়ে। অমৃতযোগ ৩০ নভেম্বর পড়েছে ভোর ৬টা ১৪ মিনিট - ভোর ৬টা ৫৭ মিনিট, সকাল ৭টা ৪০ মিনিট - সকাল ৮টা ২৩ মিনিট, সকাল ১০টা ৩২ মিনিট - দুপুর ১২টা ৪১ মিনিট, সন্ধে ৫টা ৫২ মিনিট - সন্ধে ৬টা ৪৫ মিনিট চার সময়ে। এই মাহেন্দ্রযোগ এবং অমৃতযোগকে বাংলা পঞ্জিকার অন্যতম পুণ্যলগ্ন বলে বিবেচনা করা হয়ে থাকে। যে কোনও নতুন কাজ, শুভ কাজ শুরু করার এটি প্রকৃষ্ট সময়।

অশুভ মুহূর্ত- সূর্যসিদ্ধান্ত পঞ্জিকা মতে ৩০ নভেম্বর রাহুকাল বা কালবেলা শুরু হচ্ছে সকাল ৮টা ৫৫ মিনিটে, শেষ হচ্ছে সকাল ১০টা ১৬ মিনিটে। এই সময়ে নতুন কোনও কাজ শুরু করাটা ঠিক হবে না।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

Tags: Astrology, Panchang