• associate partner
corona virus btn
corona virus btn
Loading

AB So Special! শনিবার ডেভিলিয়ার্সের ম্যাচ উইনিং ইনিংসের পর ভাইরাল জোফরা আর্চারের ট্যুইট!

AB So Special! শনিবার ডেভিলিয়ার্সের ম্যাচ উইনিং ইনিংসের পর ভাইরাল জোফরা আর্চারের ট্যুইট!

শনিবারের ম্যাচে রুদ্ধশ্বাস জয়ে ইতিমধ্যেই ১২ পয়েন্ট অর্জন করেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। এর সুবাদে কোহলির নেতৃত্বাধীন দল মুম্বই ইন্ডিয়ানসের সঙ্গে একই পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

  • Share this:

শনিবার রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে জয় পেল রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। একটা সময় মনে হয়েছিল দু'-ওভারে ৩৫ রান করতে গিয়ে বেগ পেতে পারে কোহলি ব্রিগেড। কিন্তু ডেভিলিয়ার্স সেই না-মুমকিনকেও মুমকিন করে দিয়েছেন। দু' বল বাকি থাকতেই দলের জয় সুনিশ্চিত করে ফেলেন মিস্টার ৩৬০। আর এর পরই ভাইরাল হয়ে যায় ইংরেজ পেসার জোফরা আর্চারের পুরনো একটি ট্যুইট।

১৭৮ রান তাড়া করতে নেমে শেষের দিকে বেঙ্গালুরুর কাছে একটু কঠিন হয়ে যায় ম্যাচটি। ১২ বলে তখন ৩৫ রান দরকার। দুবাইয়ের রুদ্ধশ্বাস ম্যাচে তখন ১৯তম ওভার করতে আসেন জয়দেব উনাদকাট। কী হচ্ছে, তা বুঝে ওঠার আগেই ডেভিলিয়ার্সের কাছে পর পর তিনটি ছক্কা খেয়ে যান জয়দেব। এর পর একটি সিঙ্গেল রোটেট করেন এবি। এর পর একটি ওয়াইড, একটি চার ও এক রানের সুবাদে এই ওভারেই ২৫ রান উঠে যায়। শেষ ওভারে তখন মাত্র ১০ রান দরকার।

তিনি ২২ গজে নামলে কী ভাবে মুহূর্তে ম্যাচের রং বদলে যেতে পারে, হারা ম্যাচও জিতে নেওয়া যেতে পারে, তা আরও একবার প্রমাণ করে দিলেন ডেভিলিয়ার্স। ৩৬ বছর বয়সী মিস্টার ৩৬০ তখন বিধ্বংসী ছন্দে। শেষ ওভারে জোফরা আর্চারকে পাঠিয়ে রাজস্থান ভেবেছিল হয় তো নিয়ন্ত্রণে রাখা যাবে ম্যাচ। প্রথম তিন বলে আসে পাঁচ রান। কিন্তু সামনে যখন এবি ডেভিলিয়ার্স, তখন অসম্ভব সম্ভব হওয়াটা সাধারণ ব্যাপার। আর সেটাই হল। চতুর্থ বলে জোফরা আর্চারকে বাউন্ডারি পার করে দেন ডেভিলিয়ার্স। আর জিতে যায় বেঙ্গালুরু।

এর পরই পাঁচ বছর আগে ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিলের একটি ট্যুইট নিয়ে শোরগোল পড়ে যায়। সেদিন জোফরা আর্চার টুইট করে বলেছিলেন ডেভিলিয়ার্স সত্যিই খুব স্পেশাল। শনিবার সেই ট্যুইট নিয়ে শুরু হয়ে রিট্যুইট আর কমেন্টের ছড়াছড়ি। কেউ ব্যঙ্গ করে বলতে শুরু করেন- জয় জোফরা বাবা কি জয়। দয়া করে বলুন ভবিষ্যতে আমি কী হব? কেউ বলতে শুরু করেন এবির এই ধামাকা আগে থেকেই প্রেডিক্ট করতে পেরেছিলেন রাজস্থানের পেসার জোফরা আর্চার।

https://twitter.com/JofraArcher/status/589844546873266176 https://twitter.com/DevPate60104356/status/1317461203522703361 https://twitter.com/Kartik644/status/1317461145192558592 https://twitter.com/KiniPranay/status/1317461921147146245 https://twitter.com/Nikhil_Inamadar/status/1317461609384538112

শনিবারের ম্যাচে রুদ্ধশ্বাস জয়ে ইতিমধ্যেই ১২ পয়েন্ট অর্জন করেছে রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স বেঙ্গালুরু। এর সুবাদে কোহলির নেতৃত্বাধীন দল মুম্বই ইন্ডিয়ানসের সঙ্গে একই পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের তৃতীয় স্থানে রয়েছে।

উল্লেখ্য, শনিবার টসে জিতে প্রথমে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় রাজস্থান রয়্যালস। অধিনায়ক স্টিভ স্মিথের ৩৬ বলে ৫৭ রানের ইনিংস ম্যাচের ভিত শক্ত করে দেয়। জস বাটলার এ দিন স্বমহিমায় না থাকলেও ২৫ বলে ২৪ রান করেন। পরের দিকে রবিন উত্থাপা অবশ্য ভালো ইনিংস উপহার দিয়েছেন। তাঁর ২২ বলে ৪১ রানের ইনিংসের সুবাদে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৬ উইকেট হারিয়ে ১৭৭ রান করে রাজস্থান রয়্যালস। বেঙ্গালুরুর বোলিং অ্যাটাকে এ দিন ছাপ ফেলেছেন ক্রিস মরিস। ৪ ওভারে ২৬ রান দিয়ে ৪ উইকেট তুলে নেন তিনি। অন্য দিকে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা তেমন ভালো হয়নি বেঙ্গালুরুর। ১১ বলে ১৪ রান করে প্যাভিলিয়নে ফিরে যান অ্যারন ফিঞ্চ। পারিক্কল অবশ্য ৩৭ বলে ৩৫ রান করেন। পরের দিকে ম্যাচের হাল ধরেন অধিনায়ক বিরাট কোহলি। ৩২ বলে ৪৩ রান করেন। কিন্তু ম্যাচটিকে শেষ পর্যন্ত টেনে নিয়ে যেতে পারেননি তিনি। শেষের দিকে ম্যাচ কঠিন হয়ে গেলেও ডেভিলিয়ার্স অতিমানবীয় ইনিংস খেলে তা অবলীলায় বের করে নিয়ে যান।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: October 19, 2020, 1:10 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर