বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

মুখের ভিতরে ঢুকে মেরে ফেলতে হবে, প্রমাণ আয়তনের গডজিলার শরীরের ভেতরে ফান রাইড!

মুখের ভিতরে ঢুকে মেরে ফেলতে হবে, প্রমাণ আয়তনের গডজিলার শরীরের ভেতরে ফান রাইড!

সিনেমার পর্দায় যেমন গডজিলা নড়ে এবং চরে বেড়ায়, মূর্তির বেলায় তো সেটা সম্ভব নয়। তাই পার্ক কর্তৃপক্ষের তৈরি এই মূর্তি লম্বায় ১৮০ ফুট আর চওড়ায় ৮২ ফুট।

  • Share this:

যার বাস্তব অস্তিত্ব নেই এবং সে কারণেই জীবনও নেই, তাকে আবার মেরে ফেলার প্রশ্ন আসছে কোথা থেকে? ওটা কেবল সম্ভব হয় সিনেমাতেই!

না হওয়ার কারণও অবশ্য নেই। হাজার হোক, আদতে তো গডজিলা সিনেমার প্রাণী বই আর কিছুই নয়! সেই ১৯৫৪ সালে মুক্তি পেয়েছিল প্রথম গডজিলাকে নিয়ে তৈরি হলিউডের ছবি। তবে এই ২০২০ সালে এসে তার দেখা কিন্তু মিলেছে জাপানের কোবে শহর থেকে একটু দূরে আওয়াজি দ্বীপের এক পার্কে। খবর বলছে যে সেখানেই তৈরি হয়েছে গডজিলার এক প্রায় প্রমাণ আয়তনের মূর্তি।

প্রায় বলার কারণ রয়েছে। সিনেমার পর্দায় যেমন গডজিলা নড়ে এবং চরে বেড়ায়, মূর্তির বেলায় তো সেটা সম্ভব নয়। তাই পার্ক কর্তৃপক্ষের তৈরি এই মূর্তি লম্বায় ১৮০ ফুট আর চওড়ায় ৮২ ফুট। কিন্তু সিনেমার তথ্য মানলে গডজিলার আয়তন হওয়া উচিত লম্বায় ৩৯৩ ফুট!

যাই হোক, ১৮০ ফুটও কিছু কম নয়! পার্ক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন যে এই গডজিলার মূর্তির অর্ধেকটাই রয়েছে মাটির নিচে। আর তার দাঁত বরাবর তৈরি হয়েছে এক রাস্তা। ওই পথ ধরেই প্রবেশ করা যাবে এই গডজিলা মূর্তির শরীরের ভিতরে। সেখানে থাকবে ভিডিও গেমের ব্যবস্থা। গেমের পর্দায় ফুটে উঠবে গডজিলার শরীরের নানা অংশ, সেই সবের উপরে উপযুক্ত আঘাত হেনে তাকে বধ করতে হবে!

সংক্ষেপে বললে এই তো হল ব্যাপার! সিনেমার পর্দায় গডজিলাকে কাবু করার দৃশ্য দেখে আমরা অভ্যস্ত, এ বার তারই এক গেম ভার্সন উঠে এল জাপানের পার্কে।

তবে শুধু এটুকুতেই পার্ক আর গডজিলার সম্পর্ক ফুরিয়ে যাচ্ছে না। এই থিম পার্কেই গড়ে উঠেছে পৃথিবীর প্রথম গডজিলা মিউজিয়াম। নানা বিখ্যাত গডজিলা-ছবি তৈরির জন্য যে সব জিনিসপত্র ব্যবহার করা হয়েছিল, তা রাখা থাকবে এই মিউজিয়ামে।

চোখের এই দেখার পর রয়েছে চেখে দেখার বন্দোবস্তও। পর্যটকদের জন্য থাকছে গডজিলা কারিও। গডজিলা যখন জীবন্ত প্রাণী নয়, তখন আর তার মাংস কী করে পাওয়া যাবে! বদলে আওয়াজি দ্বীপে ফলানো পেঁয়াজের এক রকমের কালচে কারি-ইপরিবেন করা হবে পর্যটকদের, জানিয়েছেন পার্ক কর্তৃপক্ষ।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: October 30, 2020, 3:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर