শারীরিক ভাবে কাউকে পছন্দ হলেই অজ্ঞান হয়ে যান! মস্তিষ্কের বিরল রোগে ভুগছেন মহিলা

শারীরিক ভাবে কাউকে পছন্দ হলেই অজ্ঞান হয়ে যান! মস্তিষ্কের বিরল রোগে ভুগছেন মহিলা

ভুগছেন মস্তিষ্কের বিরল রোগে, শারীরিক ভাবে কাউকে পছন্দ হলেই মহিলা অজ্ঞান হয়ে যান!

ইংল্যান্ডের নর্থউইচের চেশায়ার অঞ্চলে থাকেন বছর ৩২-এর ক্রিস্টি। তাঁর দু'টি সন্তানও আছে।

  • Share this:

#ইংল্যান্ড: ইংরেজি ভাষায় একটা প্রবাদ আছে- ইউ মেক মি সোন! অর্থাৎ তোমায় দেখে অজ্ঞান হয়ে গিয়েছি! সাধারণত প্রেমের উপন্যাস বা গল্পে এরকম বাক্য থাকে। আবার বাস্তবেও কাউকে ভালো লাগলে এরকম কথা অনেকেই বলেন। তাই বলে তাঁরা কি আর সত্যিই অজ্ঞান হয়ে যান? মোটেই নয়। এটা হল কথার কথা। কিন্তু ইংল্যান্ডের একজন মহিলার সত্যিই এরকমটা হয়। যদি উনি এমন কোনও মানুষের মুখোমুখি হন, যাকে তাঁর ভালো লাগে. তিনি সঙ্গে সঙ্গে অজ্ঞান হয়ে যান। মানুষটির চোখে চোখ রাখলেই তিনি জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন। মহিলা যে খুব রোম্যান্টিক স্বভাবের তা নয়। এটি আসলে মস্তিষ্কের একটি বিরল রোগের কারণে হচ্ছে। আর সেই কারণেই তিনি সচরাচর কোনও পুরুষের চোখে চোখ রাখেন না। যদি এমন হয় যে তাঁকে এই মহিলার পছন্দ হয়ে গেল তাহলে তিনি নির্ঘাত জ্ঞান হারাবেন।

ক্রিস্টি ব্রাউন নামক এই মহিলা যে রোগে ভুগছেন তার নাম হল ক্যাটাপ্লেক্সি। ইংল্যান্ডের নর্থউইচের চেশায়ার অঞ্চলে থাকেন বছর ৩২-এর ক্রিস্টি। তাঁর দু'টি সন্তানও আছে। তিনি যে বিরল রোগে ভুগছেন তাতে রাগ, দুঃখ, ভয় এরকম নানা অনুভূতির জন্য মস্তিষ্কে কিছু বিক্রিয়া হয় এবং তাৎক্ষনিক ফলস্বরূপ শরীরের কয়েকটি পেশি অসাড় হয়ে যায়। আর সেই জন্যই খানিকটা সময়ের জন্য জ্ঞান হারিয়ে ফেলেন তিনি।

নিজের এই পরিস্থিতি নিয়ে খুব লজ্জায় থাকেন ক্রিস্টি। তিনি বলেছেন যে, এটা খুব লজ্জাজনক। আমি শপিং করতে গিয়েছিলাম। সেখানেই একজনকে দেখে আমার ভালো লাগে। আর আমার পা কাঁপতে শুরু করে দেয়। আমার কাজিনকে ধরে না ফেললে পড়েই যেতাম!

তবে শুধুমাত্র পছন্দের কাউকে দেখলেই যে ক্রিস্টির এমনটা হয়, তা নয়। তিনি রেগে গেলে বা ভয় পেলেও এমন হয়। উচ্চতাকেও ভয় পান ক্রিস্টি। তাই উঁচু কোনও ছাদ বা সিঁড়িতে উঠলেও তিনি অজ্ঞান হয়ে যান।

পাবলিক প্লেসে গেলে নিজেকে যতটা সম্ভব সংযত রাখার চেষ্টা করেন ক্রিস্টি। আর বেশিরভাগ সময়েই মাথা নিচু করে থাকেন যাতে কারও সঙ্গে তাঁর চোখাচোখি না হয়। ক্যাটাপ্লেক্সির সঙ্গে জড়িত আছে অপর্যাপ্ত ঘুমজনিত রোগ নারকোলেপ্সিও। এতে যে কোনও ব্যক্তি যে কোনও সময় কথা বলতে বলতে বা দাঁড়িয়ে দাঁড়িয়ে আচমকা অজ্ঞান হয়ে যেতে পারেন। ক্রিস্টি জানিয়েছেন যে তাঁর ঘুম ভালো হয় না এবং এই ভাবে আচমকা অজ্ঞান হয়ে গেলে তিনি আরও বেশি ক্লান্ত হয়ে পড়েন।

Written By: Doyel

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published:
0

লেটেস্ট খবর