• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • ব্লু ড্রাগন আসলে কি? দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রাপ্ত এই বিরল প্রজাতির কামড়েও রোগ হতে পারে

ব্লু ড্রাগন আসলে কি? দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রাপ্ত এই বিরল প্রজাতির কামড়েও রোগ হতে পারে

ওশেনিয়া নামে একটি ম্যাগাজিন-এর মতানুযায়ী ব্লু গ্লকাস এমন একটি প্রাণী যারা বায়ু ধরে রাখতে পারে পাকস্থলীতে এবং তার সাহায্যে জলের উপরিভাগে ভেসে থাকতে পারে।

ওশেনিয়া নামে একটি ম্যাগাজিন-এর মতানুযায়ী ব্লু গ্লকাস এমন একটি প্রাণী যারা বায়ু ধরে রাখতে পারে পাকস্থলীতে এবং তার সাহায্যে জলের উপরিভাগে ভেসে থাকতে পারে।

ওশেনিয়া নামে একটি ম্যাগাজিন-এর মতানুযায়ী ব্লু গ্লকাস এমন একটি প্রাণী যারা বায়ু ধরে রাখতে পারে পাকস্থলীতে এবং তার সাহায্যে জলের উপরিভাগে ভেসে থাকতে পারে।

  • Share this:

    #আফ্রিকা: সম্প্রতি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাইরাল হয়েছে ‘বিরল ব্লু ড্রাগন’- এর ছবি। এই বিরল প্রজাতির প্রাণীটিকে দেখা গিয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকার টাউনে।সাদা, নীল এবং ধাতব নীল রং-এর শরীরের অসম্ভব সুন্দর এই প্রাণী কিন্তু আসলে বিষাক্ত। দেখে মনে হয়, এই প্রাণী টিকটিকি, পাখি, এবং ড্রাগন-এর শংকর প্রজাতি।কেপ টাউনের একজন স্থানীয় বাসিন্দা ২০টির মতো ব্লু ড্রাগন সেখানে চিহ্নিত করেছেন।

    কি এই ‘বিরল ব্লু ড্রাগন’?

    জেলিফিশ সদৃশ এই প্রাণী, যার বৈজ্ঞানিক নাম গ্লকাস অ্যাটলান্টিকাস, আদতে কিন্তু ড্রাগন নয়।এই সামুদ্রিক প্রাণীর চেহারায় ড্রাগনের সঙ্গে কিছুটা মিল পাওয়া যায় বলেই সম্ভবত এই নাম। পেলাজিক এয়লিড ন্যুডিব্রাঙ্ক নামক সি স্লাগ প্রজাতির অন্তর্গত এই প্রাণী আসলে গ্লসিডি ফ্যামিলির এক প্রকার খোলস-হীন গ্যাস্ট্রোপড মলাস্ক।

    কী ভাবে এরা কেপ টাউনে এলো?

    পেলাজিক প্রজাতির এই প্রাণী জলে ভাসমান থাকতে পারে, এবং সমুদ্রের স্রোতের সঙ্গে এগিয়ে চলতে পারে।

    এই প্রাণী কি মারাত্মক?

    মাত্র ৩ সেন্টিমিটার দীর্ঘ এই প্রাণী বেশ অভিজ্ঞ শিকারি। অন্যান্য সি স্লাগের মতো ব্লু গ্লকাস বিষধর নয়।পছন্দসই শিকার ধরার সময় ব্লু গ্লকাস সেই শিকারের দীর্ঘ, বিষাক্ত কর্ষিকায় তৈরি স্টিংগিং সেল গুলি মজুত করে রাখে নিজের শরীরে।পরবর্তীতে তারা এই স্টিংগিং সেলের সাহায্যে নিজেদের রক্ষা করে।

    ব্লু ড্রাগনের দেখা পাওয়া কি সতর্কতার কারণ?

    ওশেনিয়া নামে একটি ম্যাগাজিন-এর মতানুযায়ী ব্লু গ্লকাস এমন একটি প্রাণী যারা বায়ু ধরে রাখতে পারে পাকস্থলীতে এবং তার সাহায্যে জলের উপরিভাগে ভেসে থাকতে পারে। এক দল ব্লু গ্লকাস ভেসে বেড়ালে তাকে বলে “ব্লু ফ্লিট”। এই “ব্লু ফ্লিট” মানুষকে কামড়াতে পারে।

    ব্লু ড্রাগন কামড়ালে কী হতে পারে?

    ব্লু ড্রাগন কামড়ালে নিম্নোক্ত উপসর্গ গুলি দেখা দিতে পারে- ১। বমি ভাব ২। ব্যাথা ৩। বমি ৪। তীব্র এলার্জিক প্রতিক্রিয়া সায়েন্স রাঞ্চ-এর মতে এই গ্যাস্ট্রোপডের কামড়ে মানুষ মারাও যেতে পারে, বিশেষত যদি কারও এলার্জির প্রবণতা থাকে।

    Antara Dey

    Published by:Piya Banerjee
    First published: