Quad: ...ফল খারাপ হবে! চিনের হুমকি পাত্তা দিল না সাহসী বাংলাদেশ, ড্রাগনকে পাল্টা ধমক

চিনা অ্যাম্বাসেডর লি জিমিং বলেছিলেন, বাংলাদেশ এই জোটে যোগ দিলে তার ফল ভাল হবে না।

চিনা অ্যাম্বাসেডর লি জিমিং বলেছিলেন, বাংলাদেশ এই জোটে যোগ দিলে তার ফল ভাল হবে না।

  • Share this:

    #ঢাকা:

    এত সহজে তাদের ভয় দেখানো যায় না। বুঝিয়ে দিল বাংলাদেশ। চিনের হুমকি এতটুকু পাত্তা দিল না পড়শি দেশ। উল্টে পাল্টা ধমক দিল চিনকে। বাংলাদেশ কোয়াড অ্যালায়েন্সে যোগ দিলে ফল ভাল হবে না। বাংলাদেশকে এমনই হুমকি দিয়েছিল চিন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নেতৃত্বে চার দেশের এই কোয়াড জোটে রয়েছে ভারত, অস্ট্রেলিয়া ও জাপান। এই জোটে নাম লেখাতে পারে বাংলাদেশ। এমনই শোনা গিয়েছিল। বাংলাদেশের যোগ দেওয়ার সম্ভাবনা প্রকাশ্যে আসতেই হুমকি দিয়েছিল চিন। কোয়াড জোট চিন বিরোধী বলে পরিচিত। আর তাই বেজিং চেয়েছিল, এই জোটে যেন কোনওভাবেই বাংলাদেশ যুক্ত না হয়। তাই আগেভাগে হুমকি দিয়ে বাংলাদেশকে ভয় দেখাতে চেয়েছিল চিন।

    বাংলাদেশে নিযুক্ত চিনা অ্যাম্বাসেডর লি জিমিং বলেছিলেন, বাংলাদেশ এই জোটে যোগ দিলে তার ফল ভাল হবে না। বেজিংয়ে সঙ্গে ঢাকার সম্পর্কে অবনতি হতে পারে।

    বাংলাদেশ এবার পাল্টা ধমক দিল চিনকে। বাংলাদেশের তরফে চিনকে স্পষ্ট জানিয়ে দেওয়া হল, তারা নিজেদের বিদেশনীতি নিজেরাই ঠিক করে। বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী ডক্টর এ কে আব্দুল মোমিন বলেছেন, আমরা যথাসম্ভব সামঞ্জস্য বজায় রেখেই বিদেশ নীতি গঠনের চেষ্টা করি। কিন্তু নিজেদের সিদ্ধান্ত আমরা নিজেরাই নিই। সেখানে কারও হস্তক্ষেপ কাম্য নয়। আমরা স্বাধীন দেশ। তবে কোনও দেশ চাইলে নিজেদের ক্ষোভ প্রকাশ করতেই পারে। তাতে আমাদের নীতিতে বদল হওয়ার সম্ভাবনা নেই। তিনি আরও বলেন, চিনের দূত তাঁর দেশের প্রতিনিধি। তাই কোনও কিছু বলার সময় এতটা হঠকারী হওয়া চিনা বিদেশমন্ত্রীর উচিত ছিল না। এদিন মোমিন আরও জানান, কোয়াড জোটের কোনও সদস্যের সঙ্গে এখনও পর্যন্ত বাংলাদেশের কোনও কথা হয়নি।

    কোয়াড্রিল্যাটেরাল সিকিউরিটি ডায়লগ, যা কোয়াড নামে পরিচিত, আদতে অস্ট্রেলিয়া, ভারত, আমেরিকা এবং জাপানের কৌশলগত জোট। বিশেষজ্ঞদের দাবি, ইন্দো-প্যাসিফিক এলাকায় চিনা আগ্রাসন রুখতেই এই জোট গঠন উৎপত্তি হয়েছিল। বাংলাদেশ কোয়াড জোটে যোগ দিলে কৌশলগত ভাবে চিনের জন্য বড় ধাক্কা। চিনের বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ-এর একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ বাংলাদেশ হয়ে যাওয়ার কথা। আন্তর্জাতিক মহলের অনেকে বলেন, এটা আসলে ভারতকে চাপে রাখার কৌশল। বাংলাদেশ কোয়াডে যোগ দিলে এই বেল্ট অ্যান্ড রোড ইনিশিয়েটিভ বড় ধাক্কা খাবে। তাই এখন থেকেই আশঙ্কায় ঘুম উড়েছে চিনের প্রশাসনিক কর্তাদের।

    Published by:Suman Majumder
    First published: