বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

আলসেমির সেরা উদাহরণ, অস্ট্রেলিয়ার দ্বীপে এই ব্যক্তির স্নরকেলিং ভিডিও নজর কাড়বে আপনারও

আলসেমির সেরা উদাহরণ, অস্ট্রেলিয়ার দ্বীপে এই ব্যক্তির স্নরকেলিং ভিডিও নজর কাড়বে আপনারও

পৃথিবীর সব চেয়ে অলসতম উপায়ে জলের নিচের পৃথিবী উপভোগ করার চেষ্টা করছেন ওই ব্যক্তি

  • Share this:

#রটনেস্ট: অস্ট্রেলিয়ার রটনেস্ট দ্বীপে ধরা পড়ল এক অদ্ভুত দৃশ্য। কোনও রকম পরিশ্রম ছাড়াই জলের নিচের পৃথিবী দেখার এ বোধ হয় সব চেয়ে সেরা উপায়। ইতিমধ্যেই ভাইরাল হয়েছে ভিডিওটি।

অস্ট্রেলিয়ার রটনেস্ট দ্বীপের এই মজার ভিডিওটিতে দেখা যাচ্ছে, জলের মাঝে একটি ছোট্ট বোটের উপর ভেসে চলেছেন দম্পতি। মহিলাটি বোটে প্যাডেল করছেন। আর তাঁর পুরুষ সঙ্গী উপুড় হয়ে বোটের উপরে শুয়ে আছেন। জলের মধ্যে ডুবে রয়েছে তাঁর মুখ। এ ভাবেই স্নরকেলিংয়ের চেষ্টা করছেন তিনি। নেটিজেনদের কথায়, কোনও রকম পরিশ্রম বা অ্যাডভেঞ্চার ছাড়াই বোধ হয় পৃথিবীর সব চেয়ে অলসতম উপায়ে জলের নিচের পৃথিবী উপভোগ করার চেষ্টা করছেন ওই ব্যক্তি। যাঁরা তাঁদের পেশিশক্তিকে কাজে লাগাতে চান না বা আদতে সাঁতার জানে না, তাঁরাই এই ধরনের অদ্ভুত পদ্ধতি অবলম্বন করতে পারেন বলে দাবি নেটিজেনদের।

সোমবার Bell Tower Times নামে একটি ফেসবুক পেজে শেয়ার করা হয়েছে ভিডিওটি। ইতিমধ্যেই ১৬ হাজারের বেশি লাইক পড়েছে ভিডিওটিতে। ভিডিওর ক্যাপশনে মজা করে লেখা- Rotto snorkelling game 101. Work smarter not harder। ভিডিওটি দেখার পর অনেকেই কমেন্ট করেছেন। একজন ব্যবহারকারী লিখেছেন, ব্রিলিয়ান্ট, দৃশ্যটি দেখে মনে হচ্ছে, যখন আপনি সাঁতার জানেন না কিন্তু স্নরকেলিং করার বড্ড ইচ্ছে হয়! অনেকে আবার ভিডিওর সত্যতা নিয়েও সংশয় প্রকাশ করেছেন।

প্রসঙ্গত, পার্থের কাছে পশ্চিম অস্ট্রেলিয়া উপকূলের একটি জনপ্রিয় পর্যটন স্থল হল রটনেস্ট দ্বীপ (Rottnest Island)। এর বিস্তীর্ণ প্রান্তরে বিশেষ করে স্থলভাগে বাইসাইকেলে চেপে দারুণ ভাবে উপভোগ করা যেতে পারে দ্বীপটির মনোরম প্রকৃতি। দ্বীপের আশেপাশে ভাড়াতেও পাওয়া যায় বাইক ও সাইকেল। এ ক্ষেত্রে ফ্রেমেন্টল (Fremantle) থেকে ২৫ মিনিটের ফেরি পথে বা পার্থের উত্তরাঞ্চলের হিল্যারিস বোট হার্বার থেকে ৪৫ মিনিটের ফেরি পথে পৌঁছানো যায় রটো দ্বীপে। এ ছাড়াও পার্থের ব্যারাক স্ট্রিট (Perth's Barrack Street ) থেকে ৯০ মিনিটের ফেরি পথে পৌঁছানো যেতে পারে দ্বীপটিতে। স্কাই ড্রাইভিং, সার্ফিং থেকে শুরু করে স্নরকেলিং-সহ একাধিক পরিষেবা উপলব্ধ রয়েছে এখানে।

এই দ্বীপে কোক্কা (Quokka) নামে একটি ছোট্ট ও অত্যন্ত সুন্দর বন্যপ্রাণী বসবাস করে। বলা বাহুল্য, রটনেস্ট ও মেইনল্যান্ড অস্ট্রেলিয়ার দু'-একটি ছোট কলোনি ছাড়া পৃথিবীর কোথাও সে ভাবে দেখা যায় না এই কোক্কা। এখানে আসা পর্যটকদের সঙ্গে দারুণ ভাবে মিশে যায় এই প্রাণী। অনেকের সঙ্গে পোষ্যের মতো আচরণ করে এটি। তবে কোক্কাকে ছোঁয়া বা খাবার খাওয়ানোর ক্ষেত্রে আইনি বিধি-নিষেধ রয়েছে। তাই এই প্রাণীকে এড়িয়ে চলেন এখানে আসা পর্যটকরা!

Published by: Ananya Chakraborty
First published: December 23, 2020, 11:20 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर