অবিশ্বাস্য ভিডিও! জেট স্যুট পরে আকাশে উড়ছেন রয়্যাল নেভির সদস্যেরা, মাঝসমুদ্রে নামছেন চলন্ত জাহাজে!

অবিশ্বাস্য ভিডিও! জেট স্যুট পরে আকাশে উড়ছেন রয়্যাল নেভির সদস্যেরা, মাঝসমুদ্রে নামছেন চলন্ত জাহাজে!

ইউনাইটেড কিংডমের রয়্যাল নেভির সদস্যেরা আকাশে উড়লেন, আকাশ থেকে সরাসরি নেমে এলেন মাঝ-সমুদ্রে ভাসতে থাকা সেনাবাহিনীর জাহাজের বুকে।

ইউনাইটেড কিংডমের রয়্যাল নেভির সদস্যেরা আকাশে উড়লেন, আকাশ থেকে সরাসরি নেমে এলেন মাঝ-সমুদ্রে ভাসতে থাকা সেনাবাহিনীর জাহাজের বুকে।

  • Share this:

#ইংল্যান্ড: ব্রিটেনের এই সংস্থার নামটাই যা গ্র্যাভিটি ইন্ডাস্ট্রিজ! আদতে তাদের কাজকর্ম ছাড়িয়ে গিয়েছে পৃথিবীর মাধ্যাকর্ষণের সূত্র। অসম্ভবকেও সম্ভব করে তুলেছে বিজ্ঞান এবং প্রযুক্তি, দেখেও বিশ্বাস করা যাচ্ছে না যে মানুষ এখন আকাশে উড়তে পারবে!

মানুষের হাতে থাকা এই প্রযুক্তির নাম জেট স্যুট। স্যুট বলা হলেও আদতে তা সারা শরীর ঢেকে রাখছে না। বরং, পিঠে ব্যাগ বা বলা ভালো প্যারাশ্যুটের মতো একটা অংশ আছে। আর দুই হাতে আছে বিশাল আকারের গ্লাভসের মতো বাকি দুই যন্ত্রাংশ। বাকিটা নিছক বিজ্ঞানের কৃতিত্ব, যা ব্যবহার করে সম্প্রতি ইউনাইটেড কিংডমের রয়্যাল নেভির সদস্যেরা আকাশে উড়লেন, আকাশ থেকে সরাসরি নেমে এলেন মাঝ-সমুদ্রে ভাসতে থাকা সেনাবাহিনীর জাহাজের বুকে।

বিগত বেশ অনেকগুলো মাস ধরে গ্র্যাভিটি ইন্ডাস্ট্রিজ এই উড়ানের প্রশিক্ষণ দিয়েছে রয়্যাল নেভির সদস্যের। তাদের উদ্ভাবিত এই জেট স্যুট ঠিকঠাক ভাবে কাজ করছে কি না, আকাশে ওঠার পরেই বিগড়ে যাচ্ছে কি না, সে সবও দেখার ছিল খতিয়ে! হাজার হোক, সে যন্ত্র মাত্র, যে কোনও মুহূর্তে খারাপ হয়ে যেতেই পারে! কিন্তু সব দিক থেকে ট্রায়াল দিয়ে নিঃসন্দিগ্ধ হয়েছে গ্র্যাভিটি ইন্ডাস্টিরজ এবং রয়্যাল নেভি- এবার আকাশে শরীর মেলে দেওয়াই যায়!

জানা গিয়েছে যে সম্প্রতি গ্র্যাভিটি ইন্ডাস্ট্রিজের প্রতিষ্ঠাতা এবং প্রধান টেস্ট পাইলট রিচার্ড ব্রাউনিং এই উড়ানে অংশ নিয়েছিলেন ৪২ জন কমান্ডোর সঙ্গে। সেই উড়ানেরই ভিডিও সম্প্রতি নিজেদের তাদের YouTube চ্যানেলে পোস্ট করেছে সংস্থা যা দেখলে গায়ে কাঁটা দেয়। এই ভিডিওয় দেখা যাচ্ছে যে তিনটি স্পিড বোট অত্যন্ত দ্রুত গতিতে সমুদ্রের বুক চিরে এগিয়ে আসছে একটি যুদ্ধজাহাজের দিকে। সারির একেবারে প্রথমে থাকা স্পিড বোটে একজনকে উঠে দাঁড়াতে দেখা যায়। তার পরেই ওই ব্যক্তি উঠে যান আকাশে, বিমান যে ভাবে শূন্যে চলাচল করে, সেই ভাবেই বেশ দ্রুত গতিতে তিনি এগোতে থাকেন জাহাজের দিকে এবং অবলীলায় জাহাজে নেমে আসেন। এর পর হাত থেকে গ্লাভসের মতো অংশটা খুলে তিনি দড়ির মই ঝুলিয়ে দেন যাতে জাহাজের কাছে এসে যাওয়া বোটের বাকিরা মই বেয়ে উপরে উঠে আসতে পারেন। লক্ষ্য করার মতো বিষয় হল এই জেট স্যুটের গতিবেগ স্পিড বোটের চেয়েও বেশি!

এই জেট স্যুটের ব্যবহার যে প্রয়োজনে আকাশপথে চলাচল করা এবং মাঝসমুদ্রে খবর পাঠানোর কাজে খুবই কাজে আসবে, তা আর বলার অপেক্ষা রাখে না! সমস্যা শুধু একটাই, এর বিশাল দাম! একটি জেট স্যুটের খরচ ৪৩০,০০০ ডলার, ভারতীয় মুদ্রায় ৩ কোটি ১৭ লক্ষ ৫৪ হাজার ২১০ টাকা! এরকম খানকয়েক স্যুট কিনতে গেলেও যে রয়্যাল নেভির সিন্দুক ফাঁকা হতে বসবে, তা সহজেই বোঝা যায়!

Published by:Simli Raha
First published: