চল্লিশের যুবক চোরের হাত থেকে বাঁচালেন ৪০ লক্ষ টাকা, কাজে এল ফুটবল, দেখুন ভাইরাল ভিডিও!

চল্লিশের যুবক চোরের হাত থেকে বাঁচালেন ৪০ লক্ষ টাকা, কাজে এল ফুটবল, দেখুন ভাইরাল ভিডিও!

চল্লিশের যুবক চোরের হাত থেকে বাঁচালেন ৪০ লক্ষ টাকা, কাজে এল ফুটবল, দেখুন ভাইরাল ভিডিও!

প্রথমে দেখা যাচ্ছে যে হালকা সবুজ টি-শার্ট পরা এক ব্যক্তি মুখে মাস্ক পরে একটা কাচের দরজা দিয়ে এক কাফেতে ঢুকছেন।

  • Share this:

#দুবাই: ঘটনার সঙ্গে যেন ৪০ অঙ্কটা ওতপ্রোত ভাবে জড়িয়ে গিয়েছে। যে অঙ্কের টাকা নিয়ে ছুটে পালাতে যাওয়ার সময়ে চোর চমকে চল্লিশ, তা ৪০ লক্ষ টাকা। যে যুবক রয়েছেন চেোরের পথ আটকানোর মূলে, তাঁর বয়স ৪০ বছর! আবার ঘটনাটাও মধ্যপ্রাচ্যের, যেখানকার চল্‌লিশ চোরের হাত থেকে মর্জিনার মালিককে বাঁচানোর গল্প এখনও লোকের মুখে মুখে ফেরে। তবে এখন যুগ প্রযুক্তির, তাই জাফর পারাপুরাত নামের এই যুবকের বুদ্ধিমত্তা এবং সাহসের ভিডিও ফুটেজ ঘুরছে লোকের হাতে হাতে স্মার্টফোনে।

জানা গিয়েছে যে জাফর ভারতের কেরলের বাসিন্দা। কর্মসূত্রে তিনি গিয়েছেন দুবাইতে। যে রেস্তোরাঁয় তিনি কাজ করেন আপাতত, সেটার মালিক তাঁর কাকা। দুবাইয়ের দেইরার বানি আস এলাকায় এই কাফেটেরিয়াটি অবস্থিত। সেই কাফের সিসিটিভি ফুটেজেই জাফরের অসমসাহসী কীর্তির কথা উঠে এসেছে।

প্রথমে দেখা যাচ্ছে যে হালকা সবুজ টি-শার্ট পরা এক ব্যক্তি মুখে মাস্ক পরে একটা কাচের দরজা দিয়ে এক কাফেতে ঢুকছেন। এর পরেই তাঁকে আচমকা বেরিয়ে আসতে দেখা যায় ওই কাফে থেকে। এর পর ভিডিওয় চোখে পড়ে একজন ছুটে আসা লোক। জাফরকে পা তুলতে দেখা যায় এবং সেই ছুটতে থাকা ব্যক্তি ছিটকে পড়েন মাটিতে।

জাফর জানিয়েছেন যে কাফেতে ঢোকার পরেই একটা হইচই তাঁর কানে আসে। বাইরে বেরিয়ে তিনি বুঝতে পারেন যে একজন চোর এক দোকানের টাকা তুলে নিয়ে পালাচ্ছেন। জাফর প্রথমে তাকে দৌড়ে ধরার কথা ভেবেছিলেন। কিন্তু ওই ব্যক্তিকে দ্রুত বেগে ছুটে আসতে দেখে তিনি বুঝে যান যে ওই গতিবেগের সঙ্গে পাল্লা দেওয়া তাঁর পক্ষে সম্ভব হবে না। তাই তিনি একটু পিছিয়ে আসেন এবং কাজে লাগান নিজের ফুটবল খেলার দক্ষতা। চোর কাছে আসতেই বলে লাথি মারার কায়দায় তাঁকে আঘাত করেন জাফর। টাল সামলাতে না পেরে ওই ব্যক্তি মুখ থুবড়ে পড়ে যান মাটিতে। এর পর বাকিরা এসে তাঁকে ঘিরে ধরে টাকা উদ্ধার করে।

সোশ্যাল মিডিয়া ঘটনায় ধন্য ধন্য করলেও কৃতিত্ব জাফর একা নিতে চাননি। জানিয়েছেন, তাঁর ভাইও একটা চেয়ার ছুড়ে চোরের গতিরোধ করার চেষ্টা করেছিলেন। তাতে থতমত খেয়ে যাওয়াতেই চোর ধরা সহজ হয়!

First published: