corona virus btn
corona virus btn
Loading

Trump Impeachment: ইমপিচমেন্ট হবে, মেজাজ হারিয়ে ১২৩টি ট্যুইট করে রেকর্ড গড়লেন ট্রাম্প

Trump Impeachment: ইমপিচমেন্ট হবে, মেজাজ হারিয়ে ১২৩টি ট্যুইট করে রেকর্ড গড়লেন ট্রাম্প
ডোনাল্ড ট্রাম্প

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্ট প্রস্তাবে মূলত অভিযোগ, ভোটে ফায়দা তুলতে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত করাতে ইউক্রেনকে চাপ দিয়েছেন ট্রাম্প৷

  • Share this:

#নিউ ইয়র্ক: হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস-এর বিচার বিভাগীয় কমিটি মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট প্রস্তাবের দুটি ধারায় সায় দিয়েছে৷ যার নির্যাস, ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট তদন্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল৷ ইমপিচমেন্টে দোষী প্রমাণিত হলে, শাস্তির পাশাপাশি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্টের পদও খোয়াতে হবে তাঁকে৷ এ হেন অবস্থায় ২ ঘণ্টার মধ্যে ১২৩টি ট্যুইট করে ফেললেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট৷ তিনি নির্দোষ, প্রতিটি ট্যুইটেই দাবি করলেন৷ তাঁর বক্তব্য, চক্রান্ত করে তাঁর বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্ট প্রস্তাব আনা হয়েছে৷

ইমপিচমেন্টের সবুজ সঙ্কেতের খবর হতেই মেজাজ হারিয়েছেন ট্রাম্প৷ ট্যুইটারে ট্রাম্প লিখছেন, 'বিধ্বংসী ও ষড়যন্ত্র৷ কোনও দোষ করিনি৷ স্রেফ প্রতিহিংসায় ডেমোক্র্যাটরা আমায় ইমপিচ করতে চাইছে৷ এই দলটা ভয়ংকর৷ এরা দেশের ভালো চায় না৷ কোনও অন্যায় করিনি। বরং প্রেসিডেন্ট হিসেবে দেশকে সবচেয়ে পোক্ত অর্থনীতি দিয়েছি, ঢেলে সাজিয়েছি সেনাকে, চাকরি-চাকরি আর শুধু চাকরির বন্দোবস্ত করেছি সবার জন্য। তার পরেও ইমপিচমেন্টের নামে এই ভিত্তিহীন ষড়যন্ত্র৷'

ট্রাম্পের বিরুদ্ধে ইমপিচমেন্ট প্রস্তাবে মূলত অভিযোগ, ভোটে ফায়দা তুলতে প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী জো বাইডেনের বিরুদ্ধে দুর্নীতির তদন্ত করাতে ইউক্রেনকে চাপ দিয়েছেন ট্রাম্প৷ ফোনে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভোলোদোমির জেলেনস্কিকে ট্রাম্প ফোনে চাপ দেন, জো বাইডেনের বিরুদ্ধে তদন্ত না করলে, ইউক্রেন থেকে সেনা তুলে নেবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র৷ ট্রাম্পের ইমপিচমেন্ট প্রস্তাবে এই বিষয়টিতে তদন্তে সায় দিয়েছে হাউস অফ রিপ্রেজেন্টেটিভস৷ ট্যুইটারে ট্রাম্প রীতিমতো ডেমোক্র্যাটদের হুমকি দিয়ে লিখেছেন, 'খুব ভাল কথা। আগামী দিনে আসুন ডেমোক্র্যাট প্রেসিডেন্ট। হাউসের দখল তখন থাকবে রিপাবলিকানদের হাতে। তখন বুঝবেন, কত ধানে কত চাল! শুধু রাজনৈতিক ফায়দা নিতে ইমপিচ করতে চাইলে, ইতিহাসের পুনরাবৃত্তি হবেই।'

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে এখনও পর্যন্ত দু জন প্রেসিডেন্টের ইমপিচমেন্ট হয়েছে৷ ১৮৬৮ সালে প্রেসিডেন্ট অ্যান্ড্রু জনসন ও ১৯৯৮ সালে ইমপিচমেন্ট হয় বিল ক্লিন্টনের৷ তবে তাঁরা অবশ্য পদ থেকে অপসারিত হননি৷ মার্কিন কংগ্রেসের উচ্চকক্ষে তাঁদের অপসারণের বিরুদ্ধে সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোট পড়ে৷ ১৯৭৪ সালে মার্কিন প্রেসিডেন্ট রিচার্ড নিক্সন ইমপিচমেন্ট নিশ্চিত জেনে, নিজেই পদত্যাগ করেছিলেন৷ ডোনাল্ড ট্রাম্প মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের তৃতীয় প্রেসিডেন্ট, যিনি ইমপিচমেন্টে কলঙ্কিত হবেন৷ তবে প্রেসিডেন্ট পদ থেকে অপসারিত হবেন কিনা, তা সময়ই বলবে৷

Published by: Arindam Gupta
First published: December 15, 2019, 12:48 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर