• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • নকল মৃত্যুর খবর প্রচার ও ভুয়ো ডেথ সার্টিফিকেট বানিয়ে চার বছরের জেল যুবকের !

নকল মৃত্যুর খবর প্রচার ও ভুয়ো ডেথ সার্টিফিকেট বানিয়ে চার বছরের জেল যুবকের !

ওই দুই পরিবারের অবশ্য দাবি, নিজেদের সন্তানদের শরীর খারাপ থাকায় তারা বেজের পরামর্শ নিয়েছিল৷ এর সঙ্গে তাদের বলি দেওয়া বা উৎসর্গ করার কোনও সম্পর্ক নেই৷ গত বছরও অসমে উদলগিরি জেলায় একটি শিশুকে বলি দেওয়ার চেষ্টা করছিল তার পরিবার৷ তবে শেষ মুহূর্তে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ৷ ২০১৩ সালেও অসমে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে তার সন্তানকে বলি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল৷

ওই দুই পরিবারের অবশ্য দাবি, নিজেদের সন্তানদের শরীর খারাপ থাকায় তারা বেজের পরামর্শ নিয়েছিল৷ এর সঙ্গে তাদের বলি দেওয়া বা উৎসর্গ করার কোনও সম্পর্ক নেই৷ গত বছরও অসমে উদলগিরি জেলায় একটি শিশুকে বলি দেওয়ার চেষ্টা করছিল তার পরিবার৷ তবে শেষ মুহূর্তে তাকে উদ্ধার করে পুলিশ৷ ২০১৩ সালেও অসমে এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে তার সন্তানকে বলি দেওয়ার অভিযোগ উঠেছিল৷

প্রথমত সার্টিফিকেটে যে ফন্ট সাইজে লেখা ছিল, তা দেখে সন্দেহ দানা বাঁধে। এর পর চোখে পড়ে বানান ভুল।

  • Share this:

    #নিউইর্য়ক: নকল মৃত্যুর খবর প্রচার করে জেল খাটার শাস্তি থেকে পালিয়ে বাঁচতে চেয়েছিল নিউ ইয়র্কের এক ২৫ বছরের যুবক। যুবকের নাম রর্বাট বার্গার। নিউ ইয়র্কের বাসিন্দা সে। ছোট থেকেই নানা রকম জালিয়াতি জড়িয়ে পড়ে সে। তাঁর নামে কোর্টে কেস শুরু হয়। সে সময় নিজের মৃত্যুর খবর উকিলের মাধ্যমে কোর্টকে জানায় সেই যুবক।

    প্রথমে আদালত গোটা বিষয়টা মেনে নিয়েছিল। কিন্তু বাধ সাধলো ডেথ সার্টিফিকেট। নিউ জার্সির ডিপার্টমেন্ট অফ হেল্থ থেকে এই ডেথ সার্টিফিকেট ইস্যু করা হয়। সেই মতো সব সরকারি নথিও দেওয়া হয়। কিন্তু ভাল করে ওই ডেথ সার্টিফিকেট পড়তে গিয়ে দেখা যায় সেখানে একটা বড় সমস্যা রয়েছে।

    প্রথমত সার্টিফিকেটে যে ফন্ট সাইজে লেখা ছিল, তা দেখে সন্দেহ দানা বাঁধে। এর পর চোখে পড়ে বানান ভুল। রেজিস্ট্রি বানানটা ভুল ছিল। আর তাতেই উকিলকে জেরা শুরু হয়। এবং তারপরই সত্যি ঘটনা সামনে আসে। নকল সার্টিফিকেট দিয়ে জেল খাটার হাত থেকে বাঁচতে চেয়েছিল ওই যুবক। চুরির অপবাদে ওই যুবককে শাস্তি দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু ডেথ সার্টিফিকেট নকল করার অপরাধে ওই যুবকের চার বছরের জেল হয়। তবে এই ধরণের ফেক মৃত্যু খবর ছড়িয়ে অনেকেই জেলের হাত থেকে নিজেদের মুক্ত করিয়ে থাকেন।  ধরা পড়লে তার শাস্তি কঠোর। এই খবর জানাজানি হওয়ার পর অনেকেই ওই যুবককে দোষী মনে করেছেন। তার এই কাজে রীতিমতো রাগে ফেটে পড়েছেন অনেকেই। তবে ওই যুবকের উকিলকেও সাসপেন্ড করা হয়েছে। সে মিথ্যে কেস লড়ার চেষ্টা করছিল।

    Published by:Piya Banerjee
    First published: