• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • ৭০ বছর পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল কোনও মহিলাকে

৭০ বছর পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল কোনও মহিলাকে

৭০ বছর পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল কোনও মহিলাকে

৭০ বছর পর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল কোনও মহিলাকে

৫২ বছরের কনসাসের মহিলা লিসা মন্টেগোমারিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে৷ ১৯৫৩ সালে মার্কিন মুলুকে শেষবার কোনও মহিলার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছিল৷ ৭০ বছর পর সেখানে ফের কোনও মহিলাকে মৃত্যুদণ্ড দিল মার্কিন সরকার৷

  • Share this:

    #ইন্ডিয়ানাপোলিস: ৫২ বছরের কনসাসের মহিলা লিসা মন্টেগোমারিকে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হল মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে৷ ১৯৫৩ সালে মার্কিন মুলুকে শেষবার কোনও মহিলার মৃত্যুদণ্ড কার্যকর হয়েছিল৷ ৭০ বছর পর সেখানে ফের কোনও মহিলাকে মৃত্যুদণ্ড দিল মার্কিন সরকার৷

    অ্যাসোসিয়েট প্রেস-এর রিপোর্ট বলছে বুধবার লিসার কাছে জানতে চাওয়া হয়েছিল, মৃত্যুর আগে তার কোনও শেষ ইচ্ছা আছে কি না? লিসা উত্তরে না বলে৷ এরপর শরীরে বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দিয়ে লিসার মৃত্যু কার্যকর করে মার্কিন প্রশাসন। ইন্ডিয়ানার টেরে হউট জেলের এক্সিকিউশন চেম্বারে এই মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয় লিসাকে৷

    এখন প্রশ্ন লিসা এমন কী নৃশংস অপরাধ করেছিল, যার জন্য মৃত্যুদণ্ড ভোগ করল? ১৬ বছর আগের ঘটনা৷ মিসৌরিতে আট মাসের অন্ত্বঃসত্তা মহিলা ববি জো স্টিনেন্তকে লিসা প্রথমে অপহরণ করে, তারপর শ্বাসরোধ করে খুন করে৷ এরপর স্টিনেন্তের পেট চিড়ে গর্ভস্থ শিশুকে নিয়ে চম্পট দেয় লিসা৷ মা মারা গেলেও অদ্ভুত ভাবে শিশুটি বেঁচে গিয়েছিল৷ এরপর লিসা নিজের পরিবারের কাছে স্টিনেন্তের সন্তানকে নিজের বলে পরিচয় দেওয়ার চেষ্টা করে৷ কিন্তু শেষ পর্যন্ত আইনকে ফাঁকি দিতে পারেনি সে৷ ২০০৭ সালে দোষী সাব্যস্ত হয় লিসা৷ ফেডারেল আদালতের মৃত্যুদণ্ডের নির্দেশ দেয়৷

    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে মৃত্যুদণ্ডের ইতিহাস বলছে ১৯৫৩ সালে বনি হেডি নামে এক মহিলাকে শিশু খুনের অভিযোগে গ্যাস চেম্বারে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হয়েছিল। এরপর ১৯৭৬ সালে যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্ট মৃত্যুদণ্ডে নিষেধাজ্ঞা জারি করে। পরে তা প্রত্যহার করা হলেও মৃত্যুদণ্ড বন্ধই ছিল। ২০১৮ সালে সদ্য বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সরকার ফের মৃত্যুদণ্ড চালু করে৷ ট্রাম্প ক্ষমতায় আসার পর লিসাকে নিয়ে মোট ১১ জনকে বিষাক্ত ইঞ্জেকশন দিয়ে মৃত্যু কার্যকর করল মার্কিন প্রশাসন৷

    Published by:Subhapam Saha
    First published: