• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • UNITED STATES PRESIDENT JOE BIDEN SAID ON US AFGHAN MOVE HISTORY GOING TO RECORD IT WAS RIGHT DECISION SB

Biden on Taliban: ৩১ অগস্ট পর্যন্ত সময়, ISIS-তালিবান যুগলবন্দি নিয়ে চরম হুঁশিয়ারি বাইডেনের

বাইডেনের হুঁশিয়ারি

Biden on Taliban: আফগানিস্তানের দখল তালিবানের হাতে চলে যাওয়ার পর এখন তালিবান-আইসিস যুগলবন্দিই আমেরিকার মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। এবার তালিবানকে হুঁশিয়ারিও দিলেন জো বাইডেন।

  • Share this:

    #কাবুল: তালিবানের হাতে আফগানিস্তানের ক্ষমতা হস্তান্তরের পর প্রথমবার মুখ খুলে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছিলেন, ‘‘তালিবান দেশের মানুষের ভাল চায় কি না এবং আইনসঙ্গত সরকার হিসেবে বাকি দেশের সমর্থন চায় কি না, তা তাদেরই ঠিক করতে হবে।’’ আর এবার তিনি মূলত চ্যালেঞ্জের সুরেই জানিয়ে দিলেন, তালিবানের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিতে বদ্ধপরিকর মার্কিন সেনা। আফগানিস্তানের দখল তালিবানের হাতে চলে যাওয়ার পর এখন তালিবান-আইসিস যুগলবন্দিই আমেরিকার মাথাব্যথার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। সেই সূত্রে G7 বৈঠকেও বসতে চলেছে সংশ্লিষ্ট দেশগুলি।

    বাইডেন জানান, '৩৬ ঘণ্টার মধ্যে ১১ হাজার মার্কিনীকে দেশে ফেরত আনা হয়েছে। ৩১ অগস্টের মধ্যে সমস্ত মার্কিন নাগরিককে দেশ ফেরত আনা হবে।' আফগান দখল তালিবানের হাতে যাওয়ার পর বাইডন বলেছিলেন, ‘‘তালিবান আইনসম্মত সরকার প্রতিষ্ঠা করতে চায়, এমনটা তো আমার মনে হয় না। বরং ওদের দেখে এটাই মনে হয়েছে তালিবান এখনও ওঁদের চিরকালীন বিশ্বাস আর মতাদর্শ থেকে সরে আসতে পারেনি। ওরা আফগানবাসীর খেয়াল রাখবে, সেই ভরসা আমি অন্তত করি না।’’ একই সঙ্গে তালিবানের উদ্দেশে তাঁরা খোলাখুলি বার্তা, ‘‘তালিবান বিশ্বের বাকি দেশগুলির সমর্থন চায় কি না, তা তাদেরই ঠিক করতে হবে।’’ তবে, এদিনও ফের তিনি বুঝিয়ে দিয়েছেন আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহারের সিদ্ধান্ত সঠিক। তিনি বলেন, 'আমার মনে হয়, ইতিহাসে লেখা থাকবে, এই সিদ্ধান্ত যুক্তিসঙ্গত, দেশের জন্য একদম সঠিক সিদ্ধান্ত ছিল।'

    এরই মধ্যে চিন্তা বাড়িয়েছে আইসিসকে নিয়ে নতুন চিন্তা। কাবুল বিমানবন্দরই এখন বিদেশীদের আফগানিস্তান ছাড়ার একমাত্র রাস্তা। এখনও বিমানবন্দরে রয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র সহ কয়েকটি দেশের সেনা। কিন্তু মার্কিন গোয়েন্দাদের আশঙ্কা, যে কোনও সময় কাবুল বিমানবন্দরে হামলা চালাতে পারে আইসিস।

    মার্কিন প্রতিরক্ষা সচিব জ্যাক সুলিভান সংবাদমাধ্যমে বলেন, 'আমাদের কাছে আইসিস হামলার হুমকির প্রমাণ আছে। বারবারেই এমন হুমকি দেওয়া হচ্ছে। ফলে এরকম এক হুমকিকে সবচেয়ে বেশি গুরুত্ব দিচ্ছি। সেনাকর্মী ছাড়াও তাদের টার্গেটে রয়েছে আফগানিস্তানে থাকা মার্কিন নাগরিকরাও।'

    Published by:Suman Biswas
    First published: