অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সেলফি, মুহূর্তে পাহাড়ের চূড়া থেকে খাদে ধাক্কা স্বামীর! হাড়হিম করা দৃশ্য...

অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সেলফি, মুহূর্তে পাহাড়ের চূড়া থেকে খাদে ধাক্কা স্বামীর! হাড়হিম করা দৃশ্য...
অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীর সঙ্গে ঘনিষ্ঠ সেলফি, মুহূর্তে পাহাড়ের চূড়া থেকে খাদে ধাক্কা স্বামীর! হাড়হিম করা দৃশ্য.। প্রতীকী ছবি।

বছর চল্লিশের ওই ব্যক্তি সেলফি তোলা হয়ে গেলে ধাক্কা মেরে ১০০০ ফুট গভীর খাদে ফেলে দেন অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীকে।

  • Share this:

    #ইস্তাম্বুল: সাত মাসের অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীকে নিয়ে পাহাড়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন। বেড়ানো শেষে রোম্যান্টিক সেলফি তোলেন দু'জনে। এরপরেই ঘটে সাংঘাতিক ঘটনা...

    বছর চল্লিশের ওই ব্যক্তি সেলফি তোলা হয়ে গেলে ধাক্কা মেরে ১০০০ ফুট গভীর খাদে ফেলে দেন অন্তঃস্বত্বা স্ত্রীকে। উদেশ্য ছিল স্ত্রীর দুর্ঘটনায় মৃত্যু হলে বিমার ৫৭, ০০০ ডলার পাবেন তিনি। যদিও তাঁর সেই উদ্দেশ্য সফল হয়নি ব্যক্তির। আন্তর্জাতিক একটি সংবাদ মাধ্যমের রিপোর্ট অনুযায়ী, অভিযুক্ত ব্যক্তির নাম হাকান অ্যাসাল। মৃত স্ত্রীর নাম সেমরা অ্যাসাল। ঘটনাটি ঘটে ২০১৮ সালের জুন মাসে দক্ষিণ-পূর্ব টার্কির বাটারফ্লাই ভ্যালিতে। রিপোর্ট অনুযায়ী, স্ত্রীর মৃত্যুর পরে কোনও সময় নষ্ট না করে তিনি বিমার টাকার দাবি করেন। জানান, তাঁর স্ত্রীর দুর্ঘটনার জন্য পাওয়া বিমার একমাত্র দাবিদার তিনিই। কিন্তু বিমা সংস্থা অভিযুক্ত হাকানের দাবি মানেনি। উল্টে  তাঁর বিরুদ্ধে তদন্ত শুরু করে। কারণ তাঁদের ধারণা ছিল, হাকানের অন্ত্বঃস্বত্বা স্ত্রীর মৃত্যু পরিকল্পিত খুন হতে পারে।

    Mirror UK-র রিপোর্ট অনুযায়ী, ঘটনার দিন হাকান এবং তাঁর স্ত্রী পাহাড়ের চূড়ায় তিন ঘণ্টা বসেছিলেন। সেখানে গল্প করার পাশাপাশি সুখী দাম্পত্যের প্রমাণ দিতে রোম্যান্টিক সেলফি তোলেন একাধিক। এরপর যখন হাকান দেখেন আশেপাশে কেউ নেই, তখনই স্ত্রীকে পাহাড়ের খাঁজে ফেলে দেন। যদিও অভিযুক্ত এই দাবি মানতে রাজি হননি। তাঁর দাবি, 'ছবি তোলার পরে স্ত্রী নিজের ফোন ব্যাগে রেখে, আমার ফোন চেয়েছিল। ফোন দেওয়ার পরে উঠে দাঁড়িয়ে পিছিনে ফিরে হাঁটতে শুরু করেছিলাম সবেমাত্র। কিন্তু মাত্র কয়েক সেকেন্ডের মধ্যেই স্ত্রী চিৎকার করে ওঠেন। তখনই পিছনে ঘুরে স্ত্রীকে আর দেখতে পাইনি। আমি আমার স্ত্রীকে ধাক্কা মারিনি।'


    নৃশংস এই ঘটনার তদন্ত চলছে...

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: