corona virus btn
corona virus btn
Loading

হোয়াইট হাউজের বাইরে প্রতিবাদীর ভিড়, একঘণ্টা মাটির তলার বাঙ্কারে রইলেন‌ ট্রাম্প

হোয়াইট হাউজের বাইরে প্রতিবাদীর ভিড়, একঘণ্টা মাটির তলার বাঙ্কারে রইলেন‌ ট্রাম্প
Protesters calling for an end to police violence walk through downtown. (Image: AP)

যদি ট্রাম্প সুর নরম করতে চান না। প্রতিবাদীদের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে তিনি একের পর এক ট্যুইট করেছেন রবিবার

  • Share this:

#‌ওয়াশিংটন:‌ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু নিয়ে প্রতিদিন মার্কিন কৃষ্ণাঙ্গদের তীব্র প্রতিবাদ চলছে। সেই প্রতিবাদের ঢেউ এসে লেগেছে ওয়াশিংটনে খোদ মার্কিন প্রেসিডেন্টের হোয়াইট হাউজের বাইরেও। সেখানে শুক্রবার রাতে জমায়েত এত ভয়ানক ছিল যে একঘণ্টার জন্য নিরাপত্তার স্বার্থে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে যেতে হল হল মাটির তলার বাঙ্কারে। মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউ ইয়র্ক টাইমস জানাল, প্রায় ১ ঘণ্টা মাটির তলার বাঙ্কারে ছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। কারণ, প্রতিবাদের তীব্রতা। তারপর শনিবার রাত থেকে খবর আসতে থাকে, হোয়াইট হাউজের সামনে জড়ো হয়েছেন হাজার হাজার প্রতিবাদী। তাঁরা বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে টানা প্রতিবাদ করে চলেছেন।

রবিবার রাতে হোয়াইট হাউজের সামনে আগুন লাগার ঘটনা প্রথমে সামনে আসে। রাত ১১ টার পর জড়ো হন সাধারণ মানুষ। হোয়াইট হাউজের কাছেই একাধির উৎস থেকে আগুন চোখে পড়ে। দেখা যায় একটি গাড়িতেও আগুন ধরিয়ে দিয়েছে উত্তেজিত জনতা। সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্টে দেখা গিয়েছে, সাধারণ মানুষ জড়ো হয়েছ্‌ কোথাও গ্রাফিতি আঁকছেন, কোথাও জ্বলছে আতশবাজি। রবিবার রাতে মার্কিন সংবাদমাধ্যম জানিয়েছে, American Federation of Labor and Congress of Industrial Organizations–নামে সংগঠনটির ভবনে আগুন লাগিয়ে দিয়েছে প্রতিবাদীরা।

যদি ট্রাম্প সুর নরম করতে চান না। প্রতিবাদীদের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়ে তিনি একের পর এক ট্যুইট করেছেন রবিবার। তাঁর অভিযোগ, ‘‌যাঁরা কৃষ্ণাঙ্গ জর্জ ফ্লয়েডের মৃত্যু নিয়ে প্রতিবাদ করছেন, তাঁরা নৈরাজ্যবাদী। জাতীয় নিরাপত্তারক্ষীদের এখনই সব ব্যবস্থা নেওয়া উচিত। সারা পৃথিবী আমেরিকাকে দেখে হাসছে না হলে।’‌ এছাড়াও তিনি অভিযোগ করেছেন, প্রতিবাদীরা প্রতিবাদের নামে গাড়ি ভাঙছে, দোকান লুঠ করছে। ট্রাম্পের দাবি বর্ণবৈষম্যের বিরুদ্ধে আওয়াজ তুলতে গিয়ে দেশের প্রগতিশীল বামপন্থী শক্তিগুলি দেশের মধ্যে নৈরাজ্য চালাচ্ছে।

Published by: Uddalak Bhattacharya
First published: June 1, 2020, 9:22 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर