• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • মেয়ের জন্য পুতুল কিনেছিলেন দম্পতি, ভিতর থেকে যা বেরোল! তাতে চোখ কপালে উঠেছে!

মেয়ের জন্য পুতুল কিনেছিলেন দম্পতি, ভিতর থেকে যা বেরোল! তাতে চোখ কপালে উঠেছে!

পুতুলটিকে অল্প চাপ দিলেই আলো জ্বলত ও গান বেজে উঠত। তাই পরিষ্কারের সময়ে ব্যাটারি ও লাইটটি খুলতে যান তাঁরা।

পুতুলটিকে অল্প চাপ দিলেই আলো জ্বলত ও গান বেজে উঠত। তাই পরিষ্কারের সময়ে ব্যাটারি ও লাইটটি খুলতে যান তাঁরা।

পুতুলটিকে অল্প চাপ দিলেই আলো জ্বলত ও গান বেজে উঠত। তাই পরিষ্কারের সময়ে ব্যাটারি ও লাইটটি খুলতে যান তাঁরা।

  • Share this:

#অ্যারিজোনা: মেয়ের জন্য খেলনা কিনতে গিয়েছিলেন আরিজোনার দম্পতি। এদিক-ওদিক বেশ কয়েকটি পুতুল ঘেঁটে শেষমেশ একটি পছন্দ করেন। মেয়ের জন্য কিনেও ফেলেন সেই পুতুল। এমন সময়ে এক ঘটনায় রীতিমতো আঁতকে ওঠেন তাঁরা। ছোট্ট মেয়ের জন্য কেনা পুতুলটির মধ্যে পাওয়া গেল ৫০০০-এর বেশি ফেন্টানিল ড্রাগ ট্যাবলেট। ঘটনায় রীতিমতো অবাক আশেপাশের মানুষজন।

আরও পড়ুন বিদ্যুতের বিল এসেছে ৮০ কোটি টাকা, উচ্চ রক্তচাপ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি বৃদ্ধ!

পুলিশ ও স্থানীয়দের তরফে জানা গিয়েছে, অ্যারিজোনার El Mirage শহরের এক দোকান থেকে মেয়ের জন্য একটি গ্লো ওয়ার্ম টয় (Glo Worm Toy) কিনেছিলেন দম্পতি। তবে মেয়ের হাতে তুলে দেওয়ার আগে পুতুলটি ভাল করে পরিষ্কার করে নিতে চেয়েছিলেন তাঁরা। যে-ই ভাবা, সে-ই কাজ। পুতুলটিকে অল্প চাপ দিলেই আলো জ্বলত ও গান বেজে উঠত। তাই পরিষ্কারের সময়ে ব্যাটারি ও লাইটটি খুলতে যান তাঁরা। এমন সময়ে পুতুলের পিছনের দিকের অংশ খুলতে গিয়ে একটি ছোট্ট ব্যাগ নজরে আসে। ব্যাগটি বের করতেই তার ভিতরে পাঁচ হাজারের বেশি ফেন্টানিল ড্রাগ ট্যাবলেট পাওয়া যায়। তড়িঘড়ি পুলিশে খবর দেন তাঁরা। পরে পুলিশ এসে ওই ড্রাগ বাজেয়াপ্ত করে। ঘটনার ছবি শেয়ার করে স্থানীয় পুলিশ-প্রশাসনের তরফে সচেতন করা হয় সবাইকে। পাশাপাশি এই পদক্ষেপের জন্য দম্পতিকেও সাধুবাদ জানানো হয়।

https://twitter.com/PhoenixPolice/status/1363307201700323329 পুরো ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্য ছড়িয়েছে। নেটিজেনদের কথায়, অল্পের জন্য বেঁচে গিয়েছে ওই ছোট্ট মেয়েটি। ভাগ্য ভাল যে, মেয়ের হাতে খেলনাটি তুলে দেওয়ার আগে, বাবা-মা তা খতিয়ে দেখেছিল। যদি বাচ্চা মেয়েটি ওই ড্রাগ ট্যাবলেট খেয়ে ফেলত, তাহলে বড় বিপদের প্রবল সম্ভাবনা ছিল। মেয়েটির মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারত। https://twitter.com/KI4NGE/status/1363407669441171457 https://twitter.com/denis_mccorkle/status/1363323365239390211 https://twitter.com/VetsUnitedMarch/status/1363496356409733122 https://twitter.com/wendellmom/status/1364390817520111619 https://twitter.com/Sunshineonetwo/status/1364233328887529474

সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল অ্যান্ড প্রিভেনশনের (Center For Disease Control And Prevention) মতে, আমেরিকায় সব চেয়ে ভয়ঙ্কর ও বিপজ্জনক ড্রাগ হিসেবে চিহ্নিত করা হয় ফেন্টানিল (Fentanyl) ট্যাবলেটকে। অধিকাংশ ক্ষেত্রে ক্যানসার-রোগীদের অসহ্য যন্ত্রণা দূর করতে এই ধরনের সিন্থেটিক ড্রাগ নেওয়ার পরামর্শ দেন চিকিৎসকরা। মরফিনের (Morphine) থেকেও ১০০ গুণ বেশি শক্তিশালী এই ড্রাগ। গত কয়েক বছরে এই মারণ ড্রাগে আসক্ত হয়ে পড়েছে আমেরিকার বহু মানুষ। অনেকে আবার চিকিৎসার জন্য প্রথমে এই ট্যাবলেট খেতে শুরু করেন। সুস্থ হয়ে ফের এই ফেন্টানিল ট্যাবলেটেই আসক্ত হয়ে পড়েন।

বিশেষজ্ঞদের মতে, আমেরিকার জনস্বাস্থ্যের বিপর্যয়ের জন্য দায়ি ওপিওয়েড এপিডেমিকে (Opioid Epidemic) অক্সিকন্টিন (OxyContin), ভিকোডিনের (Vicodin) পাশাপাশি ফেন্টানিলও একটি গুরুতর চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছে। জনস্বাস্থ্যের উপরে ভয়ঙ্ক প্রভাব রয়েছে এই মাদকের। ২০১৬ সালে ওপিওয়েড ওভারডোজের জেরে ৪০,০০০-এর বেশি মানুষের মৃত্যু হয়েছিল। এক্ষেত্রে অর্ধেকের বেশি মানুষের মৃত্যুর পিছনে ছিল ফেন্টানিল নামক এই মারণ ড্রাগ!

Published by:Pooja Basu
First published: