খবর পড়ছেন মা, পা ধরে টানছে বাচ্চা, শেষে বাচ্চা কোলে নিয়েই খবর পাঠ করলেন সঞ্চালিকা ! ভাইরাল ভিডিও

খবর পড়ছেন মা, পা ধরে টানছে বাচ্চা, শেষে বাচ্চা কোলে নিয়েই খবর পাঠ করলেন সঞ্চালিকা ! ভাইরাল ভিডিও

photo source twitter

ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই তা ভাইরাল হয়। বহু মানুষ ভিডিওটি লাইক করেন, শেয়ার করেন।

  • Share this:

#ওয়াশিংটন: করোনার জেরে সংক্রমণ রুখতে গত বছর শুরু থেকেই ওয়ার্ক ফ্রম হোমের পথে হেঁটেছে বেশিরভাগ সংস্থা। এতে একদিকে সংক্রমণ বাঁচানো গিয়েছে ঠিকই কিন্তু অন্য দিকে একাধিক সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়েছে চাকরিজীবীদের। কখনও মিটিং চলাকালীন বাচ্চা কেঁদে উঠেছে, তো কখনও ভিডিও কনফারেন্স চলাকালীন মা খাবার নিয়ে পৌঁছে গিয়েছে। আর এই নিয়েই লকডাউন ও তার পরবর্তী পর্যায়ে, এমনকি এখনও পর্যন্ত বিভিন্ন ঘটনা সামনে এসেছে। কিন্তু এই ঘটনা দেখলে আবেগপ্রবণ হবেন আপনিও!

সম্প্রতি আমেরিকার এক সংবাদমাধ্যমের ভিডিও ক্লিপ সামনে এসেছে। যাতে দেখা যাচ্ছে, আবহাওয়ার খবর পড়ছিলেন সঞ্চালিকা। কিন্তু হঠাৎই তাঁর পা ধরে এসে টানতে শুরু করে তাঁর সন্তান। প্রথমে কাজ চালিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলেও পরে শিশুটি পা না ছাড়তে চাইলে তাকে কোলে তুলে বাকি খবর পড়ে নেন তিনি। পরে সংবাদমাধ্যমে সেটি জানিয়েও দেন।

ভিডিওটি পোস্ট করার সঙ্গে সঙ্গেই তা ভাইরাল হয়। বহু মানুষ ভিডিওটি লাইক করেন, শেয়ার করেন। অনেকেই এই ভিডিওটি দেখে আপ্লুত। পোস্টের পর মুহূর্তের মধ্যেই ভিডিওটি ভাইরাল হয়।

স্থানীয় সংবাদমাধ্যম থেকে জানা যায়, ABC7 নিউজ চ্যানেলের ওই সঞ্চালিকার নাম লেসলি লোপেজ। তিনি সংবাদ পাঠ করার সময় এই ঘটনাটি ঘটে। পায়ের নিচ থেকে তাঁকে ডাকতে শুরু করে তাঁর ১০ মাসের সন্তান। তাকে এড়িয়ে না গিয়ে কোলে তুলেই শেষ সংবাদ শেষ করেন তিনি। এবং বলেন, ও হাঁটতে শিখে গিয়েছে, তাই আমি আর ওকে নিয়ন্ত্রণ করতে পারি না।

ফুটেজটি ট্যুইটার (Twitter)-এ ব্রান্ডি হিট নামের একটি অ্যাকাউন্ট থেকে শেয়ার করা হয়। ভিডিওটি ২ হাজার ৫০০ বার রিট্যুইট হয়। ২৮ হাজারেরও বেশি লাইক আসে। ১.২ মিলিয়ন ভিউজ আসে। একজন কমেন্টে লেখেন, খুবই মিষ্টি ভিডিওটি। তবে এটি প্রমাণ করে, কী ভাবে প্যানডেমিকের ফলে বাড়ি আর কাজ একসঙ্গে সামলানো সমস্যার হয়ে গিয়েছে!

আরেকজন আবার লেখেন, ভিডিওটি সত্যিই প্রমাণ করে, মায়েরা কী ভাবে বাচ্চা, সংসার সামলে কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন এবং এটা কতটা চ্যালেঞ্জের। কারণ বাচ্চাদের তো বোঝানো যায় না, কিন্তু কাজও করে যেতে হয়!

Published by:Piya Banerjee
First published: