আন্দোলনরত কৃষকদের সমর্থনে লন্ডনে বিক্ষোভ, গ্রেফতার ৩০ জন

আমেরিকা, নিউইয়র্ক, অকল্যান্ড ছাড়িয়ে রবিবার মধ্যরাতে বিক্ষোভের সুর চড়াও হল লন্ডনে, গ্রেফতার শিখ সংগঠনের কয়েক জন কর্মকর্তা।

আমেরিকা, নিউইয়র্ক, অকল্যান্ড ছাড়িয়ে রবিবার মধ্যরাতে বিক্ষোভের সুর চড়াও হল লন্ডনে, গ্রেফতার শিখ সংগঠনের কয়েক জন কর্মকর্তা।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: নয়া কৃষি বিল বাতিলের দাবিতে দিল্লি সীমান্তে আন্দোলনের আজ ১২ দিন। বিক্ষোভের আগুন শুধু এ দেশেই নয়, ছড়িয়েছে বিদেশেও। আমেরিকা, নিউইয়র্ক, অকল্যান্ড ছাড়িয়ে রবিবার মধ্যরাতে বিক্ষোভের সুর চড়াও হল লন্ডনে, গ্রেফতার শিখ সংগঠনের কয়েক জন কর্মকর্তা।

    এই দিন রবিবার মধ্যরাতে হাজার হাজার প্রবাসী ভারতীয় আন্দোলনরত কৃষকদের পাশে রয়েছেন বলে ধর্না দেয়। বিক্ষোভকারীদের একাংশ ব্রিটিশ রাজধানীর কেন্দ্রস্থল অলডউইচে অবস্থিত ভারতীয় দূতাবাসে একত্রিত হয় এবং দলের বাকি অংশ ট্রাফলগার স্কোয়ার এলাকায় মিছিল করেন।

    পুলিশের একজন আধিকারিকের কথায়, ‘আমরা বিক্ষোভকারীদের সতর্ক বার্তা দিয়েছিলাম। তাঁরা যেন করোনাকালে কোনও বিক্ষোভ না চালায়। কোভিড-১৯ বিধি অমান্য করায় পরিস্থিতি সামাল দিতে না পেরে ৩০ জনকে গ্রেপ্তার করি আমরা ’।

    এই বিক্ষোভের স্লোগান ছিল ‘জাস্টিস ফর ফার্মার্স’ অর্থাৎ আন্দোলনরত কৃষকদের বিচার চাই। মোদি সরকারকে কৃষকদের দাবি মানতেই হবে, এই ধরনের প্ল্যাকার্ড নিয়ে রাস্তায় নামে জনগণ। তাঁদের অধিকাংশ ছিল ব্রিটিশ শিখ সম্প্রদায়। অনেকে গাড়ি অবরোধ করার চেষ্টা করে। সিসিটিভি ফুটেজে দেখা গিয়েছে, বিক্ষোভকারীদের মধ্যে সামান্য সামাজিক দূরত্ব ছিল এবং অনেকেই ফেস মাস্ক পরেছিলেন।

    ব্রিটিশ সরকারের এক মুখপাত্র জানিয়েছেন, ‘এই ঘটনাটি থেকে অনুমান করা হচ্ছে এই সমাবেশটি ভারত বিরোধী বিচ্ছিন্নতাবাদীদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল। সেটির সুযোগ নিয়েই তাঁরা এই বিক্ষোভের আয়োজন করে। নয়া কৃষি বিল সংশোধন নিয়ে যে বিক্ষোভ চলছে তা একেবারেই ভারতের অভ্যন্তরীণ বিষয়। সেই নিয়ে আমাদের কোনও বক্তব্য নেই।’

    ব্রিটিশ শিখ শ্রম সংসদ, তনমনজিৎ সিং ঢেসি এই বিক্ষোভের আহ্বান জানায়। তিনি ব্রিটিশ সরকারের কাছে চিঠি লেখেন, তিনি ভারতের বাইরে থাকলেও তাঁর কৃষি ভাইদের পাশে তিনি রয়েছেন। যত দিন সুরাহা না মিলছে তারাও প্রতিবাদ করে যাবে।

    Somosree Das

    Published by:Elina Datta
    First published: