বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিশ্বে প্রথম ছাপা বড়দিন আর নতুন বছরের গ্রিটিংস কার্ড কিনতে চান? তার আগে জেনে নিন কেন এখনও পড়ে এই কার্ড

বিশ্বে প্রথম ছাপা বড়দিন আর নতুন বছরের গ্রিটিংস কার্ড কিনতে চান? তার আগে জেনে নিন কেন এখনও পড়ে এই কার্ড

কার্ডে লেখাও আছে সেটাই- A Merry Christmas and a Happy New Year to You!

  • Share this:

#লন্ডন: গ্রিটিংস কার্ড (Greetings Card) বিনিময়ের যুগ একেবারেই চলে গিয়েছে বললে খুব একটা ভুল বলা হয় না। নানা বাণিজ্যিক সংস্থা বছর কুড়ি আগেও যেমন ব্যাপক হারে গ্রিটিংস কার্ড ছাপত, এখন সে সবের পুরোটাই স্মৃতি! প্রযুক্তির যুগে যেখানে নিখরচায় শুভেচ্ছা জানানো যাচ্ছে, সেখানে কে কার্ডের জন্য বিনিয়োগ করবে?

তবে এই যে কার্ডটি নতুন করে বিক্রির জন্য বাজারে এল, তার কথা বিচার করতে হবে একেবারে অন্য জায়গা থেকে। খবর মোতাবেকে, এই কার্ডটি বড়দিন (Christmas) আর নতুন বছরের (New Year) শুভেচ্ছা জানানোর দৌড়ে ছাপা হয়েছিল প্রথম! সময়টা ১৮৪৩ সাল, মানসিকতা আর রাজনৈতিক শাসনকালের ইতিহাসের নিরিখে একেবারেই ভিক্টোরিয় যুগ (Victorian Era)!

খবর বলছে যে মার্ভিন গেটম্যান নামের বস্টনের এক বইবিক্রেতা, যাঁর সম্ভারে আছে বিশ্বের বহু দুষ্প্রাপ্য পাণ্ডুলিপি আর ছবি, তিনিই এই প্রথম ছাপা বড়দিন আর নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানানোর বাণিজ্যিক কার্ডটিকে বিক্রির জন্য সামনে নিয়ে এসেছেন। হাতে আঁকা, লিথোগ্রাফ পদ্ধতিতে ছাপা এই কার্ডে এক পরিবারকে টোস্ট করতে দেখা যাচ্ছে। অর্থাৎ পাশ্চাত্যের রীতি মেনে তাঁরা শুভেচ্ছা জানাচ্ছেন। কার্ডে লেখাও আছে সেটাই- A Merry Christmas and a Happy New Year to You!

গেটম্যান জানিয়েছেন যে এই কার্ডটির ছবি এঁকেছিলেন সেই সময়ের বিখ্যাত শিল্পী জন ক্যালকট হর্সলে। গেটম্যানের অনুমান- এই কার্ড তৈরির চিন্তাভাবনা এবং কেমন ছবি থাকবে তাতে, তার নেপথ্যে কাজ করেছিল স্যার হেনরি কোলের পরামর্শ। ব্রিটিশ এই সিভিল সার্ভেন্টের শিল্পের নানা দিকে আগ্রহ ছিল, তিনিই লন্ডনে (London) স্থাপন করেছিলেন ভিক্টোরিয়া অ্যান্ড অ্যালবার্ট মিউজিয়াম (Victoria & Albert Museum)।

কিন্তু সময়ের তুলনায় একটু বাড়াবাড়ি করে ফেলেছিলেন হর্সলে আর কোল। সেই সময়ে পাশ্চাত্য সমাজের অনেকেই মদ্যপানের রীতিকে সমর্থন করেন না। এ দিকে কার্ডের ছবিতে পরিবারকে দেখা যাচ্ছে রেড ওয়াইনের গেলাস হাতে। শুধু তা-ই নয়, পরিবারের এক বাচ্চা আবার এক বড়র অন্যমনস্কতার সুযোগে তার গেলাসে টুক করে চুমুকও দিচ্ছে!

সব মিলিয়ে, ভিক্টোরিয় যুগের ঘোরতর রক্ষণশীল সমাজ এই কার্ড নিয়ে প্রবল প্রতিবাদ জানায়। সেই সময়ে ১০০০ কপি ছাপা হলেও অনেকগুলো তাই বিক্রি হয়নি। তারই একটা এসেছে গেটম্যানের হাতে যা তিনি এখন বিক্রি করতে চাইছেন! তাঁর বক্তব্য- যে কার্ডটি তাঁর সংগ্রহে এসেছে, সেটা সম্ভবত স্যাম্পল কপি; হয় তো ওটাই দেখিয়ে কার্ড বিক্রি করতেন ফেরিওয়ালারা!

Published by: Ananya Chakraborty
First published: December 7, 2020, 11:13 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर