'পয়গম্বর'-এর কার্টুন এঁকে ফের চাকরি খোয়ালেন শিক্ষক, ছেলে বাঁচবে তো! চিন্তা বৃদ্ধ বাবার

'পয়গম্বর'-এর কার্টুন এঁকে ফের চাকরি খোয়ালেন শিক্ষক, ছেলে বাঁচবে তো! চিন্তা বৃদ্ধ বাবার

স্কুলের তরফে শিক্ষকের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।

স্কুলের তরফে শিক্ষকের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।

  • Share this:

    #লন্ডন:

    ফ্রান্সের প্যারিসে গত বছর একজন ইতিহাসের শিক্ষক ক্লাসে পয়গম্বর মহম্মদের কার্টুন দেখিয়েছিলেন বাচ্চাদের। স্যামুয়েল পেটি নামের সেই শিক্ষকের মাথা কেটে নিয়েছিল কট্টরপন্থীরা। এবার ব্রিটেনের এক শিক্ষকের পরিণতি নিয়েও চিন্তিত তাঁর বৃদ্ধ বাবা। তিনিও আশঙ্কা করছেন, তাঁর ছেলেকে মুসলিম কট্টরপন্থীরা মেরে ফেলবে না তো! ধর্মশিক্ষার ক্লাসে পয়গম্বর মহম্মদের কার্টুন দেখিয়েছিলেন ব্রিটেনের ওই শিক্ষক। তার পরেই সেই শিক্ষকের প্রতি ক্ষোভ উগরে দেয় স্থানীয় মুসলিম সম্প্রদায়ের মানুষ। এমনকী স্কুলের বাইরে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন তাঁরা। স্কুল কর্তৃপক্ষ ওই শিক্ষককে চাকরি থেকে বরখাস্ত করেছে। যদিও স্কুলের তরফে শিক্ষকের পরিচয় গোপন রাখা হয়েছে।

    ওই স্কুলের তরফে এমন ঘটনার জন্য মুসলিম সম্প্রদায়ের কাছে ক্ষমা চাওয়া হয়েছে। ভবিষ্যতে কখনও এমন ঘটনা ঘটবে না বলেও স্কুল কর্তৃপক্ষকে লিখিতভাবে দিতে হয়েছে। তবুও যেন ভয় কাটছে না ওই শিক্ষকের পরিবারের। ওই শিক্ষকের বাবা ভয় পাচ্ছেন, তাঁর ছেলে ও পরিবারকে কট্টরপন্থীরা মেরে ফেলতে পারে। এমনিতেই চাকরি হারানোর যন্ত্রণা। তার ওপর প্রাণহানির আতঙ্ক। সব মিলিয়ে ওই শিক্ষক ও তাঁর পরিবার এখন মানসিকভাবে বিপর্যস্ত। শিক্ষকের বাবা বলেছেন, ফ্রান্সের শিক্ষকের সঙ্গে যা হয়েছিল সেটা আমার ছেলের সঙ্গেও হতে পারে। এমনিতেই চাকরি হারিয়ে মানসিকভাবে ভেঙে পেরেছে আমার ছেলে। সারাদিন কান্নাকাটি করছে। ওকে আমরা কোনোভাবেই বোঝাতে পারছি না। আসলে ভীষণ ভয় পেয়ে গিয়েছিল ও।

    সেই শিক্ষকের বাবা এমন পরিস্থিতির জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষকে দায়ী করেছেন। তাঁর বক্তব্য, জেনে-বুঝে তাঁর ছেলেকে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিয়েছে স্কুল কর্তৃপক্ষ। তাঁর ছেলে যে পাঠ পড়িয়েছিল সেখানে পয়গম্বর মহম্মদের ছবি ছিল। সেটা পড়ানোর জন্য স্কুল কর্তৃপক্ষ নির্দেশ দিয়েছিল। অন্য শিক্ষকরাও দাবি করেছেন, স্কুলের নির্দেশ মেনেই ওই শিক্ষক পয়গম্বর মহম্মদের কার্টুন ক্লাসে দেখিয়েছিলেন। তিনি আরও দাবি করেছেন, বিক্ষোভকারীদের সামনে স্কুল কর্তৃপক্ষ একবারও নিজেদের দোষ স্বীকার করেনি। পয়গম্বর- এর ছবি দেখানো তাঁর ছেলের ব্যক্তিগত সিদ্ধান্ত ছিল না। ওটা স্কুলের নির্দেশ ছিল বলেও উল্লেখ করেছেন সেই বৃদ্ধ বাবা।

    Published by:Suman Majumder
    First published:
    0

    লেটেস্ট খবর