• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • TALIBAN TOP LEADER SHER MOHAMMAD ABBAS STANKIZJAI WANTS FRIENDLY RELATIONSHIP WITH INDIA DMG

Taliban Message to India: ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বই চায় তালিবানরা, দাবি আফগানিস্তানের হবু বিদেশমন্ত্রীর

তালিবান শীর্ষ নেতা শের মহম্মদ আব্বাস স্টানিকজাই৷ Photo-AP

স্টানিকজাই আরও দাবি করেছেন, যে আফগান এবং শিখরা এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে রয়েছেন তাঁদের আতঙ্কিত হয়ে দেশ ছাড়ার কোনও প্রয়োজন নেই (Taliban Message to India)৷

  • Share this:

    #দোহা: তিনি ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমি (আইএমএ)-এর প্রাক্তনী৷ তালিবান শাসনে আফগানিস্তানের পরবর্তী বিদেশ মন্ত্রী হিসেবেও উঠে আসছে তাঁর নাম৷ তালিবানদের অন্যতম শীর্ষ নেতা শের মহম্মদ আব্বাস স্টানিকজাই দোহা থেকে সিএনএন নিউজ ১৮-কে দেওয়া এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকারে দাবি করলেন, ভারতের বিরুদ্ধে পাকিস্তানকে কোনও রকম সহযোগিতা করবেন না তাঁরা৷ শুধু তাই নয়, স্টানিকজাইয়ের দাবি, ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক গড়তেই আগ্রহী তালিবানরা৷

    স্টানিকজাই দাবি করেছেন, প্রতিবেশী সব দেশ সহ গোটা বিশ্বের সঙ্গে সুসম্পর্ক রক্ষা করে চলাই তালিবান সরকারের বিদেশনীতিতে অগ্রাধিকার পাবে৷ এমন কি, বাহিনী প্রত্যাহার করে নেওয়ার পর আমেরিকা এবং ন্যাটো-র সদস্য দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক তাঁদের সুসম্পর্ক রয়েছে দাবি করেছেন তালিবানদের অন্যতম শীর্ষ নেতা৷ তিনি বলেন, 'আমার মনে ওদের ফিরে এসে আফগানিস্তানের পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় অংশ নেওয়া উচিত৷ ভারতের ক্ষেত্রেও একই নীতি প্রযোজ্য৷ আমরা ভারতের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ সংস্কৃতি এবং অর্থনৈতিক সম্পর্ক গড়ে তোলায় আগ্রহী৷ শুধু ভারত নয়, তাজিকিস্তান, ইরান, পাকিস্তান সবার সঙ্গে ইতিবাচক সম্পর্ক গড়ে তুলব আমরা৷'

    স্টানিকজাই দাবি করেছেন, তালিবানরা পাকিস্তানের জঙ্গি সংগঠনগুলিকে ভারতের বিরুদ্ধে মদত দেবে বলে ভারতীয় সংবাদমাধ্যমে যে আশঙ্কা করা হচ্ছে তা অমূলক৷ তালিবান শীর্ষ নেতার দাবি, 'আমরা কখনওই এ রকম কিছু বলিনি বা এমন কোনও ইঙ্গিতও করা হয়নি আমাদের তরফে৷'

    স্টানিকজাই এক ধাপ এগিয়ে বলেছেন, 'অতীতেও ভারত সহ কোনও প্রতিবেশী দেশেরই আফগানিস্তানের থেকে কোনও বিপদ ছিল না৷ ভবিষ্যতেও তা হবে না৷ ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে ভৌগলিক অবস্থানগত কিছু বিবাদ রয়েছে, তা নিয়ে কোনও সন্দেহ নেই৷ কিন্তু আমরা আশা করি নিজেদের বিবাদের মধ্যে তারা আফগানিস্তানকে টানবে না৷ ভারত এবং পাকিস্তানের মধ্যে দীর্ঘ সীমান্ত রয়েছে৷ তারা নিজেদের মধ্যে লড়াই করতেই পারে৷ তবে আমরা আফগানিস্তানের মাটিকে কোনও ভাবেই দু'টি দেশের মধ্যে কারও বিরুদ্ধে ব্যবহার করতে দেব না৷' তালিবানরা শাসনে ভারত বিরোধী লস্কর-ই-তৈবা, জৈশ-ই-মহম্মদের মতো জঙ্গি সংগঠনগুলি আফগানিস্তানে নিজেদের নতুন ঘাঁটি বানাতে পারে আশঙ্কা ছড়িয়েছে৷ তালিবান নেতা সেই আশঙ্কা অমূলক বলেই নিজেদের ভাবমূর্তি নিয়ে ইতিবাচক বার্তা দেওয়ার চেষ্টা করলেন৷ তাঁর দাবি, 'এটা আমাদের দায়িত্ব৷ আফগানিস্তানের মাটিকে আমরা পৃথিবীর কোনও দেশের বিরুদ্ধেই ব্যবহার করতে দেব না৷'

    আইএমএ থেকে নিজের প্রশিক্ষণের কথাও উল্লেখ করেছেন স্টানিকজাই৷ স্মৃতিচারণা করে তিনি বলেন, 'খুব অল্প বয়সে রাশিয়ানরা আফগানিস্তানে আসার আগে আমি আইএমএ-তে প্রশিক্ষণ নিয়েছিলাম৷ ওখান থেকেই আমি স্নাতক হই৷' তবে এখন ভারতে আর কারও সঙ্গে তাঁর যোগাযোগ নেই বলে দাবি করেছেন স্টানিকজাই৷

    আফগানিস্তানের সম্ভাব্য বিদেশমন্ত্রী অবশ্য দাবি করেছেন, কাবুল বিমানবন্দরের বিস্ফোরণের সঙ্গে হাক্কানি নেটওয়ার্কের কোনও যোগ নেই৷ তাঁর দাবি, ইরাকের আইসিস এবং লেভান্ত জঙ্গি গোষ্ঠী মিলিয়ে এই বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে৷

    স্টানিকজাই আরও দাবি করেছেন, যে আফগান এবং শিখরা এই মুহূর্তে আফগানিস্তানে রয়েছেন তাঁদের আতঙ্কিত হয়ে দেশ ছাড়ার কোনও প্রয়োজন নেই৷ তালিবান শীর্ষ নেতার আশ্বাস, 'আফগানিস্তান তাঁদের নিজস্ব জায়গা৷ সবাই এখানে শান্তিপূর্ণ ভাবে বসবাস করতে পারবে৷ কেউ এঁদের কোনও ক্ষতি করবে না৷ তাঁরা যেমন এতদিন আফগানিস্তানে ছিলেন, এখনও সেভাবেই বসবাস করতে পারেন৷ আমরা আশা করি যে হিন্দু এবং শিখরা গত কুড়ি বছরে ভারতে চলে গিয়েছেন, তাঁরা আবার ফিরে আসবেন৷' স্টানিকজাই আশবাদী, নতুন সরকার গঠন হলে আমেরিকা সহ সব দেশই তাদের সাহায্য করবে৷ ভারত আফগানিস্তানে যে উন্নয়নমূল কাজ করেছে, সেগুলিকে সম্পদ বলেও ব্যাখ্যা করেছেন স্টানিকজাই৷ তাঁর আশা, আফগানিস্তানে অসম্পূর্ণ প্রকল্পের কাজগুলি শেষ করবে ভারত৷ আফগানিস্তানে কাজ করতে গিয়ে কারও নিরাপত্তা প্রয়োজন হলে সেটাও দেওয়া হবে বলে আশ্বস্ত করেছেন তালিবান শীর্ষ নেতা৷

    Manoj Gupta

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: