পাকিস্তানে বন্ধ করে দেওয়া হল সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকসেস, উগ্রপন্থা আটকাতে চরম পদক্ষেপ সরকারের!

পাকিস্তানে বন্ধ করে দেওয়া হল সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকসেস, উগ্রপন্থা আটকাতে চরম পদক্ষেপ সরকারের!

পাকিস্তানে বন্ধ করে দেওয়া হল সোশ্যাল মিডিয়া অ্যাকসেস, উগ্রপন্থা আটকাতে চরম পদক্ষেপ সরকারের!

পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন অথরিটির তরফে জানিয়ে দেওয়া হল যে যাবতীয় সোশ্যাল মিডিয়া, Facebook, WhatsApp, Twitter, TikTok, YouTube-এর অ্যাকসেস বন্ধ থাকবে দেশে।

  • Share this:

#করাচি: মৌলবাদী গোষ্ঠী তেহরিক-ই-লাব্বাইকের (Tehreek-e-Labbaik) প্রতিবাদ বিক্ষোভে সোমবার থেকেই কার্যত বিপর্যস্ত পাকিস্তান। এবার সেই উগ্রপন্থা দমনের জন্য এক চরম সিদ্ধান্ত নেওয়া হল সরকারের তরফে। শুক্রবার নামাজের পর পাকিস্তান টেলিকমিউনিকেশন অথরিটির তরফে জানিয়ে দেওয়া হল যে যাবতীয় সোশ্যাল মিডিয়া, Facebook, WhatsApp, Twitter, TikTok, YouTube-এর অ্যাকসেস বন্ধ থাকবে দেশে।

তবে শুধু সোশ্যাল মিডিয়ার অ্যাকসেস বন্ধ করে দিয়েই ক্ষান্ত থাকেনি পাকিস্তান সরকার। একই সঙ্গে দেশে নিষিদ্ধ ঘোষণা করা হয়েছে মৌলবাদী গোষ্ঠী তেহরিক-ই-লাব্বাইককে। অর্থাৎ এখন থেকে এই গোষ্ঠীর যাবতীয় কার্যকলাপ আইনবিরুদ্ধ এবং সমাজবিরুদ্ধ বলে গণ্য করা হবে। যাঁরা এই গোষ্ঠীর সদস্য, তাঁদের কার্যকলাপের উপরেও নজর থাকবে সরকারের। পাশাপাশি, দেশের সব সংবাদমাধ্যমগুলোকে তেহরিক-ই-লাব্বাইকের কার্যকলাপ নিয়ে খবর পরিবেশন করতেও সরকারের তরফ থেকে বারণ করে দেওয়া হয়েছে।

পাকিস্তান সরকারের দাবি, ক্রমশ ধ্বংসাত্মক হয়ে উঠছে এই মৌলবাদী গোষ্ঠীর নীতি। তারা সামাজিক শান্তির বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করছে। এই কাজে জনতাকে প্রোরচণা দেওয়ার জন্য তাদের প্রধান হাতিয়ার সোশ্যাল মিডিয়াগুলো। এর মধ্যেই এই গোষ্ঠী নিজস্ব একটা YouTube চ্যানেল তৈরি করেছে এবং সেখানে নিজেদের কার্যকলাপের নানা ভিডিও আপলোড করেছে জনতাকে প্রভাবিত করার জন্য। পাকিস্তান সরকার এই ভিডিওগুলো প্রত্যাহারের নির্দেশ তো দিয়েছেই, একই সঙ্গে দেশ জুড়ে এবার বন্ধ করে দিয়েছে সোশ্যাল মিডিয়ার ব্যবহার। যাতে এই মাধ্যমে হিংসা ছড়িয়ে দেওয়ার কাজটি আর না করতে পারে তেহরিক-ই-লাব্বাইক!

এর আগেও অবশ্য দেশের বিদ্রোহ দমন করতে ফোন এবং ইন্টারনেট পরিষেবা বন্ধ করে দেওয়ার পদক্ষেপ করতে দেখা গিয়েছে পাকিস্তান সরকারকে। তবে এবার যাবতীয় সরকারি নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে কেবল সোশ্যাল মিডিয়ার উপরে। এই প্রসঙ্গে বলে রাখা ভালো, ২৪ ঘণ্টার জন্য এই পরিষেবা কিন্তু বন্ধ করে দেওয়া হচ্ছে না। কেবলমাত্র সকাল ১১টা থেকে বিকেল ৩টে পর্যন্ত দেশে যাতে কেউ সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহার করতে না পারেন, সেই লক্ষ্যে পদক্ষেপ করেছে পাকিস্তান সরকার।

সোমবার থেকেই ফরাসি দূতাবাসের প্রধানকে নির্বাসনের দাবিতে সরব হয়েছে তেহরিক-ই-লাব্বাইক। ফ্রান্সের একটি পত্রিকায় হজরত মহম্মদের একটি ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশিত হওয়ায় কট্টরপন্থী গোষ্ঠী এই দাবিতে দেশের নানা জায়গায় বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করে। সরকার দলীয় প্রধান সাদ হুসেইন রিজভিকে (Saad Hussain Rizvi) গ্রেফতার করার পর থেকেই পরিস্থিতি চরমে পৌঁছেছে বলে জানা গিয়েছে।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: