জোড়া জঙ্গি হামলায় রক্তাত্ত স্পেন, পাল্টা আক্রমণে নিহত ৫ জঙ্গি

বার্সেলোনায় জঙ্গি হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে স্পেনের ক্যামব্রিলস টাউনে দ্বিতীয় হামলা চালায় জঙ্গিরা ৷

বার্সেলোনায় জঙ্গি হামলার কয়েক ঘণ্টার মধ্যে স্পেনের ক্যামব্রিলস টাউনে দ্বিতীয় হামলা চালায় জঙ্গিরা ৷

  • Share this:

    #বার্সেলোনা: প্যারিস, লন্ডন, স্টকহোম, নিসের পর এবার ধারাবাহিক সন্ত্রাসে রক্তাক্ত স্পেন। বৃহস্পতিবার বিকেলে বার্সেলোনা শহরের ব্যস্ত রাস্তায় তেরো জনকে পিষে মারে একটি ভ্যান। তার আট ঘণ্টার মধ্যে বার্সেলোনার কাছে ক্যামব্রিলসেও গাড়ি নিয়ে হামলা চালায় জঙ্গিরা। তাতে গুরুতর জখম হন সাত জন। পুলিশ পাঁচ হামলাকারীকে গুলি করে খতম করে। হামলার দায় স্বীকার করেছে ইসলামিক স্টেট। তিন জনকে আটক করা হয়েছে।

    স্পেনের বার্সেলোনার ব্যস্ত রাস্তা। গ্রীষ্মের মরশুমে থিকথিকে ভিড়। বৃহস্পতিবার বিকেলে সেই ভিড়ের ওপর দিয়েই গাড়ি চালিয়ে দিল এক জঙ্গি। ভিড়ঠাসা ওই রাস্তায় গাড়ির চাকায় মুহূর্তেই পিষে মৃত্যু হয় বেশ কয়েকজনের। আহত অনেকে। প্যারিস, লন্ডন, স্টকহোম, নিসে ঠিক এমন ভাবেই হামলা চালানো হয়েছিল।

    প্রত্যক্ষদর্শীদের মতে, এদিন একজন ব্যক্তিই হামলা চালায়। কাজ সেরে গাড়ি ফেলে সে উধাও হয়ে যায়। হতাহতদের মধ্যে, ফ্রান্স, হংকং, তাইওয়ান, ফিলিপিন্স, গ্রিস, জার্মান, পাকিস্তান-সহ পঁচিশটি দেশের নাগরিক রয়েছেন। পর্যটনের মরশুমে এই মুহূর্তে স্পেনে ভিড় করেছেন বহু দেশের মানুষ। লা রামব্লার ঘটনায় দ্রিস আউবাকির নামে এক মরক্কোর বাসিন্দাকে আটক করা হয়েছে। দ্রিসের পরিচয় দিয়েই হামলায় ব্যবহৃত গাড়িটি ভাড়া করা হয়েছিল। যদিও দ্রিস আউবাকিরের দাবি, তার পরিচয়পত্র চুরি করে কেউ এ কাজ করেছে। আরও দুই সন্দেহভাজনকেও আটক করা হয়েছে।

    বৃহস্পতিবারই বার্সেলোনার শহরতলি এলাকা সান্ত জাস্ত দেসভার্নে একটি সন্দেহজনক গাড়িকে আটকায় পুলিশ। গাড়ির ভিতরে এক ব্যক্তির মৃতদেহ মিলেছে। লা রামব্লার জঙ্গি তাণ্ডবের সঙ্গে এই ঘটনার কোনও যোগসূত্র আছে কি না, তা তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। এই হামলার ঘণ্টা খানেকের মধ্যেই আক্রান্ত হয় বার্সেলোনা থেকে একশো কুড়ি কিলোমিটার দূরের সৈকতশহর ক্যামব্রিলস।

    ক্যামব্রিলসেও ভিড়ের মধ্যে দিয়ে গাড়ি চালিয়ে দেয় জঙ্গিরা। তাতে এক পুলিস অফিসার-সহ কয়েকজন গুরুতর জখম হন। হামলাকারীরা অবশ্য এক্ষেত্রে পুলিশের হাত থেকে পালাতে পারেনি। গুলিতে পাঁচ জঙ্গির মৃত্যু হয়েছে। হামলার দায় স্বীকার করেছে আইএসআইএস। পুলিশের ধারণা বহু আগে থেকেই এই হামলার পরিকল্পনা হয়। তদন্তে নেমে একাধিক সূত্রও মিলেছে।

    তদন্তে কী সূত্র? - গত বুধবার আলকানার শহরের একটি বা়ডিতে বিস্ফোরণ ঘটে - পুলিশের মতে, ওই বাড়িতে বিস্ফোরক তৈরি করছিল জঙ্গিরা - বৃহস্পতিবার, বার্সেলোনার কাছেই ভিচ এলাকায় একটি পরিত্যক্ত গাড়ি পায় পুলিশ - মনে করা হচ্ছে, ওই গাড়ি ব্যবহার করেছে জঙ্গিরাই - পরে তারা গাড়ি বদলে ফেলে - পুলিশের ধারণা, ৮ জনের একটি দল হামলা চালানোর পরিকল্পনা করে

    স্পেনে জঙ্গি হামলার ঘটনা তেমন উল্লেখযোগ্য ভাবে হয়নি। কিন্তু, বৃহস্পতিবারের ঘটনা বদলে দিল ইতিহাস। ভূমধ্যসাগরের তীরবর্তী এই দেশের দিকেও এখন নজর ইসলামিক স্টেটের।

    First published: