corona virus btn
corona virus btn
Loading

রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিনে মৃত্যু হয়েছে পুতিনের দ্বিতীয় মেয়ের ? জেনে নিন আসল সত্যিটা

রাশিয়ার করোনা ভ্যাকসিনে মৃত্যু হয়েছে পুতিনের দ্বিতীয় মেয়ের ? জেনে নিন আসল সত্যিটা

সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবানলের মত ছড়িয়ে পড়ে খবর, রাশিয়ার করোনা প্রতিষেধক নেওয়ার পর মৃত্যু হয়েছে পুতিনের মেয়ে ইয়েক্যাতেরিনা-র। কিন্তু খবরটা কি সত্যি?

  • Share this:

#রাশিয়া: গত ১১ অগাস্ট করোনা ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়ে বাজিমাত করে রাশিয়া! হইচই পড়ে যায় রুশ প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের ঘোষণায়। তিনি জানান, তাঁর স্বাস্থ্যমন্ত্রক এই ভ্যাকসিনকে অনুমোদন দিয়েছে। অনুমোদিত ভ্যাকসিনটি প্রথম প্রয়োগ করা হয়েছে রুশ প্রেসিডেন্টের মেয়ের দেহেই। এরপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় দাবানলের মত ছড়িয়ে পড়ে খবর, রাশিয়ার করোনা প্রতিষেধক নেওয়ার পর মৃত্যু হয়েছে পুতিনের মেয়ে ইয়েক্যাতেরিনা-র। কিন্তু খবরটা কি সত্যি?

বিশ্বের প্রথম করোনা প্রতিষেধক স্পুটনিক v আবিষ্কার করে সারা বিশ্বে তাক লাগিয়ে দিয়েছে রাশিয়া। প্রতিষেধকের কার্যকারিতা বোঝাতে প্রথম নিজের মেয়ের শরীরেই প্রতিষেধক প্রয়োগ করিয়েছিলেন রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট পুতিন। তারপরই সোশ্যাল মিডিয়ায় খবর ছড়িয়ে পড়ে, ভ্যাকসিনের দ্বিতীয় ডোজ নেওয়ার পরই মৃত্যু হয়েছে পুতিনের দ্বিতীয় মেয়ের। কিন্তু খবরটিকে সম্পূর্ণ ভুল বলে উড়িয়ে দিয়েছে রাশিয়া সরকার। একটা ছবিও ছড়িয়ে পড়ে নেট দুনিয়ায়, যেখানে দেখা যায় একটি মেয়েকে প্রতিষেধক দেওয়া হচ্ছে। সেখানে মেয়েটিকে পুতিনের মেয়ে হিসেবে দাবি করা হলেও পরে জানা সেটি ভুয়ো ছবি।

Toronto Today নামে একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়, প্রতিষেধকের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়ায় প্রাণ হারিয়েছেন পুতিন কন্যা। প্রতিবেদনে লেখা হয়, দ্বিতীয়বার ভ্যাকসিনের ডোজ নেওয়ার পরই নাকি তুমুল জ্বর আসে পুতিন কন্যার, সঙ্গে শুরু হয় কাঁপুনি, খিঁচ ধরা। সোশ্যাল মিডিয়ায় শোরগোল পড়ে যায় এই খবরে, তবে এই খবর সম্পূর্ণ ভুয়ো। পুতিনের মেয়ের মৃত্যুর খবর যে ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছিল, সেটি একটি জ্যোতিষ বিষয়ক ওয়েব সাইট। এমনকী সেখানে এ-ও লেখা রয়েছে বিষয়টি সত্যি হতে পারে আবার নাও হতে পারে।

পুতিন জানিয়েছিলেন প্রতিষেধকের কার্যকারিতা বোঝাতে তা প্রথম দেওয়া হবে নিজের মেয়েকেই। কিন্তু তিনি জানাননি কোন মেয়ে। ১১ অগাস্ট নিজের সন্তানের উপর ভ্যাকসিনের প্রভাব তুলে ধরতে তিনি সাংবাদিক সম্মেলনে জানান, ''প্রতিষেধকের প্রথম শট-এর পর আমার মেয়ের শরীরের তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি , পরের দিনই তাপমাত্রা কমে ৩৭ ডিগ্রি হয়ে যায়। প্রতিষেধকের দ্বিতীয় শটের পর তাপমাত্রা সামান্য বেড়েছিল কিন্তু তারপরই ফের স্বাভাবিক হয়ে যায়। এখন সম্পূর্ণ সুস্থ।'' রুশ এম্বাসির প্রেস সেক্রেটারি নাতালিয়া লিনোভিটস্কায়া জানান, '' দয়া করে ভুয়ো খবর পড়বেন না।''

Published by: Rukmini Mazumder
First published: August 23, 2020, 1:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर