• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • বিস্ময়ের জন্ম নাসার ক্য়ামেরায়, এর আগে পৃথিবীর এমন ছবি কখনও তোলা হয়নি

বিস্ময়ের জন্ম নাসার ক্য়ামেরায়, এর আগে পৃথিবীর এমন ছবি কখনও তোলা হয়নি

আপনিও তো দেখছেন ছবিটা- বিশ্বাস হচ্ছে যে এ ভূখণ্ডের ছবি?

আপনিও তো দেখছেন ছবিটা- বিশ্বাস হচ্ছে যে এ ভূখণ্ডের ছবি?

আপনিও তো দেখছেন ছবিটা- বিশ্বাস হচ্ছে যে এ ভূখণ্ডের ছবি?

  • Share this:

আপাতদৃষ্টিতে এক ঝলক দেখে মনে হবে- এ বুঝি নীললোহিত আকাশের ছবি। সূর্যোদয় বা সূর্যাস্তের সময়ে যখন আকাশের নীলে এসে পড়ে উদিত বা অস্তমিত লাল আলো, তখন দেখা যায় মেঘের এমন অপূর্ব শোভা! এও মনে হবে ছিন্ন ছিন্ন প্রেক্ষাপট থেকে- ঠিক যেন শরতের আকাশের ছবি!

এই সব মনে হওয়ার মধ্যে কেবল শরতের বিষয়টুকুই ঠিক। ন্যাশনাল এয়ারোনটিকস অ্যান্ড স্পেস অ্যাডমিনিস্ট্রেশন ওরফে নাসা-র তরফে সম্প্রতি সংস্থার সোশ্যাল মিডিয়া হ্যান্ডেলে যে ছবিটি শেয়ার করে নেওয়া হয়েছে, তা এই ইঙ্গিতই দেয়।এই প্রসঙ্গে না বললেই নয়, শরৎ ঋতু পশ্চিম গোলার্ধের দেশগুলোয় পরিচিত Fall নামে। এই সময় থেকেই পাশ্চাত্যের দেশগুলোয় গাছের পাতা ঝরে যেতে থাকে, তার লালচে রঙে মেতে ওঠে গাছের চূড়া থেকে পথের কোণ! সেই রঙের সঙ্গে আর এই Fall সিজনে যে হ্যালোউইন উৎসব চলে, তার প্রধান আকর্ষণ হলুদরঙা ভুতুড়ে কুমড়োর সঙ্গে সাযুজ্য রেখে বিশেষ এক ধরনের কফির পসরা সাজিয়ে নিয়ে বসে কাফেগুলো। তাকে বলা হয় পাম্পকিন স্পাইস ল্যাতে। ঈষৎ গাঢ় হলুদরঙা কফির উপরে সাদা ক্রিম, তার উপরে ছড়ানো নাটমেগ আর দারচিনির গুঁড়ো- সব মিলিয়ে তৈরি হয় পশ্চিম গোলার্ধের এ শারদীয় পানীয়!

নাসা যেন সেই পানীয়র মৌতাত বাড়িয়ে দিতেই নিজেদের পোস্ট করা এই ছবিকে তুলনা করেছে পাম্পকিন স্পাইস ল্যাতের সঙ্গে। ক্রিম কালারের বিপরীতে মরচেধরা কমলা আর ঘন লাল রঙের মিশেলে এই পানীয়ের কথাই মনে পড়েছে সংস্থার। তা নিয়ে নাসা মজাও করেছে। আর তার পরেই জানিয়ে দিতে ভোলেনি যে এ মেঘের ছবি নয়। এ ছবি আদতে পৃথিবীর মাটির! আর সেখানেই আমাদের সবাইকে বাকরুদ্ধ হয়ে যেতে হয়! নাসা জানিয়ে রেখেছে স্পষ্টাস্পষ্টি- এ ছবি আদতে অস্ট্রেলিয়ার। ছবিটি তুলেছেন মহাকাশচারী স্কট কেলি অন্তরীক্ষ থেকে। এত উপর থেকে তোলা বলেই পৃথিবী ধরা দেয়নি তার চেনা মাটির রূপে!

আপনিও তো দেখছেন ছবিটা- বিশ্বাস হচ্ছে যে এ ভূখণ্ডের ছবি? অস্ট্রেলিয়ার ছবি?

Written By: Anirban Chaudhury:

Published by:Arka Deb
First published: