Home /News /international /
মসজিদ ভেঙে সুলভ শৌচালয়! চিনের 'কীর্তি'তে লজ্জিত গোটা বিশ্বের মুসলিম সমাজ

মসজিদ ভেঙে সুলভ শৌচালয়! চিনের 'কীর্তি'তে লজ্জিত গোটা বিশ্বের মুসলিম সমাজ

জিংজিয়াং প্রদেশের একটি মসজিদ।

জিংজিয়াং প্রদেশের একটি মসজিদ।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন ২০১৯ সালে গ্রামের আনজা মসজিটিকেও ভেঙে ফেলা হয়। মসজিদ ভেঙেই তৈরি হয় শপিং কমপ্লেক্স।

  • Share this:

    #বেজিং: উইঘুর মুসলমানদের প্রতি চিনের বর্বরতার কথা আজ বিশ্বে কারও অজানা নয়। এবার আরও একবার স্বেচ্ছাচার ও হিংসার মুখ তুলে ধরল চিন। উত্তর চিনের জিংজিয়াং প্রদেশে একটি ভাঙা মসজিদে এবার শৌচালয় তৈরি করল চিন।

    আতুশ সুনতাং গ্রামের বাসিন্দারা জানাচ্ছেন, এই শৌচালয়টি যেখানে তৈরি হচ্ছে সেখানেই আগে ছিল টোকুল মসজিদ ছিল। ২০১৮ সালে এই মসজিদ ভেঙে ফেলে চিন সরকার।

    একটি সাক্ষাৎকারে Uyghur neighborhood committe প্রধান বলেন, "কমরেডরা মসজিদ ধ্বংস করে সেখানে শৌচালয় বানাল। এখনও জনতার উদ্দেশ্যে তা উন্মুক্ত হয়নি।

    কিন্তু গ্রামে কি আর জায়গা ছিল না? নাকি গ্রামের মানুষের গণ শৌচালয় খুবই জরুরি? উত্তরে Uyghur neighborhood committee chief বলছেন, এই গ্রামে প্রত্যেকের বাড়িতে শৌচালয় রয়েছে। উইঘুরদের জেনেবুঝে আহত করতেই এই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে।

    অবশ্য এই প্রথম নয়। নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয়রা জানিয়েছেন ২০১৯ সালে গ্রামের আনজা মসজিটিকেও ভেঙে ফেলা হয়। মসজিদ ভেঙেই তৈরি হয় শপিং কমপ্লেক্স। সেখানে দেদার মদ, সিগারেট বিক্রি হয়, ইসলাম অনুযায়ী যা নিষিদ্ধ।

    ওয়াশিংটনের উইঘুর হিউম্যান রাইটস প্রজেক্ট রিপোর্টে দেখানো হয়েছে শুধু মসজিদ ভাঙাই নয়,গত কয়েক বছরে অবাধে ইসলামিক মিনার, কবরখানা নষ্ট করেছে চিন সরকার। ২০১৬ থেকে ২০১৯ সালের মধ্যে ১৫০০০ মসজিদ ধ্বংস করা হয়েছে চিনে, বলছে "Demolishing Faith: The Destruction and Desecration of Uyghurs Mosques and Shrines," রিপোর্টটি।

    উইঘুর ঐতিহাসিক কাহার বারাট এই ঘটনাকে, আত্মায় আঘাত বলে বর্ণনা করছেন। তার কথায় চিন ইসলামের বিরুদ্ধে জেহাদ ঘোষণা করতে চাইছে।

    Published by:Arka Deb
    First published:

    Tags: China

    পরবর্তী খবর