করোনাকালের প্রথম বিদেশ সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, ২৭ মার্চ ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক বৈঠক

করোনাকালের প্রথম বিদেশ সফরে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, ২৭ মার্চ ভারত-বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক বৈঠক

file photo

বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, মুজিব বর্ষ অর্থাৎ শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং ভারত-বাংলাদেশ কূটনৈতিক চুক্তির ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানায় বাংলাদেশ।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি : বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমন্ত্রণে আগামী ২৬ ও ২৭ মার্চ দুদিনের সফরে বাংলাদেশে যাচ্ছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ( Narendra Modi )। বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী, মুজিব বর্ষ অর্থাৎ শেখ মুজিবর রহমানের জন্মশতবর্ষ এবং ভারত-বাংলাদেশ কূটনৈতিক চুক্তির ৫০ বছর পূর্তি অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রীকে আমন্ত্রণ জানায় বাংলাদেশ। সেই উপলক্ষেই আগামী ২৬ মার্চ ঢাকায় পৌঁছচ্ছেন মোদি। জানা গিয়েছে, মোদির দু’দিনের প্রথম দিন জাতীয় দিবসের অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থাকবেন মোদি। সফরের দ্বিতীয় দিন অর্থাৎ ২৭ মার্চ বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার (Sheikh Hasina) সঙ্গে একান্ত বৈঠকে বসবেন তিনি। বৈঠকে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ বিষয় উঠে আসতে পারে বলেই মনে করছে দু'দেশের কূটনৈতিক মহল।

    এই সফর ঘিরে উৎসুক ঢাকাও। বাংলাদেশের বিদেশমন্ত্রী এ কে আবদুল মোমেন সোমবার রাজধানী ঢাকায় 'ফরেন সার্ভিস অ্যাকাডেমি'তে আয়োজিত একটি অনুষ্ঠানে এই প্রসঙ্গে বলেন, বৈঠকে যাবতীয় দ্বিপাক্ষিক ইস্যুগুলি উঠে আসতে চলেছে। সীমান্ত সন্ত্রাস, তিস্তা চুক্তির মতো প্রসঙ্গেও কথা হবে দু'দেশের শীর্ষ নেতাদের মধ্যে। বেশ কয়েকটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হওয়ার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন মোমেন। ইতিমধ্যেই বাংলাদেশের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সচিবদের মধ্যে বৈঠকের রূপরেখা নিয়ে একপ্রস্থ আলাপ আলোচনা হয়ে গিয়েছে বলেও জানিয়েছেন সে দেশের বিদেশমন্ত্রী।

    অতিমারী আবহে এটাই প্রধানমন্ত্রীর প্রথম বিদেশ সফর। এর থেকেই বোঝা যায় ভারত বাংলাদেশ দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ককে কতটা গুরুত্ব দিচ্ছেন মোদি। প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই ভারত এবং বাংলাদেশের মধ্যে মৈত্রী সেতুর উদ্বোধন করেন প্রধানমন্ত্রী। ত্রিপুরার ফেনী নদীর ওপর তৈরী সুদীর্ঘ এই সেতু এপারে ত্রিপুরার সাব্রুমের সঙ্গে ওপারে বাংলাদেশের রামগড়ের মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করবে। দু'দেশের মধ্যে বাণিজ্যিক আদান প্রদানের পাশাপাশি ভারতের ‘লুক ইস্ট পলিসি’-র অন্যতম পদক্ষেপ হিসেবেই দেখা হচ্ছে এই সেতুকে। তাই আসন্ন বাংলাদেশ সফরে মোদি-হাসিনা বৈঠকে কি নিয়ে আলোচনা হয় তা খুবই তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

    Published by:Sanjukta Sarkar
    First published: