corona virus btn
corona virus btn
Loading

শুধুই মৃত্যু ভয় ! ইউএস ছেড়ে পালাতে পারলে বাঁচি ! ইন্ডিয়ানা থেকে লিখছেন পারমিতা রায়

শুধুই মৃত্যু ভয় ! ইউএস ছেড়ে পালাতে পারলে বাঁচি ! ইন্ডিয়ানা থেকে লিখছেন পারমিতা রায়

আজকের দিনে দাঁড়িয়ে একটা কথাই মনে হচ্ছে ইউএস ছেড়ে পালাতে পারলে বাঁচি।

  • Share this:

#ইন্ডিয়ানা: কি লিখবো ভাবলেই মনটা কেমন খারাপ হয়ে যাচ্ছে ! চারিদিকে শুধু মৃত্যু মিছিল দেখছি। আর মানুষের চোখে মুখে আতঙ্ক। ভয়ে কাঁটা হয়ে আছি। আমি ইউএসের ইন্ডিয়ানাতে থাকি। এখানে আমার স্বামী ও আমি দুজনেই চাকরি সূত্রে আছি। বিয়ের পর এখানে আসি। এখানেই আমার কেরিয়ার তৈরি করি। আমার একটা সাত বছরের ছেলেও রয়েছে। কিন্তু এখন যে আমরা কি করবো কিচ্ছু জানি না। সারাক্ষণ খালি ভয় করছে।

করোনার ভয় তো আছেই। তার থেকেও বেশি ভয় যে এর পর আমরা করবোটা কি ! এভাবে লকডাউন চলতে থাকলে তো চাকরি জীবনটাই অনিশ্চয়তার মধ্যে চলে যাবে। আর চাকরি না থাকলে আমরা এখানে থাকতেও পারবো না। ভারতে ফিরে গিয়ে এই বয়সে নতুন করে কেরিয়ার শুরু করবো কি করে ! এসব ভাবলেই রাতে ঘুম আসছে না।

আমার স্বামী একজন স্বাস্থকর্মী। উনি একজন ফিজিক্যাল থেরাপিস্ট। আজকে ২ মাস হতে চললো উনি কাজে যেতে পারছেন না। ওদের হেলথ সেন্টার বন্ধ। ওরা বয়স্ক মানুষদের চিকিৎসা করে। করোনার জন্য বন্ধ রাখা হয়েছে এখন। কোনও পেশেন্টও আসছেন না। দুমাস ধরে স্যালারি পাচ্ছে না। এভাবে চলতে থাকলে ওর চাকরি থাকবে কিনা জানি না। আর চাকরি না থাকলে এখানে থাকাও যাবে না। আমার চাকরি আছে। সারাদিন বাড়ি থেকে কাজ করছি। আইটি প্রজেক্ট বলে এখনও কাজ আছে। তবে জানি না এই প্রজেক্টটা চলে গেলে আর নতুন প্রজেক্ট আসবে কিনা। আমরা বাড়ি থেকে বেরোতে পারছি না। কিছু ফ্রোজেন খাবার কিনে রেখেছিলাম সেগুলো আর সামান্য ডাল ভাত খেয়েই চালাতে হচ্ছে।

আমার ছেলে এতটা ছোট যে ও এসব কিছুই বুঝতে পারছে না। কিন্তু ওর সামনে আমরা নিজেদের ভয়টা প্রকাশ করতেও পারছি না। আপাতত ও বাড়ি থেকেই পড়াশুনো চালাচ্ছে। একমাত্র ওই ভাল আছে। কারণ ও কিছু বুঝতে পারছে না। জানি না আমাদের ভবিষ্যৎ কি ! এখানে এখনও লকডাউন খুলতে সময় লাগবে। প্রতিদিন বেড়ে চলেছে করোনা কেস। এখানকার মানুষ প্রথমে লকডাউনকে পাত্তাই দেয়নি। তারা রাস্তা ঘাটে বেড়িয়েছে। পার্টি করেছে। আর এখন তার ফল দেখা যাচ্ছে। মহামারীর মতো ছড়িয়ে পড়ছে করোনা। কিভাবে বাঁচবো জানি না। আজকের দিনে দাঁড়িয়ে একটা কথাই মনে হচ্ছে ইউএস ছেড়ে পালাতে পারলে বাঁচি। তারপর না হয় ভাববো আবার নতুন করে। এখানে জীবন কতটা আতঙ্কের মধ্যে কাটছে তা সত্যি লিখে বা বলে বোঝাতে পারবো না।

Published by: Piya Banerjee
First published: April 22, 2020, 12:46 AM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर