Home /News /international /

করোনা ভাইরাসের সঙ্গে মোকাবিলায় মার্কিন যুক্তরাষ্টের একদল শিক্ষার্থীর বানাল এক অভিনব ইমেল

করোনা ভাইরাসের সঙ্গে মোকাবিলায় মার্কিন যুক্তরাষ্টের একদল শিক্ষার্থীর বানাল এক অভিনব ইমেল

Photo-Representive

Photo-Representive

করোনাভাইরাস মহামারীটি গোটা বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে।

  • Share this:

    #নিউ ইয়র্ক: করোনাভাইরাস মহামারীটি গোটা বিশ্ব জুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। অজানা শত্রুর ভয়ে প্রতি নিয়ত আতঙ্কে দিন কাটছে।  পৃথিবীর কোটি কোটি মানুষের জীবন ও জীবিকা রোধ করেছে এই মারণ ভাইরাস।  নিঃসন্দেহে কঠিন সময়ের মধ্যে দিয়ে যাচ্ছে গোটা দুনিয়া। এই ভাইরাস থেকে পৃথিবী কবে মুক্তি পাবে তা কেউ জানে না। এই কঠিন সময়ের মধ্যেও  কিছু শিক্ষার্থী হাস্যরসের মাধ্যমে এই পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার  উপায় খুঁজে পেয়েছেন। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে একদল শিক্ষার্থী করোনার সময়ের সঙ্গে  সামঞ্জস্যতা রেখে হাস্যকর ইমেল সাইন-অফগুলি নিয়ে এসেছে।

    ওকলাহোমা রাজ্যের সামরিক ইতিহাসবিদ ডঃ জেন মুরে টুইটারে বলেছেন, তার একজন শিক্ষার্থী একটি ইমেল সাইন করছিল তখন তা মহামারী নামে করে। তিনি তার শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে আরও বলেন যে তিনি খুব খুশি যে এই কঠিন পরিস্থিতিকে একটি মজাদার উপায়ে মোকাবিলা করছে। এখানে মূলত এই মহামারী পরিস্থিতিতে কী কী করা উচিত এইরকম কথা জানানো হবে।  এরপর আরও অন্যন্য শিক্ষকরা আরও মন্তব্য করতে থাকেন। তাদের অভিজ্ঞতা শেয়ার করতে থাকেন। অনেকে অনেকধরণের মন্তব্য করতে থাকেন। একজন ব্যবহারকারী লিখেছিলেন'' ইয়র্স ফ্রম সিক্স ফিট '' অপর একজন লেখেন ''রেস্পেক্টডফুলি মাস্কড ''  , নেটিজেনরা যে যার মতামত বলতে থাকেন। একজন আবার লেখেন “I am going to have to start using that. Pandemically yours,” অপর একজন লেখেন “GOOD ONE. I won’t be using it with faculty, but nevertheless, good one.”

    করোনাভাইরাসের প্রকোপে জেরবার শিক্ষা ব্যবস্থাও। বন্ধ রয়েছে স্কুল,কলেজ। বাড়িতে থেকে ভার্চুয়ালি  হচ্ছে কোথাও কোথাও। নিজেদের কাজ সামলে বাচ্চাদের বাড়িতে পড়াশুনা করাতে নাভিশ্বাস উঠছে অভিভাবকদের। প্রতিটি শিক্ষার্থীর জীবনে এটি খুব কঠিন সময়। বন্ধুদের ছাড়া সারাদিন ঘরের মধ্যে থেকে হাপিয়ে উঠছে তারা। তবে আমেরিকার এই শিক্ষার্থীদের এই কঠিন পরিস্থিতিতে দাঁড়িয়ে হাসিমুখে মহামারী মোকাবিলার এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানিয়েছে নেটিজেনরা।

    Published by:Debalina Datta
    First published:

    Tags: Coronavirus, COVID-19

    পরবর্তী খবর