corona virus btn
corona virus btn
Loading

'একটা ইঞ্জিন বিকল!' চরম বিপদের আঁচ পেয়েও শান্ত ছিলেন পাক বিমানের চালক

'একটা ইঞ্জিন বিকল!' চরম বিপদের আঁচ পেয়েও শান্ত ছিলেন পাক বিমানের চালক
বিমানচালক সাজ্জাদ গুল৷ PHOTO- TWITTER

পাকিস্তানের এয়ারলাইন্স পাইলট অ্যাসোসিয়েশন-এর তরফে জানানো হয়েছে, সাজ্জাদ গুল তাঁদের সদস্যদের মধ্যে অন্যতম অভিজ্ঞ পাইলট ছিলেন৷

  • Share this:

#করাচি: 'আমাদের বিমানের একটি ইঞ্জিন বিকল হয়ে গিয়েছে...বিপদ, বিপদ, বিপদ!' বিমান ভেঙে পড়ার কয়েক মুহূর্ত আগে অত্যন্ত শান্ত গলায় করাচির এটিসি-কে এ কথাগুলোই বলেছিলেন পাকিস্তান এয়ারলাইন্স-এর অভিশপ্ত বিমানের পাইলট সাজ্জাদ গুল৷ সেই শেষ, করাচি বিমানবন্দরে জরুরি অবতরণের জন্য দু'টি রানওয়ে ফাঁকা রাখা হলেও সেই সুযোগ পাননি বিমানচালক৷ বেলা ১টার পরে করাচির জনবহুল এলাকাতেই ৯৯ জন যাত্রী এবং ৭ জন বিমানকর্মীকে নিয়ে ভেঙে পড়ে বিমানটি৷

পাকিস্তানের একটি নিউজ চ্যানেলে ভেঙে পড়ার কয়েক মুহূর্ত আগে বিমানচালকের সঙ্গে এটিসি-র কথোপকথনের একটি অডিও টেপ প্রকাশ করা হয়েছে৷ সেখানেই শোনা যাচ্ছে চরম বিপদের ইঙ্গিত পেয়ে গিয়েছিলেন বিমানচালক সাজ্জাদ গুল৷ তার পরেও নিজেকে শান্ত রেখেছিলেন তিনি৷ শেষরক্ষা যে হবে না, সেটাও তিনি বুঝে গিয়েছিলেন৷ কারণ ততক্ষণে ইঞ্জিন বিকল হয়ে সাজ্জাদের নিয়ন্ত্রণের বাইরে চলে গিয়েছে বিমান৷

পাকিস্তানের এয়ারলাইন্স পাইলট অ্যাসোসিয়েশন-এর তরফে জানানো হয়েছে, সাজ্জাদ গুল তাঁদের সদস্যদের মধ্যে অন্যতম অভিজ্ঞ পাইলট ছিলেন৷ সংগঠনের তরফে জানানো হয়েছে, যান্ত্রিক ত্রুটি দেখা দেওয়ার আগে বিমানটি নিয়ে একবার বিমানবন্দরে নামার চেষ্টা করেছিলেন সাজ্জাদ৷ কিন্তু অবতরণে ব্যর্থ হয়ে ফের উড়ে যেতে হয়েছিল তাঁকে৷

এই দুর্ঘটনায় দু' জন বাদে বিমানে থাকা সব যাত্রীরই মৃত্যু হয়েছে বলে খবর৷ পাশাপাশি জনবহুল এলাকায় বিমানটি ভেঙে পড়ায় আরও প্রাণহানির আশঙ্কা রয়েছে৷ ফলে হতাহতের সংখ্যা এখনও স্পষ্ট হয়নি৷ করাচির মালির মডেল কলোনির জিন্নাহ গার্ডেন এলাকায় বেশ কয়েকটি বাড়ির উপরেই বিমানটি ভেঙে পড়ে৷ এর পরেই বিমানটিতে আগুন ধরে যায়৷

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: May 22, 2020, 9:38 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर