চিনের ইশারায় সাহসী ইমরান ,আমেরিকাকে দিলেন কড়া বার্তা

আমেরিকান সৈন্যদের পাকিস্তানের মাটি ব্যবহার করতে দেবেন না ইমরান

চিনের ইশারায় শক্তি সঞ্চয় করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী। যুক্তরাষ্ট্রকে নিজেদের কোনও সেনা ঘাঁটি ব্যবহার করতে দেবে না পাকিস্তান। এক সাক্ষাতকারে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এটা পরিষ্কার করেছেন।

  • Share this:

    #ইসলামাবাদ: কথায় বলা হয় আমেরিকা না থাকলে পাকিস্তানের মাথার ছাদ জুটত না। কত মিলিয়ন ডলার ঋণ আমেরিকার থেকে বছরের-পর-বছর নিয়েছে পাকিস্তান সরকার তার ইয়ত্তা নেই। বিনিময় আমেরিকাকে ঠকানো ছাড়া কিছু দেয়নি পাক প্রশাসন। অতীতে সাংবাদিক ড্যানিয়েল পার্ল হত্যা হোক বা আবটাবাদে মিলিটারি একাডেমির কিছু দূরে ওসামা বিন লাদেনের নিশ্চিন্ত ডেরা, পাকিস্তানের ধোঁকাবাজি একাধিক নমুনা রয়েছে আমেরিকার হাতে। তবুও ভৌগলিক স্বার্থের জন্য পাকিস্তানকে হাতে রাখে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র।

    কদিন আগেও হোয়াইট হাউসে প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের পাশে বসতে রীতিমত ভয় পেতেন ইমরান খান। দীর্ঘসময়ের বন্ধুরাষ্ট্র সৌদি আরব পর্যন্ত ঋণ ফেরত চেয়েছিল পাকিস্তানের কাছে। ঘরে-বাইরে প্রবল চাপ সামলে প্রধানমন্ত্রীর চেয়ার ধরে রাখা সহজ নয় ইমরান খানের পক্ষে। বিশ্বে এই মুহূর্তে চিন এবং তুরস্ক ছাড়া বন্ধু নেই পাকিস্তানের। চিনের ইশারায় শক্তি সঞ্চয় করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী।

    যুক্তরাষ্ট্রকে নিজেদের কোনও সেনা ঘাঁটি ব্যবহার করতে দেবে না পাকিস্তান। এক সাক্ষাতকারে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান এটা পরিষ্কার করেছেন যে, আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে কোনও ধরনের পদক্ষেপ নিতে তার দেশের কোনও সেনা ঘাঁটি বা যে কোনও অঞ্চল ব্যবহারে যুক্তরাষ্ট্রকে অবশ্যই কোনও অনুমতি দেওয়া হবে না। এইচবিও'র জোনাথন সোয়ানকে দেয়া এক সাক্ষাতকারে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বলেন, ‘একেবারেই নয়। আমরা আমাদের কোনো ঘাঁটি বা পাকিস্তানের কোনও এলাকা ব্যবহার করে আফগানিস্তানের বিরুদ্ধে কোনও ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণে আমরা যুক্তরাষ্ট্রকে একেবারেই কোনও অনুমতি দেব না, একেবারেই না।’

    এইচবিও'র ওয়েবসাইটে জানানো হয়েছে, পরে ইমরান খানের ওই সাক্ষাতকার প্রচার করা হবে। আল-কায়েদা, আইএস এবং তালেবানের বিরুদ্ধে আন্তঃসীমান্ত সন্ত্রাসবাদ মিশন পরিচালনা করতে আমেরিকান সরকারকে পাকিস্তানে মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যদের থাকার অনুমতি দেয়া হবে কীনা জানতে চাইলে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান তার স্পষ্ট বক্তব্য তুলে ধরেন।

    এর আগে আফগানিস্তানে সন্ত্রাসবাদবিরোধী অভিযানের জন্য যুক্তরাষ্ট্রকে সামরিক ঘাঁটি ব্যবহারের অনুমতি দেওয়ার সম্ভাবনা প্রত্যাখ্যান করেন পাকিস্তানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী শাহ মাহমুদ কুরেসি। আফগানিস্তান থেকে সেনা প্রত্যাহার করেছে যুক্তরাষ্ট্র। ইরাক থেকেও সেনা প্রত্যাহার শুরু হয়েছে। এদিকে, মার্কিন সেনাবাহিনীকে নিজেদের ঘাঁটি ব্যবহার করতে না দেওয়ার বিষয়ে পাকিস্তানের মতামতকে স্বাগত জানিয়েছে তালিবান। আমেরিকার জন্যই আফগানিস্তান এবং ইরাকের মত দেশ ধ্বংস হয়েছে মনে করে তাঁরা।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: