corona virus btn
corona virus btn
Loading

জম্মু-কাশ্মীর, লাদাখকে নিজেদের বলে দাবি পাকিস্তানের! পাগলামো বলল ভারত

জম্মু-কাশ্মীর, লাদাখকে নিজেদের বলে দাবি পাকিস্তানের! পাগলামো বলল ভারত
পাকিস্তানের নতুন রাজনৈতিক মানচিত্র৷

ঘটনাচক্রে বুধবারই জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করার বর্ষপূর্তি হচ্ছে৷

  • Share this:

#ইসলামাবাদ: এবার নেপালকেই অনুসরণ করল পাকিস্তান৷ মঙ্গলবারই নতুন একটি রাজনৈতিক মানচিত্র প্রকাশ করেছেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান৷ সেই মানচিত্রে জম্মু- কাশ্মীর, লাদাখ এবং গুজরাতের জুনাগড়কে নিজেদের অংশ বলে দাবি করেছে পাকিস্তান সরকার৷ নতুন মানচিত্র প্রকাশের পরই দিনটিকে পাকিস্তানের ইতিহাসে সবথেকে ঐতিহাসিক দিন বলে অভিহিত করেছেন ইমরান খান৷ যদিও পাকিস্তানের এই পদক্ষেপকে 'রাজনৈতিক পাগলামো' বলে কড়া প্রতিক্রিয়া দিয়েছে ভারতের বিদেশমন্ত্রক৷

ভারতের বিদেশমন্ত্রকের মুখপাত্র অনুরাগ শ্রীবাস্তব বলেছেন, 'জম্মু-কাশ্মীর, লাদাখের মতো আমাদের কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল এবং গুজরাতের অংশকে নিজেদের বলে এই ভিত্তিহীন দাবি রাজনৈতিক পাগলামো ছাড়া আর কিছুই নয়৷ এই হাস্যকর দাবিগুলির না আইনি বৈধতা আছে, না আন্তর্জাতিক স্তরে এসমস্ত দাবির কোনও বিশ্বাসযোগ্যতা রয়েছে৷'

অনুরাগ শ্রীবাস্তব আরও দাবি করেন, 'সীমান্তের ওপার থেকে সন্ত্রাসকে মদত দিয়ে নিজেদের সীমানা বৃদ্ধির যে অপচেষ্টা পাকিস্তান করে চলেছে, এটা তাকেই স্বীকৃতি দিল৷'

ঘটনাচক্রে বুধবারই জম্মু-কাশ্মীর এবং লাদাখকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করার বর্ষপূর্তি হচ্ছে৷ তার আগের দিনই এই মানচিত্র প্রকাশ করে জম্মু-কাশ্মীর ও লাদাখকে নিজেদের এলাকা বলে দাবি করল পাকিস্তান৷ এ দিনই পাকিস্তানের মন্ত্রিসভা এই মানচিত্রকে অনুমোদন করেছে৷ তার পরই সাংবাদিক বৈঠক ডেকে এই দাবি করেন পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী৷

জম্মু কাশ্মীরকে কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করার সিদ্ধান্ত নিয়ে ভারতকে চাপে ফেলতে তৎপর হয়ে উঠেছে পাকিস্তান৷ ইতিমধ্যেই চিন এবং তুরস্কের মতো তাদের বন্ধু রাষ্ট্রগুলিকে এই পদক্ষেপের সমালোচনা করে বিবৃতি জারি করার জন্য অনুরোধ করেছে পাক সরকার৷ গত একবছর ধরে বিভিন্ন আন্তর্জাতিক মঞ্চেও এই বিষয়টি নিয়ে তদ্বির করেও বিফল হয়েছে পাকিস্তান৷ ইমরান খান সরকার অবশ্য মনে করে, সেই লক্ষ্যে তারা সফল৷ এমন কী, আন্তর্জাতিক মহলে জম্মু- কাশ্মীর এবং লাদাখ নিয়ে ভারতকে কোণঠাসা করার চেষ্টা ব্যর্থ হলেও তাকেই নিজেদের সবথেকে বড় সাফল্য হিসেবে দাবি করে পাকিস্তান সরকার৷

এ দিন সাংবাদিক বৈঠকে পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দাবি করেন, দেশের সব রাজনৈতিক দলই এই নতুন মানচিত্রকে সমর্থন করেছে৷ তিনি বলেন, 'গত বছর ৫ অগাস্ট ভারত সরকার যে বেআইনি পদক্ষেপ করেছিল, তারই প্রতিবাদে এই মানচিত্র৷ এই প্রথমবার গোটা বিশ্বের সামনে আমাদের দেশের সরকার নিজেদের অবস্থান স্পষ্ট করে দিল৷'

পাকিস্তানের সবথেকে ঘনিষ্ঠ বন্ধু চিনও মনে করে, ভারতের আগ্রাসী মনোভাব নিয়ন্ত্রণ করা উচিত এবং তাদের উত্থান দমানো প্রয়োজন৷ চিনের সেই উদ্দেশ্যকে স্বার্থক করতেই পাকিস্তান এমন পদক্ষেপ করল বলে মনে করা হচ্ছে৷ পাশাপাশি, এই পদক্ষেপের মাধ্যমে দেশে নিজের জনপ্রিয়তা এবং পায়ের তলার মাটি শক্ত করার চেষ্টা করলেন ইমরান খান, এমনও মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা৷

Published by: Debamoy Ghosh
First published: August 4, 2020, 10:18 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर