India vs Pakistan: পাক সেনা প্রধানের শান্তির বার্তা ভারতকে

India vs Pakistan: পাক সেনা প্রধানের শান্তির বার্তা ভারতকে

ভারতের সঙ্গে শান্তি চান পাক সেনাপ্রধান

পাক সেনাপ্রধান জানিয়েছেন দুই দেশের বিবাদ কাশ্মীরকে ঘিরে। শান্তিপূর্ণ সমাধান বের করা দুই দেশের কর্তব্য

  • Share this:

    #ইসলামাবাদ: দু'দিন আগেই পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান শান্তির বার্তা দিয়েছিলেন ভারতকে। ভারত এবং পাকিস্তান দুই দেশ একে অপরকে সাহায্য করে চলা উচিত জানিয়েছিলেন ইমরান। পাকিস্তানের সঙ্গে সুসম্পর্ক থাকলে ভারতের অর্থনৈতিক দিক থেকেও লাভবান হওয়ার সম্ভাবনা থাকবে এমনই বার্তা ছিল ইমরানের। প্রয়োজনে ভারতকে নিজেদের জমি ব্যবহার করে মধ্য এশিয়ার সঙ্গে ব্যবসা করতেও অনুমতি দেবে পাকিস্তান।

    এবার একই সুর শোনা গেল পাকিস্তানের সেনাপ্রধান জেনারেল কামার জাভেদ বাজোয়ার মুখে। নতুন প্রেসিডেন্ট নিযুক্ত হওয়ার পর থেকে ভারতের সঙ্গে মিত্রতা বাড়ানোর চেষ্টা করছে আমেরিকা। চিনের থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। দক্ষিণ এশিয়ায় নিরাপত্তা স্থাপনে কৌশলগত দিক থেকে ভারতের দর বাড়ছে। কয়েকদিন আগে ভারত, আমেরিকা, জাপান এবং অস্ট্রেলিয়া চারটি দেশের অক্ষ কোয়াড নিয়ে আগ্রহ দেখিয়েছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন।

    ভারত মহাসাগরে বেড়েছে ভারত-মার্কিন বোঝাপড়া। সেটা বুঝেই পাকিস্তানের এত বন্ধুত্বপ্রীতি বেড়ে গিয়েছে মনে করছেন কূটনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। তাছাড়া FATF ধূসর তালিকায় রয়েছে ইমরান খানের দেশ। জঙ্গি কার্যকলাপ বন্ধ করতে না পারলে আগামীদিনে কালো তালিকাভুক্ত হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনাও রয়েছে। অতীতে নয়াদিল্লি পাকিস্তানের রাজনৈতিক নেতৃত্বের সঙ্গে শান্তি প্রক্রিয়া চালু করার ব্যাপারে এগিয়ে গেলেও সেই প্রচেষ্টা বারবার বানচাল করেছে আইএসআই এবং পাক সামরিক বাহিনী। কিন্তু অদ্ভুতভাবে এই প্রথমবার পাকিস্তানের সরকার এবং সেনাবাহিনী এক সুরে কথা বলছে, যা-কিছুটা অস্বাভাবিক ব্যাপার।

    সাধারণত পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রীর চেয়ারে যিনিই বসুন না কেন, রিমোট কন্ট্রোল থাকে সেনাবাহিনীর হাতে। তাই চাপে পড়েই পাকিস্তানের ভারতপ্রীতি জেগে উঠেছে মনে করেন সাউথ ব্লকের কর্তারা। পাক সেনাপ্রধান জানিয়েছেন দুই দেশের বিবাদ কাশ্মীরকে ঘিরে। শান্তিপূর্ণ সমাধান বের করা দুই দেশের কর্তব্য। কাশ্মীর সমস্যার সমাধান না হলে উপমহাদেশে শান্তি ফিরবে না। পাকিস্তান বারবার ভারতের সঙ্গে আলোচনার টেবিলে বসতে চাইলেও সদিচ্ছা দেখায়নি নয়াদিল্লি।

    কিন্তু সময় এসেছে অতীতের তিক্ততা ভুলে নতুন সম্পর্ক স্থাপন করার। এতে দুই দেশের সম্পর্ক যেমন উন্নত হবে, তেমনই কাশ্মীরিদের ইচ্ছার মর্যাদা পাওয়া যাবে। উল্লেখ্য ফেব্রুয়ারি মাসের মাঝামাঝি ভারত সরকার জানিয়েছিল পাকিস্তানের সঙ্গে প্রতিবেশী হিসেবে সুসম্পর্ক চায় ভারত। কিন্তু ভারতবিরোধী কার্যকলাপে পাকিস্তান নিজেদের জমি ব্যবহার করতে দিচ্ছে জঙ্গিদের। বার বার বলেও কোনও লাভ হয়নি। হিংসামুক্ত পরিবেশ সৃষ্টির প্রথম পদক্ষেপ নিতে হবে ইমরান সরকারকে।

    তাছাড়া কাশ্মীর বা অন্যান্য সীমান্ত দিয়ে এই মুহূর্তে ভারতে জঙ্গি অনুপ্রবেশ সেভাবে করাতে পারছে না পাকিস্তান। তাই পাকিস্তান সম্পর্কে ভারতের অভিজ্ঞতা সিঁদুরে মেঘ দেখার মত। না আঁচালে বিশ্বাস নেই। তাই ইমরান অথবা পাক সেনা প্রধানের বার্তায় প্রভাবিত হতে রাজি নয় ভারত।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: