• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • গির্জার বাইরে পড়ে ছটফট করছেন গুলিবিদ্ধ পাদ্রী, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দ্বিতীয়বার রক্তাক্ত ফ্রান্স!

গির্জার বাইরে পড়ে ছটফট করছেন গুলিবিদ্ধ পাদ্রী, ৭২ ঘণ্টার মধ্যে দ্বিতীয়বার রক্তাক্ত ফ্রান্স!

তদন্তে নেমে পুলিশ ফাইজালকে জেরা শুরু করে৷ জেরার মুখে স্ববিরোধী বক্তব্য রাখতে শুরু করলেও একসময় ভেঙে পড়ে ফাইজাল৷ সে জানায়, প্রায় দশ বছর ধরে নীরজের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল৷ কিন্তু স্ত্রী এবং পরিবারকে ছাড়বেন না বলে ফাইজালকে বিয়ে করতে রাজি হননি নীরজ৷

তদন্তে নেমে পুলিশ ফাইজালকে জেরা শুরু করে৷ জেরার মুখে স্ববিরোধী বক্তব্য রাখতে শুরু করলেও একসময় ভেঙে পড়ে ফাইজাল৷ সে জানায়, প্রায় দশ বছর ধরে নীরজের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল৷ কিন্তু স্ত্রী এবং পরিবারকে ছাড়বেন না বলে ফাইজালকে বিয়ে করতে রাজি হননি নীরজ৷

ফ্রান্সের লিয়ন সিটিতে চার্চের কাছে পাদ্রীকে গুলি করার পরে আক্রমণকারী পালিয়ে যায়

  • Share this:

    #লিয়ন: ফ্রান্সে ঘনঘন চরমপন্থী হামলার ঘটনায় ভীতি বাড়ছে। এবার ফ্রান্সের লিয়ন সিটিতে চার্চের কাছে এক পাদ্রীর হত্যা করে পালিয়ে গেল দুষ্কৃতী। পাদ্রীর বয়স প্রায় ৫২ বছর। ৭২ ঘন্টার মধ্যে এটি ফ্রান্সের দ্বিতীয় আক্রমণ। চিকিৎসকদের মতে, শনিবার গ্রীক গোঁড়া (Orthodox) গির্জার পাদ্রিকে খুব কাছ থেকে পেটে গুলি করা হয়। তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে, যেখানে তাঁর জীবন-মৃত্যুর লড়াই চলছে। হামলাকারীকে ধরতে তল্লাশি অভিযান চালাচ্ছে পুলিশ।

    ঘটনার পিছনে একজন আততায়ী ছিল বলে জানা গিয়েছে৷ তবে একাধিক আততায়ীর তথ্যও উড়িয়ে দিচ্ছে না পুলিশ৷ জানানো হয়েছে যে, হামলাকারীরা লম্বা কালো রঙের জামা পরেছিল এবং শটগানটি তাদের কোটের ভিতরে লোকানো ছিল। লিওনের চার্চের আশপাশের বাসিন্দারা জানিয়েছেন যে, যাজককে দু'জন গুলিবিদ্ধ করেছিলেন। প্রত্যক্ষদর্শীদের বয়ান অনুযায়ী, একজনকে হঠাৎ করে পালিয়ে আসতে দেখা যায় এবং তারপরে ওই যাজক রক্তাক্ত অবস্থায় গির্জার দরজার বাইরে আহত অবস্থায় পড়ে ছিলেন। হামলার পেছনের কী উদ্দেশ্য তা স্পষ্ট নয়৷

    এটি একটি 'গুরুতর ঘটনা' বলেই পাদ্রী হামলার ঘটনাকে ব্যাখ্যা করেছেন ফরাসী প্রধানমন্ত্রী জিন কাস্টো। ঘটনার সঠিক তথ্য এখনও সামনে আসেনি। তবে তিনি আরও বলেন যে 'ক্রাইসিস সেন্টার' সক্রিয় করা হবে।

    সাম্প্রতিককালে, ফ্রান্সে এটি তৃতীয় হামলা৷ প্রথম স্যামুয়েল প্যাটি নামে একজন ইতিহাসের শিক্ষকের শিরশ্ছেদের ঘটনা ঘটে। এর দু'সপ্তাহের মধ্যেই বৃহস্পতিবার নিস শহরের নতর দাম বেসিলিকা চার্চে গলা কেটে খুন হয় ১ মহিলা সহ ৩৷

    এই ঘটনায় তিন ব্যক্তি মারা গিয়েছিলেন এবং আরও অনেকে আহত হয়েছেন। সেই ঘটনায় নিসের মেয়র ক্রিস্টিয়ান এসট্রোসি জানান, ১ জন গ্রেফতার হয়েছে। তাঁর মতে, এই নৃশংস হিংসার ঘটনা নিঃসন্দেহে সন্ত্রাসবাদী হামলা। সরকারের তরফে শহরবাসীকে অনুরোধ করা হয়েছে শহরের যেখানে জঙ্গিরা হমলা চালায়, সেই স্থান এড়িয়ে চলতে। ফরাসি প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, এক মহিলার গলা কেটে খুন করা হয়েছে। ছুরি দিয়ে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে আরও ২ জনকে। নির্মম ঘটনায় শোকস্তব্ধ দেশবাসী। ন্যাশনাল অ্যাসেম্বলিতে মৃতের স্মৃতির উদ্দেশে ১ মিনিট নীরবতা পালন করা হয়। প্রধানমন্ত্রী Jean Castex জানান, '' এই হিংসার ঘটনা আমাদের দেশের সামনে খুব গম্ভীর এবং নতুন একটা চ্যালেঞ্জ খাড়া করল।''

    গির্জার ঘটনার পরে সন্ত্রাসবিরোধী আইনজীবীরা এই হামলার তদন্ত শুরু করেছেন এবং ফ্রান্স তার জাতীয় সুরক্ষা সতর্কতা উচ্চ স্তরে পৌঁছেছে। ফরাসী সন্ত্রাসবিরোধী প্রসিকিউটর জন ফ্রাঙ্কোয়া রিকার্ড বলেছেন যে পুলিশ হামলাকারী গুরুতর আহত হয়েছিল। রেকর্ডে বলা হয়েছে যে সন্দেহভাজন ২১ বছর বয়সী তিউনিশিয়ার নাগরিক যারা এই মাসের গোড়ার দিকে ফ্রান্সে এসেছিল। ইতালীয় রেডক্রস তার একটি নথি জারি করেছিল। পুলিশ সূত্র হামলাকারীর নাম ব্রাহিম আউটসোই জানানো হয়েছে। আরও বলা হয় যে, সেপ্টেম্বরে সে তিউনিসিয়া থেকে ইতালীয় দ্বীপ ল্যাম্পেদুসার নৌকায় ভ্রমণ করেছিল।

    Published by:Pooja Basu
    First published: