corona virus btn
corona virus btn
Loading

Coronavirus৷ অন্তিম স্তরে করোনা মহামারি, কমতে চলেছে দাপট! দাবি নোবেলজয়ী গবেষকের

Coronavirus৷ অন্তিম স্তরে করোনা মহামারি, কমতে চলেছে দাপট! দাবি নোবেলজয়ী গবেষকের

২০১৩ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার জিতেছিলেন লেভিট৷ করোনা আক্রান্ত ৭৮টি দেশের দৈনন্দিন রিপোর্ট দেখে এই মত প্রকাশ করেছেন তিনি৷

  • Share this:

করোনা আতঙ্কের মধ্যেই এবার স্বস্তির খবর৷ নোবেল পুরস্কার বিজয়ী বিজ্ঞানী মাইকেল লেভিটের দাবি, করোনার দাপট খুব শিগগিরই নিয়ন্ত্রণে আসতে চলেছে৷ তাঁর দাবি, করোনার সংক্রমণ বিশ্বজুড়ে চূড়ান্ত পর্যায়ে পৌঁছে গিয়েছে৷ ফলে এবার ধীরে ধীরে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা কমতে শুরু করবে৷

২০১৩ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার জিতেছিলেন লেভিট৷ করোনা আক্রান্ত ৭৮টি দেশের দৈনন্দিন রিপোর্ট দেখে এই মত প্রকাশ করেছেন তিনি৷ নিজের যুক্তির স্বপক্ষে স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োফিজিস্ট এবং নোবেল জয়ী মাইকেল লেভিট বলেছেন, করোনার সংক্রমণ রুখতে লকডাউন-এর পদক্ষেপ গোটা বিশ্বেই বুস্টার শট- এর মতো কাজ করেছে৷

ইজরায়েলের সংবাদপত্র Calcalist- কে তিনি বলেছেন, 'প্রতিদিন রোগের সম্পর্কে নতুন নতুন খবর শুনে মানুষ ভয় পেয়ে যাচ্ছেন৷ কিন্তু তথ্য বলছে, সংক্রমণের হার অনেকটাই কমেছে৷ যার অর্থ, করোনা মহামারি প্রায় অন্তিম স্তরে পৌঁছেছে৷'

লেভিটের দাবিকে এই জন্যই উড়িয়ে দেওয়া যাচ্ছে না কারণ বিশ্বের অন্যান্য বিশেষজ্ঞদের অনেক আগে চিনে করোনার দাপট কমার পূর্বাভাস দিয়েছিলেন তিনি৷ গত ফেব্রুয়ারি মাসেই চিনে নিজের বন্ধুদের চিঠি লিখে তিনি দাবি করেছিলেন, করোনা বিপর্যয় থেকে বেরিয়ে আসবে চিন৷ তাঁর বার্তা গোটা চিনেই দ্রুত ছড়িয়ে পড়েছিল৷ কয়েক সপ্তাহের মধ্যেই সেই পূর্বাভাস সত্যি বলে প্রমাণিত হয়েছিল৷ বর্তমানে চিনে করোনার সংক্রমণ অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছে৷ এবার গোটা বিশ্বের জন্যই সেই একই দাবি করেছেন লেভিট৷

ইজরায়েলের ওই সংবাদপত্রের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে নোবেলজয়ী অধ্যাপক জানিয়েছেন, ১ ফেব্রুয়ারি থেকে তিনি করোনা আক্রান্তের সংখ্যার উপর নজর রাখছিলেন৷ চিনে প্রতিদিন মৃতের সংখ্যা বিশ্লেষণ করে এবং হিসেব করে শেষ পর্যন্ত নিজের সিদ্ধান্তে উপনীত হন তিনি৷ পর্যবেক্ষণের শুরুতে লেভিট লক্ষ্য করেন, চিনের হুবেই প্রদেশে প্রতিদিন ১৮০০ মানুষ করোনায় আক্রান্ত হচ্ছিলেন৷ ৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত সংক্রমণের হার এমনই ছিল৷ কিন্তু তার পরের দিন থেকেই সংক্রমণের হার কমতে শুরু করে৷ এক সপ্তাহ পরে মৃত্যুর হারেও একই ধরনের হ্রাস নজরে আসে৷

এই তথ্যের ভিত্তি ইজরায়েলের এই গবেষক দাবি করেছিলেন, দু' সপ্তাহের মধ্যে চিনে করোনার দাপট কমবে৷ এখন তাঁর দাবি, মার্চ মাসের শেষ দিকেই করোনা থেকে পুরোপুরি মুক্তি পাবে চিন৷ একই সঙ্গে তাঁর দাবি, বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলিও যদি মানুষের মধ্যে সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখতে পারে এবং মানুষের গতিবিধির যথাসম্ভব কমিয়ে রাখতে পারে, সেক্ষেত্রে অধিকাংশ দেশই খুব শিগগিরই করোনার গ্রাস থেকে মুক্তি পাবে৷ করোনা আতঙ্কে পরিস্থিতি যতটা খারাপ মনে হচ্ছে, বাস্তবে তা ততটা নয় বলেই দাবি করেছেন লেভিট৷

 
First published: March 26, 2020, 8:45 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर