corona virus btn
corona virus btn
Loading

বিতর্কিত মানচিত্রের পর এবার নতুন আইন নেপালের, আরও চটতে পারে ভারত

বিতর্কিত মানচিত্রের পর এবার নতুন আইন নেপালের, আরও চটতে পারে ভারত
নেপালের প্রধানমন্ত্রী কে শর্মা ওলি

১৯৫০ সালে ভারত নেপালের মধ্যে হওয়া মৈত্রি চুক্তির পর দুই দেশের সম্পর্ক আরও মজবুত হয়েছে৷

  • Share this:

#কাঠমান্ডু: ইতিমধ্যেই ভারতের তিনটি এলাকাকে নিজেদের মানচিত্রে অন্তর্ভুক্ত করেছে৷ উত্তরাখণ্ডের ওই তিনটি এলাকা তাদের বলে দাবি করেছে নেপাল সরকার৷ বিতর্কিত মানচিত্রকে স্বীকৃতি দিতে সংবিধান সংশোধনের প্রস্তাবও পাশ হয়েছে নেপালের সংসদে৷

এবার নেপাল সরকার এমন আরও এক পদক্ষেপ করছে, যার ফলে ভারতের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক আরও খারাপ হতে পারে৷ জানা গিয়েছে, নেপাল সরকার এমন এক আইন আনছে যার ফলে নেপালের কোনও নাগরিককে বিয়ে করে কোনও বিদেশি মহিলা নেপালে এসে বসবাস করলে সেদেশের নাগরিকত্ব পাওয়ার জন্য ৭ বছর অপেক্ষা করতে হবে৷ এই ৭ বছরে তিনি কোনও রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডেও অংশগ্রহণ করতে পারবেন না৷ সামাজিক স্বীকৃতির জন্য সংশ্লিষ্ট মহিলাকে নেপাল সরকারের পক্ষ থেকে শুধুমাত্র বিবাহিত হিসেবে একটি সরকারি পরিচয়পত্র দেওয়া হবে৷

নেপাল ভারতের তিনটি এলাকা অন্তর্ভুক্ত করে যে মানচিত্রকে স্বীকৃতি দিয়েছে, সম্প্রতি তাঁর বিরোধিতা করেন সেদেশের সমাজবাদী পার্টির সাংসদ সরিতা গিরি৷ তাঁর এই বিরোধিতার পরই নেপাল সরকার এমন আইন আনার উদ্যোগ নিয়েছে বলেই মনে করা হচ্ছে৷ লিপুলেখ, কালাপানি এবং লিম্পিয়াধুরা- ভারতের এই তিনটি এলাকাকে নিজেদের বলে দাবি করেছে নেপাল৷ এরই বিরোধিতা করেন সাংসদ সরিতা গিরি৷ নেপালের এই সাংসদ আদতে ভারতেরই বাসিন্দা ছিলেন৷ তিনি দাবি করেন, কালাপানি ভারতেরই অংশ৷ যা নিয়ে নেপালে জোর বিতর্ক শুরু হয়েছে৷ সরিতা গিরি এই দাবি করার পরই বিরোধীরা তাঁর বাড়িতে কালো পতাকা লাগিয়ে দেয়৷ এমন কি, তাঁকে দেশছাড়া করার দাবি ওঠে৷ এর পরই নতুন আইন আনার উদ্যোগ নিয়েছে নেপাল সরকার৷

মনে করা হচ্ছে, যদি সত্যিই এই আইন নেপাল সরকার পাশ করায়, তা হলে ভারত- নেপাল সম্পর্কে তার প্রভাব পড়বে৷ কারণ এতদিন ভারত এবং নেপালের মধ্যে যথেষ্ট সুসম্পর্ক ছিল৷ দু' দেশের মধ্যে যাতায়াতের জন্য পাসপোর্ট বা ভিসার প্রয়োজন হয় না৷ এমন কি, দুই দেশের মানুষ কোনও আইনি জটিলতা ছাড়াই বৈবাহিক বন্ধনে আবদ্ধ হন৷ ভারত- নেপালের সীমান্তবর্তী এলাকার পরিবারগুলির মধ্যে এমন সম্পর্ক প্রায়শই গড়ে ওঠে৷

১৯৫০ সালে ভারত নেপালের মধ্যে হওয়া মৈত্রি চুক্তির পর দুই দেশের সম্পর্ক আরও মজবুত হয়েছে৷ এই চুক্তি অনুযায়ী ভারত এবং নেপালের নাগরিকরা দু' দেশেই জমি- বাড়ি কিনে বসবাস করতে পারেন৷ নেপালে বিবাহিত ভারতীয় মহিলারা সঙ্গে সঙ্গে সেদেশের নাগরিকত্ব পান৷ ভারতের ক্ষেত্রেও একই নিয়ম৷ কিন্তু সেই সুবিধায় ইতি টানতে চলেছে নেপালের ক্ষমতাসীন কমিউনিস্ট সরকার৷

 
Published by: Debamoy Ghosh
First published: June 21, 2020, 2:01 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर