corona virus btn
corona virus btn
Loading
LIVE NOW

Modi in US Live: ৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের ফলে অধিকার ফিরে পেয়েছেন কাশ্মীরের মানুষ : মোদি

আর কয়েক ঘণ্টা পরেই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনে হবে ‘Howdy, Modi!’৷ একেবারেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেন্দ্রীক এই মেগা ইভেন্টে উপস্থিত থাকবেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও৷

Bengali.news18.com | September 23, 2019, 12:03 AM IST
facebook Twitter google Linkedin
Last Updated September 23, 2019
auto-refresh
12:03 am (IST)

৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের জেরে অনেকের সমস্যা হচ্ছে, পরোক্ষভাবে পাকিস্তানকে বিঁধলেন মোদি  


12:02 am (IST)

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একজোট হয়ে লড়ার বার্তা নরেন্দ্র মোদির


12:01 am (IST)

সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ে সাহায্য করেছেন ট্রাম্পও, জানালেন মোদি

12:01 am (IST)

সন্ত্রাসবাদের বিরুদ্ধে একজোট হয়ে লড়ার বার্তা নরেন্দ্র মোদির 

11:56 pm (IST)

৩৭০ ধারা প্রত্যাহারের ফলে কাশ্মীর ও লাদাখের মানুষ তাঁদের অধিকার ফিরে পেয়েছেন, হাউডি মঞ্চে জানালেন মোদি

11:52 pm (IST)

এনআরজি স্টেডিয়ামে জমায়েত জনতা


11:31 pm (IST)
11:14 pm (IST)
 ‘ভারতের জন্য ব্যতিক্রমী কাজ করেছেন মোদি’

 

11:14 pm (IST)

‘ভারতের পাশে সবসময় আছি’
‘আমরা একসঙ্গে কাজ করব’
‘যেকোনও সমস্যায় ভারতের সঙ্গে আছি’
‘ফের নির্বাচিত হওয়ায় মোদিকে অভিনন্দন’
মোদিকে জন্মদিনের শুভেচ্ছা ট্রাম্পের
ভারতের মত ভাল বন্ধু কেউ নেই
‘মোদি আমার বিশ্বস্ত বন্ধু’
‘ভারতের জন্য ব্যতিক্রমী কাজ করেছেন মোদি’

মোদির প্রশংসায় ট্রাম্প

 

11:13 pm (IST)
Load More

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের হিউস্টনে ‘Howdy, Modi!’৷ একেবারেই ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিকেন্দ্রীক এই মেগা ইভেন্টে উপস্থিত মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পও৷ প্রথমে কথা ছিল মোদির শোয়ে গেস্ট অ্যাপিয়ারেন্স হবে ডোনাল্ড ট্রাম্পের৷ হোয়াইট হাউস থেকে এই মাত্র জানানো হল, গেস্ট অ্যাপিয়ারেন্স নয়, মোদির মঞ্চে ট্রাম্প ৩০ মিনিট ব্কতৃতা দেবেন৷ আক্ষরিক অর্থেই মার্কিন মুলুকে মোদি ম্যানিয়া! শনিবারই হাউস্টন পৌঁছে গিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি৷ হিউস্টনে 'হাউ ডু ইউ ডু'-কে সংক্ষপে হাউডি বলেন বাসিন্দারা৷ এক সপ্তাহের এই মার্কিন সফরে ইতিমধ্যেই মোদি দেখা করেছেন আমেরিকায় বসবাসকারী শিখ সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিদের সঙ্গে৷ একই সঙ্গে দেখা করেছেন তেল সংস্থার সিইও-দের সঙ্গেও৷ ১৯৮৪ সালের শিখ দাঙ্গা, আনন্দ ম্যারেজ অ্যাক্ট, ভিসা, পাসপোর্ট পুনর্বিকরণ-সহ একাধিক বিষয়কে তাঁর ভাষণে রাখার আবেদন জানিয়ে একটি স্মারক দিয়েছেন শিখ সম্প্রদায়ের প্রতিনিধিরা৷ একই সঙ্গে দিল্লি বিমানবন্দরের নাম গুরু নানক দেব-এর নামে রাখারও অনুরোধ জানিয়েছেন তাঁরা৷