Home /News /international /

Murder: ফ্ল্যাটের বাইরে কাটা হাত, ভিতরে স্বামীর টুকরো টুকরো দেহ, পাশে নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে স্ত্রী

Murder: ফ্ল্যাটের বাইরে কাটা হাত, ভিতরে স্বামীর টুকরো টুকরো দেহ, পাশে নিশ্চিন্তে ঘুমিয়ে স্ত্রী

ফ্ল্যাটে ঢুকতেই শিউরে উঠেছিলেন পুলিশ কর্মীরা! মেঝেয় এখানে-সেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে এক ব্যক্তির দেহের টুকরো, পাশেই অকাতরে ঘুমিয়ে এক মহিলা

  • Share this:

    #করাচি: ফ্ল্যাটে ঢুকতেই শিউরে উঠেছিলেন পুলিশ কর্মীরা (Murder)! মেঝেয় এখানে-সেখানে ছড়িয়ে ছিটিয়ে পড়ে রয়েছে এক ব্যক্তির দেহের টুকরো (Murder), পাশেই অকাতরে ঘুমিয়ে এক মহিলা! ঘটনাস্থল থেকেই মহিলাকে গ্রেফতার করে করাচি থানার পুলিশ, তিনিই এই খুনের ঘটনার মূল সন্দেহভাজন।

    আরও পড়ুন:ক্যামেরার সামনে একে একে পোশাক ছাড়লেন শিক্ষিকা, পোস্ট করলেন উত্তেজক ভিডিও, ভাইরাল হতেই বরখাস্ত স্কুল থেকে

    করাচি পুলিশের অফিসার জুবের নাজির শেখ জানান, '' আমাদের কাছে একটা ফোন আসে। বলা হয়, সদর এলাকার একটি ফ্ল্যাটের বন্ধ দরজার বাইরে একটা কাটা হাত পড়ে রয়েছে। আমরা ঘটনাস্থলে গিয়ে ফ্ল্যাটের দরজা খুলে দেখি মেঝেতে এক ব্যক্তির খণ্ডবিখণ্ড দেহ পড়ে রয়েছে (Murder), পাশে ঘুমোচ্ছেন এক মহিলা। মহিলার শরীরের ওপরও ছড়িয়ে-ছিটিয়ে ছিল মাংসের কিছু টুকরো।''

    আরও পড়ুন:পোষ্য বাঁদরকে টয়লেটে ফেলে ফ্লাশ ! হাজতবাস এবং জরিমানা মহিলার

    খুনের ঘটনার মূল অভিযুক্ত ৪৫ বছরের এই মহিলা। খুন কবে হয়েছে, তা এখনও পুলিশের কাছে স্পষ্ট নয়, তবে অনুমান, ১ সপ্তাহ আগেই খুন করা হয় মহম্মদ সোহেল নামে ৬০ বছরের ওই ব্যক্তিকে। তিনি সদর এলাকার আবদুল্লা হারুন রোডের ওই ফ্ল্যাটেরই বাসিন্দা ছিলেন।

    পুলিশ জানান, '' মহিলার বিরুদ্ধে খুনের প্রমাণ মিলেছে। মহিলার রক্তমাখা পোশাক, যে অস্ত্র দিয়ে ব্যক্তির দেহ টুকরো-টুকরো করে কাটা হয় সেই অস্ত্রও পাওয়া যায়। খুনের জায়গা থেকে একটি ছুরি, একটি হাতুরি ও বেশ কিছু ভোঁতা অস্ত্র উদ্ধার হয়েছে।''

    পুলিশি জেরায় খুনের কথা স্বীকার করে নেন মহিলা। প্রাথমিকভাবে তিনি জানিয়েছিলেন, মৃত ব্যক্তি তাঁর স্বামী। কিন্তু পরবর্তীতে বয়ান পালটে দাবি করেন, নিহত নাকি তাঁর জামাইবাবু। স্থানীয় সংবাদপত্রে প্রকাশ, মহিলাকে নেশাগ্রস্ত অবস্থায় ঘটনাস্থল থেকে গ্রেফতার করে পুলিশ। করাচি পুলিশের অফিসার জুবের নাজির শেখের ভাষায়, '' পুলিশের জেরা চলাকালীন তাবড়-তাবড় ক্রিমিনালও ঘাবরে যায়, ভয় পায়! কিন্তু এই মহিলা অদ্ভুতরকমের শান্ত ছিলেন।''

    মৃতের প্রতিবেশীরা জানান, নিহত ব্যক্তি আর মহিলার বিয়ে না হলেও তাঁরা একসঙ্গেই থাকতেন। দু'জনের মধ্যে টাকা পয়সা নিয়ে খুব ঝগড়া হত। জানা যায়, সদর এলাকাতেই নিহতের পরিবার রয়েছে।

    Published by:Rukmini Mazumder
    First published:

    Tags: Murder

    পরবর্তী খবর