বিদেশ

corona virus btn
corona virus btn
Loading

জীবাশ্ম ভেবে বাড়িতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার গ্রেনেড নিয়ে এলেন মহিলা, পরে বিস্ফোরণ!

জীবাশ্ম ভেবে বাড়িতে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার গ্রেনেড নিয়ে এলেন মহিলা, পরে বিস্ফোরণ!
Jodie Crews picked up what she thought was a fossil, only to realise it was WW2 grenade after it exploded in her kitchen | Image credit: Facebook

মা-মেয়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন সমুদ্র সৈকতে। সেখানেই তাঁদের চোখে পড়ে একটি পুরনো দিনের পাথরজাতীয় জিনিস। যা দেখে প্রাথমিক ভাবে মনে হয়েছিল, জীবাশ্ম বা কোনও পাথর।

  • Share this:

#লন্ডন: ফসিল ভেবে সমুদ্র সৈকত থেকে গ্রেনেড (Grenade) নিয়ে বাড়ি। গরম পিন ছোঁয়াতেই হল বিস্ফোরণ। কয়েক সেকেন্ডের জন্য প্রাণে বাঁচলেন এক মহিলা ও তাঁর মেয়ে। ঘটনাটি ইংল্যান্ডের।

মা-মেয়ে ঘুরতে গিয়েছিলেন সমুদ্র সৈকতে। সেখানেই তাঁদের চোখে পড়ে একটি পুরনো দিনের পাথরজাতীয় জিনিস। যা দেখে প্রাথমিক ভাবে মনে হয়েছিল, জীবাশ্ম বা কোনও পাথর। তাই আনন্দের সঙ্গে সেটিকে বাড়ি নিয়ে ফেরে তাঁরা। সাজিয়ে রাখেন রান্নাঘরে।

৩৮ বছর বয়সী জোডি ক্রুস (Jodie Crews)-এর অবশ্য বস্তুটিকে নিয়ে খুবই কৌতুহল ছিল। ফলে, তিনি সেটির ছবি Fossil ও Archaeology Site-এ দেন। সেখান থেকে তেমন কোনও উত্তর পাননি। তবে, অনেকেই তাঁকে পরামর্শ দেন গরম পিন ফুটিয়ে দেখার জন্য।

ফেসবুকে জোডি গ্রেনেড(Grenade)-টির ও রান্নাঘরের ছবি Facebook-এ পোস্ট করে জানিয়েছেন, গরম পিন ফোটানোর পরই বিকট আওয়াজে বিস্ফোরণ হয়। আগুন লেগে যায় রান্নাঘরে। ঘুণাক্ষরেও তাঁরা টের পাননি যে এমন হতে পারে। জোডি লেখেন, পিন ফোটানোর সময় মনে হয়েছিল মোমের আস্তরণ রয়েছে পাথরটির উপর। কিন্তু সেটি হঠাৎই ফেটে যায়।

পরে জানা যায়, গ্রেনেডটি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়কার। সেটি পরে পরে নষ্ট হচ্ছিল সমুদ্রের ধারে। কী ভাবে সেখানে এল, কে নিয়ে এল সে বিষয়ে কিছু জানা যায়নি।

এ দিকে, জোডির আট বছরের মেয়ে ইসাবেলার প্রশংসায় পঞ্চমুখ সকলে। কারণ মা যখন ওই পাথরে পিন ফোটানো শুরু করে, তখন সে চারিদিক থেকে লোকজনকে ডাকতে থাকে। আগুন লেগে যাওয়ায় তার প্রতিবেশীরা তড়িঘড়ি দমকলে খবর দেয়। আর আগুন নেভানোর জন্য একটি ভিজে টাওয়েল ওই গ্রেনেড গায়ে ছুড়ে দেয় ইসাবেলা।

দমকলের তরফে জানানো হয়, ওই গ্রেনেডটির গায়ে মোমের মতো কোনও জিনিস ছিল। তা ভেদ করে পিন ভিতরে চলে যাওয়ায় বিস্ফোরণ হয়। বিস্ফোরণের পর ওই মহিলা ও তাঁর পরিবারকে বাড়ির কল থেকে জল খেতে নিষেধ করেন বিশেষজ্ঞরা। কারণ বিস্ফোরণের জেরে কেমিক্যাল জলে মিশে থাকতে পারে বলে।

Mail Online-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, এ বিষয়ে জোডি বলেন, বিস্ফোরণের পরই প্রথম মাথায় আসে, আমার মেয়ে, বাড়ি আর কুকুর-বিড়ালকে কীভাবে বাঁচাব। আমি তাই তড়িঘড়ি ওদের সবাইকে নিয়ে বাগানের দিকে চলে যাই।

Published by: Siddhartha Sarkar
First published: December 15, 2020, 12:29 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर