Viral: শুধু 'অন্তর্বাস' পরেই স্কুলে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হেনস্থার জবাব দিলেন বাবা! তারপর যা হল...

Viral: শুধু 'অন্তর্বাস' পরেই স্কুলে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের হেনস্থার জবাব দিলেন বাবা! তারপর যা হল...

শুধু 'অন্তর্বাস' পরেই স্কুলে দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকাদের বকুনির প্রতিবাদে করল বাবা! প্রতীকী ছবি।

ঘটনার প্রতিবাদে শামিল হয় স্কুলের অন্যান্য পড়ুয়ারাও। সকলে মিলে স্কুলের বাইরে ২০২১ সালে দাঁড়িয়ে এ হেন ঘটনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

  • Share this:

    #টরেন্টো: 'অন্তর্বাস' সদৃশ পোশাক পরে স্কুলে গিয়েছিল দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী। সঠিক পোশাক না পরে স্কুলে যাওয়ার জন্য তাকে বাড়ি পাঠিয়ে দেওয়া হয়। এরপরেই ক্ষোভে ফেটে পড়েন ১৭ বছর বয়সী ওই কিশোরীর বাবা। তাঁর দাবি, স্কুলে মেয়েকে অন্তর্বাসের মতো দেখতে পোশাক পরে যাওয়ার জন্য তাড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। বলা হয়েছে, সেই পোশাকে স্কুলের ছাত্র, শিক্ষক এবং পুরুষ অশিক্ষক কর্মীরা অস্বস্তি বোধ করবেন।  কিন্তু মেয়ে যে পোশাক পরে স্কুলে গিয়েছিল, তা মোটেই সেরকম দেখতে ছিল না। যথেষ্ট শালীন ছিল সেটি। এখানেই শেষ হয়নি তাঁর প্রতিবাদ। সোশ্যাল মিডিয়াতেও বিষয়টি নিয়ে সরব হয়েছেন তিনি।

    ঠিক কী ঘটেছিল? মেট্রো-র রিপোর্ট অনুযায়ী, নরক্যাম সিনিয়র সেকেন্ডারি স্কুলের পড়ুয়া ওই ছাত্রী স্কুল ড্রেস ছাড়া অন্য একটি পোশাক পরে স্কুলে যায়।  লম্বা হাতা সাহা হাইনেক টি শার্টের ওপর একটি কালো টারটেল নেক জাম্পার পড়েছিল সে। সেই জাম্পারের গলায় ছিল লেসের কাজ। এ পোশাক দেখেই খেপে ওঠেন স্কুলের এক শিক্ষিকা। পড়ুয়াকে ডেকে চরম অপমান করে বাড়ি চলে যেতে বলেন।

    স্কুল পড়ুয়া কারিস। সংগৃহীত ছবি। স্কুল পড়ুয়া কারিস। সংগৃহীত ছবি।

    ওই শিক্ষিকা বলেন, "তোমার এই পোশাক স্কুলের ছাত্র এবং শিক্ষকদের অস্বস্তিতে ফেলছে।" এখানেই শেষ হয়নি, এরপরে পড়ুয়াকে নিয়ে যাওয়া হয় প্রিন্সিপ্যালের কাছে। তিনিও ওই শিক্ষিকার বক্তব্যে সহমত হন এবং তাঁকে বাড়ি চলে যেতে নির্দেশ দেন। এরপরেই অবশ্য সেই ঘটনার প্রতিবাদে শামিল হয় স্কুলের অন্যান্য পড়ুয়ারাও। সকলে মিলে স্কুলের বাইরে ২০২১ সালে দাঁড়িয়ে এ হেন ঘটনার বিরুদ্ধে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন।

    এ দিকে পড়ুয়া বাড়ি ফিরে যেতেই ঘটনার কথা জানতে পারেন তার বাবা। ঘটনার তীব্র পরিবাদ করেন তিনিফেসবুক পোস্টে তিনি লেখেন, "আমার মেয়েকে আজকে এমন পোশাক পরে স্কুলে গিয়েছিল, যাতে নাকি তার স্কুলের ছাত্র এবং পুরুষ শিক্ষক এবং কর্মীরা অস্বস্তিতে পরে গিয়েছিলেন। তাই তাঁকে স্কুল থেকে বার করে দেওয়া হয়। যা অত্যন্ত দুর্ভাগ্যজনক। আপনারা দয়া করে আমার মেয়ে ক্যারিসের পাশে থাকবেন। এবং যাঁরা এই ঘটনার সঙ্গে যুক্ত রয়েছেন, তাঁদের বিরুদ্ধে সরব হন, যাতে এই ধরণের দুর্ভাগ্যজনক ঘটনা আর কারও সঙ্গে না ঘটে। আমি বীতশ্রদ্ধ, আমি মর্মাহত ২০২১ সালে দাঁড়িয়ে এমন ঘটনা নিজের মেয়ের সঙ্গে ঘটার পরে।"

    Published by:Shubhagata Dey
    First published: