• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • মানুষ নয়, হাতি-বাঁদরদের শোনান মিউজিক; জেনে নিন এই ব্রিটিশ পিয়ানিস্টের অবাক গল্প

মানুষ নয়, হাতি-বাঁদরদের শোনান মিউজিক; জেনে নিন এই ব্রিটিশ পিয়ানিস্টের অবাক গল্প

ব্রিটিশ মিউজিশিয়ান বার্টন, এখন থাকেন থাইল্যান্ডে। গত সাত বছর ধরে তিনি পিয়ানো বাজিয়ে শোনাচ্ছেন এদেশের বন্যপ্রাণীদের।

ব্রিটিশ মিউজিশিয়ান বার্টন, এখন থাকেন থাইল্যান্ডে। গত সাত বছর ধরে তিনি পিয়ানো বাজিয়ে শোনাচ্ছেন এদেশের বন্যপ্রাণীদের।

ব্রিটিশ মিউজিশিয়ান বার্টন, এখন থাকেন থাইল্যান্ডে। গত সাত বছর ধরে তিনি পিয়ানো বাজিয়ে শোনাচ্ছেন এদেশের বন্যপ্রাণীদের।

  • Share this:

    #লন্ডন: পল বার্টন তাঁর নাম। দীর্ঘদিন ধরে পিয়ানো বাজান। মিউজিকই মানুষটির ধ্যান-জ্ঞান। থাকতেন ব্রিটেনের শহর ইয়র্কশায়ারে। একটা সময় তিনি কনসার্টে পিয়ানো বাজিয়ে বহু মানুষকে আনন্দ দিয়েছেন। তবে এখন আর শহুরে মানুষকে নয়। তিনি সুরের জাদু ছড়িয়ে দিতে চান বন্যপ্রানীদের মধ্যে। এমনটাই দেখা যাচ্ছে তাঁর ইউটিউব চ্যানেলের ভিডিওগুলিতে।

    ব্রিটিশ মিউজিশিয়ান বার্টন, এখন থাকেন থাইল্যান্ডে। গত সাত বছর ধরে তিনি পিয়ানো বাজিয়ে শোনাচ্ছেন এদেশের বন্যপ্রাণীদের। সম্প্রতি তিনি নেটিজেনদের নজর কেড়েছেন নিজের ইউটিউব চ্যানেলে শেয়ার করা হাতিদের একটি কনসার্টের মাধ্যমে। হ্যাঁ, হাতিদের জন্য জলসা-ই বলা যেতে পারে একে। কারণ এই ইউটিউব ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে ওয়াং ডং-এর এলিফ্যান্ট ওয়র্ল্ড স্যাংচুয়ারিতে হাতিদের মিউজিক শোনাতে ব্যস্ত পল বার্টন। আর হাতিও বেশ মন দিয়েই শুনছে। শুধু তাই নয়, মিউজিশিয়ানকে বন্ধু বানিয়ে শুঁড় দোলাতে দোলাতে হেঁটে চলেছে তাঁর সঙ্গে।

    বার্টনের সাম্প্রতিকতম ভিডিওতে তাঁকে পিয়ানো বাজাতে দেখা গিয়েছে থাইল্যান্ডের লপবুরি প্রভিন্সের একটি পুরনো মন্দিরে। ভিডিওটি বেশ মজার। দেখা যাচ্ছে, প্রায় শ-খানেক বাঁদর ঘিরে রয়েছে বার্টনকে। মিউজিক শুনে মুগ্ধ হয়ে তাদের মধ্যে কেউ চড়েছে মিউজিশিয়ানের ঘাড়ে, তো কেউ পিয়ানোর উপর। পিয়ানো শুনতে শুনতে কিচ কিচ শব্দ করে তারা সম্ভবত সুরে গলা মেলাচ্ছে।

    সারা বছর অসংখ্য পর্যটকের ভিড় হয় থাইল্যান্ডে। আর সেই সুবাদেই, বেশ ভালমন্দ খাবার মেলে বাঁদরদেরও। কিন্তু এবছর গল্পটা একেবারেই আলাদা। অতিমারীর জন্য বন্ধ রয়েছে পর্যটকদের আসা। খিদে নিয়েই দিন কাটাচ্ছে মাকাক প্রজাতির এই বাঁদরেরা। বার্টনের উদ্দেশ্য, এই বন্যজীবন সম্পর্কে সকলকে সচেতন করা।

    Published by:Akash Misra
    First published: