কী কাণ্ড, কাকার কঙ্কাল দিয়ে ইলেকট্রিক গিটার বানাল যুবক!

কী কাণ্ড, কাকার কঙ্কাল দিয়ে ইলেকট্রিক গিটার বানাল যুবক!
কঙ্কাল দিয়ে তৈরি গিটার

নরওয়ের ব্ল্যাক মেটাল ও মেটাল মিউজিকপ্রেমী এক যুবক একটি কঙ্কাল দিয়ে তৈরি করেছেন। নিজেকে তিনি 'প্রিন্স মিডনাইট' নামে পরিচয় দিয়ে থাকেন। যদিও তিনি এমন এক বাদ্যযন্ত্র তৈরি করেছেন যা অনেক লোকই ছুঁয়ে দেখতেও ভয় পাবেন।

  • Share this:

    #নরওয়ে: সোশ্যাল মিডিয়ায় চোখ রাখলে কত ধরনের ভিডিওই যে দেখা যায় তার কোনও হিসেব নেই। এমনই একটি ভিডিও শেয়ার করে এবার তাক লাগালেন এক যুবক। নরওয়ের ব্ল্যাক মেটাল ও মেটাল মিউজিকপ্রেমী এক যুবক একটি কঙ্কাল দিয়ে তৈরি করেছেন। নিজেকে তিনি 'প্রিন্স মিডনাইট' নামে পরিচয় দিয়ে থাকেন। যদিও তিনি এমন এক বাদ্যযন্ত্র তৈরি করেছেন যা অনেক লোকই ছুঁয়ে দেখতেও ভয় পাবেন। কারণ সেটি তৈরি তাঁর কাকার কঙ্কাল দিয়ে।

    এই কাজের মাধ্যমে নিজের সঙ্গীতে কাকার স্পর্শ পান তিনি, সে কারণেই এমন উদ্ভট কাণ্ড ওই যুবকের। কাকা মারা যাওয়ার পর সেই দেহ সৎকার না করে তিনি কঙ্কালটি রেখে দিয়েছিলেন। পরে সেটি দিয়েই ৬ স্ট্রিংয়ের ইলেকট্রিক গিটার তৈরি করেছেন ওই যুবক। শুধু তাই না, সেটি বাজিয়ে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন ওই ব্যক্তি। প্রয়াত কাকা ফিলিপকে শ্রদ্ধা জানিয়েই এমন কাজ করেছেন বলে দাবি প্রিন্সের। হেভি মেটার মিউজিকের প্রতি আকর্ষণের কারণ তাঁর কাছে তাঁর কাকাই ছিলেন।


    প্রিন্স গিটারটি বেস হিসেবে ব্যবহার করেন। তার মধ্যে স্ট্রিং, নব, গিটার নেক, জ্যাক, পিকআফস ও ইলেকট্রনিক বোর্ড লাগিয়েছেন তিনি। একটি সাক্ষাৎকারে তিনি বলেছেন, 'আমি ভাবলাম, আঙ্কল ফিলিপকেই একটা গিটারে পরিণত করি। এবং এটা বেশ চ্যালেঞ্জিং ছিল। আমি এটা করার জন্য অনেক রিসার্চ করেছি এবং কেউ কোনও দিন কঙ্কাল দিয়ে গিটার তৈরি করেননি। আমি এটা নিয়ে টাম্পার দুই গিটার ওয়ার্কশপের সঙ্গে কথাও বলেছিলাম। কিন্তু তাঁরা শেষে বেঁকে বসেন।'

    প্রিন্সের আরও বক্তব্য, 'এটা করতে পেরে আমি দারুণ খুশি। আঙ্কল ফিলিপ এমনটাই চেয়েছিলেন। তাঁকে শ্রদ্ধা জানাতে পেরে আমি গর্বিত। তাঁর জীবনকে আমি এই গিটারে রোজ উদযাপন করি।' আঙ্কল ফিলিপ নিজের কঙ্কালটি মেডিক্যাল কলেজকে দান করতে বলেছিলেন। পড়ুয়ারা বহু বছর সেটি নিজেদের কাজেও লাগিয়েছেন। কলেজের শেষ পর্যন্ত যখন আর এটির প্রয়োজন ছিল না তখন প্রিন্স সেটি নিজের কাছে নিয়ে আসেন। পরে আর সেটির সৎকারও করেননি তাঁরা। তার পরেই প্রিন্সের মাথায় খেলে যায় এমন চিন্তা।

    Published by:Raima Chakraborty
    First published: