corona virus btn
corona virus btn
Loading

সাপের পিত্তকোষ খেয়েছিলেন, চিনের বাসিন্দার ফুসফুসে মিলল জ্যান্ত সাপ, কৃমি!

সাপের পিত্তকোষ খেয়েছিলেন, চিনের বাসিন্দার ফুসফুসে মিলল জ্যান্ত সাপ, কৃমি!
প্রতীকী চিত্র৷ PHOTO- FILE

সামুদ্রিক খাবারের বাজার চিনে অত্যন্ত জনপ্রিয়৷ যদিও করোনা বিপর্যয়ের পর এই ধরনের বাজার কড়া নজরদারির মধ্যে রয়েছে৷

  • Share this:

#চিন: সি ফুড খেতে ভালবাসেন৷ তাই প্রাণ ভরে শামুক সহ বিভিন্ন সামুদ্রিক খাবার খেয়েছিলেন৷ সঙ্গে কাঁচাই খেয়ে নিয়েছিলেন সাপের পিত্তকোষ৷ তার ফল কতটা মারাত্মক হতে পারে, তা সম্ভবত ভাবেননি চিনের বাসিন্দা ওয়াং নামে এক ব্যক্তি৷ কারণ দিন কয়েকের মধ্যেই তার ফুসফুস থেকে মিলল জ্যান্ত কৃমি এবং ছোট ছোট সাপ!

শুনতে অবিশ্বাস্য লাগলেও ডেইলি মেল- এর প্রতিবেদনে এমনই দাবি করা হয়েছে৷ জানা গিয়েছে, ওয়াং নামে ওই ব্যক্তি শ্বাসকষ্টের সমস্যা নিয়ে চিকিৎসকের কাছে গিয়েছিলেন৷ পরীক্ষার পর ধরা পড়ে, তাঁর ফুসফুসে কিলবিল করছে সাপ এবং কৃমি!

চিকিৎসকদের প্রশ্নের উত্তরে ওয়াং জানান, তিনি সামুদ্রিক খাবার খেতে খুবই ভালবাসেন৷ নিয়মিত বাড়ির কাছের সামুদ্রিক খাবারের বাজারে গিয়ে শামুক, চিংড়ি মতো খাবার কিনে এনে খেতেন তিনি৷ তার সঙ্গে একদিন একটি সাপের পিত্তকোষ বা গলব্লাডার কাঁচা খেয়ে নিয়েছিলেন৷

 সিটিস্ক্যানের ছবিতেই দেখা যাচ্ছে ফুসফুসে বাসা বেঁধেছে কৃমি, সাপ৷ সৌজন্যে- জিঙ্গাসু টিভি

চিকিৎসকদের মতে, এর থেকেই বিপত্তির সূত্রপাত৷ ওই ব্যক্তি প্যারাগোনিমিয়াসিস নামে এক ধরনের পরজীবী সংক্রমণে আক্রান্ত বলে জানান চিকিৎসকরা৷ এই ধরনের সংক্রমণ সাধারণত অপরিষ্কার পানীয় জল খেলে হয়ে থাকে৷ জলের মধ্যে থাকা অদৃশ্য কুচো কৃমির মতো পরজীবী মানব দেহে প্রবেশ করে সংক্রমণ ঘটানোর পাশাপাশি শরীরের ভিতরেই বাসা বাঁধতে পারে৷ কাঁচা সামুদ্রিক খাবারের মধ্যে কুচো কৃমির ডিম থাকে৷ যা থেকে ওয়াং নামে ওই ব্যক্তির ফুসফুসে কুচোকৃমি বাসা বেঁধেছিল বলেই মনে করছেন চিকিৎসকরা৷

সামুদ্রিক খাবারের বাজার চিনে অত্যন্ত জনপ্রিয়৷ যদিও করোনা বিপর্যয়ের পর এই ধরনের বাজার কড়া নজরদারির মধ্যে রয়েছে৷

চিনের বাসিন্দাদের শরীরে এই ধরনের কৃমি বা পরজীবী পাওয়ার ঘটনা এই প্রথম নয়৷ কিছুদিন আগেই চিনের এক বাসিন্দার মস্তিষ্ক থেকে ১২ সেন্টিমার লম্বা একটি মাংসাশী কুচোকৃমি বের করেছিলেন চিকিৎসকরা৷ ১৫ বছর ধরে ওই কৃমিটি তাঁর মস্তিষ্কের ভিতরে ছিল বলে জানান চিকিৎসকরা৷

First published: May 3, 2020, 1:19 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर