• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • কালো তালিভুক্ত করেছিল আমেরিকা, একনায়ক কিমের উত্তরসূরি হতে পারেন এই তরুণী

কালো তালিভুক্ত করেছিল আমেরিকা, একনায়ক কিমের উত্তরসূরি হতে পারেন এই তরুণী

দাদা কিমের সঙ্গে বোন ইয়ো জং৷ PHOTO- REUTERS

দাদা কিমের সঙ্গে বোন ইয়ো জং৷ PHOTO- REUTERS

উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনের শারীরিক অসুস্থতার খবর প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর উত্তরসূরি কে হতে পারেন তা নিয়েও জোর চর্চা শুরু হয়েছে বিশ্বজুড়ে৷

  • Share this:

    #পিয়ংইয়াং: উত্তর কোরিয়ার শাসক কিম জং উনের শারীরিক অসুস্থতার খবর প্রকাশ্যে আসার সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর উত্তরসূরি কে হতে পারেন তা নিয়েও জোর চর্চা শুরু হয়েছে বিশ্বজুড়ে৷ আর সেই প্রসঙ্গেই উঠে আসছে এক তরুণীর নাম৷ তিনি কিম ইয়ো জং৷ সম্পর্কে যিনি কিমেরই বোন৷ বেশ কয়েকটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, উত্তর কোরিয়ার শাসন ব্যবস্থায় কিমের পরই সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা তাঁর বোন ইয়ো জংয়ের৷ এমন কী, কারও কারও দাবি সামনে কিম দেশকে নেতৃত্ব দিলেও তাঁর নেপথ্যে আসল মস্তিষ্ক থাকে এই ইয়ো জংয়েরই৷

    একটি অস্ত্রোপচারের পরেই কিম জংয়ের শারীরিক অবস্থা অত্যন্ত সঙ্কটজনক বলে বিভিন্ন সূত্রে দাবি করা হচ্ছে৷ যদিও এ বিষয়ে সরকারিভাবে উত্তর কোরিয়া কিছু বলেনি৷ সেদেশের সংবাদমাধ্যমও যথারীতি চুপ৷ কিমের অসুস্থতার খবরের সঙ্গে সঙ্গেই তাঁর বিকল্প নিয়েও চর্চা শুরু হয়েছে৷ উত্তর কোরিয়ার রাজনৈতিক উত্থানপতনের বিষয়ে যাঁরা নিয়মিত খবর রাখেন, সেই বিশেষজ্ঞদের দাবি, কিমের স্থলাভিষিক্ত হওয়ার জন্য সবথেকে বড় দাবিদার তাঁর এই বোন৷ যিনি কিমেরও খুবই আস্থাভাজন৷

    গত কয়েকবছরে কিমের এই বোনের ক্ষমতা উত্তরোত্তর বৃদ্ধিই পেয়েছে৷ ২০১৮ সালে দক্ষিণ কোরিয়া শীতকালীন অলিম্পিক্সে কিমের হয়ে উত্তর কোরিয়ার প্রতিনিধিত্ব করেছিলেন ইয়ো জং-ই৷ এর পর ধীরে ধীরে শাসক দল ওয়ার্কার্স পার্টিতেও বিভিন্ন পদ পান তিনি৷ বলা হয়, গোটা বিশ্বের সামনে কিমের যে ভাবমূর্তি তৈরি হয়েছে, তার নেপথ্যেও আসলে তাঁর এই বোনই রয়েছেন৷ যার ফলে নিজের বোনের উপরে চোখ বুজে আস্থা করেন কিম৷

    গত মাসেই উত্তর কোরিয়ার সামরিক আগ্রাসনের সমালোচনা ররেছল দক্ষিণ কোরিয়া৷ দেশের হয়ে তার পাল্টা জবাব দেন ইয়ো জং৷ প্রতিবেশী দক্ষিণ কোরিয়াকে 'চিৎকার করা ভীত কুকুর' বলে কটাক্ষ করেন কিমের বোন৷ মার্চ মাসেই কিমের বদলে তিনি জনসমক্ষে এসে আমেরিকার প্রেসিডেন্টি ডোনাল্ড ট্রাম্পের পাঠানো চিঠির প্রশংসা করেন৷ ওই চিঠিতেই দু' দেশের পারপ্সরিক সম্পর্ক ভাল রাখার বিষয়ে আশা প্রকাশ করেন ট্রাম্প৷ পাশাপাশি, করোনা সংক্রমণ রোখার জন্য সাহায্যের প্রস্তাব দেন৷ এই ঘটনাতেও কিমের বোন ইয়ো জংয়ের গুরুত্ব আরও একবার স্পষ্ট হয়েছিল৷

    শুধু তাই নয়, কিমের সঙ্গে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের জোড়া বৈঠকেও সঙ্গী ছিলেন তাঁর বোন ইয়ো৷ আমেরিকার সঙ্গে উত্তর কোরিয়ার কূটনৈতিক লেনদেনেও গত কয়েকবছরে গুরুত্বপূর্ণ ভূমকা নিয়েছেন ইয়ো জং৷ ২০১৭ সালে মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে উত্তর কোরিয়ার বেশ কয়েকজন নেতার সঙ্গে ইয়ো জং- কেও কালো তালিকাভুক্ত করেছিল ওয়াশিংটন৷

    আন্তর্জাতিক সম্পর্ক বিশেষজ্ঞদের মতে, নিজের দাদা কিমের সম্মতি ছাড়া ইয়ো জংয়ে এই উত্থান সম্ভব ছিল না৷ ফলে কিম অসুস্থ হতে তাঁর সেই বোনকে উত্তর কোরিয়ার পরবর্তী শাসক হিসেবে তুলে ধরা হচ্ছে৷

    Published by:Debamoy Ghosh
    First published: