আঠার ভয়াবহতা সম্পর্কে সচেতন করতে চান বিশ্বকে, অফিসিয়াল মার্চেন্ডাইজ লঞ্চ করতে চলেছেন গরিলা গ্লু গার্ল!

আঠার ভয়াবহতা সম্পর্কে সচেতন করতে চান বিশ্বকে, অফিসিয়াল মার্চেন্ডাইজ লঞ্চ করতে চলেছেন গরিলা গ্লু গার্ল!
TikTok-এ মাথায় গ্লু লাগিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করে রাতারাতি ভাইরাল হয়ে যাওয়া টেসিকা এখন একটু অন্যরকম।

TikTok-এ মাথায় গ্লু লাগিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করে রাতারাতি ভাইরাল হয়ে যাওয়া টেসিকা এখন একটু অন্যরকম।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: টেসিকা ব্রাউন (Tessica Brown)। বর্তমানে গোটা বিশ্বে গরিলা গ্লু গার্ল (Gorilla Glue Girl) নামে পরিচিত তিনি। ভিডিও তৈরি করতে গিয়ে মাথায় গ্লু দিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন। তবে, শেষমেশ সেই বিপদ থেকে মুক্ত হয়েছেন তিনি। সম্প্রতি একাধিক ছবিও প্রকাশ্যে এসেছে তাঁর। সেই সূত্রেই জানা গিয়েছে, অনলাইনে একটি নতুন অফিসিয়াল মার্চেন্ডাইজ লঞ্চ করতে চলেছেন গরিলা গ্লু গার্ল টেসিকা।

যে ছবিগুলি প্রকাশ্যে এসেছে, সেখানে দেখা যাচ্ছে সাদা রঙের সোয়েট-শার্ট পরেছেন টেসিকা। মাথাটা আপাতত কালো স্কার্ফ দিয়ে ঢাকা রয়েছে। TikTok-এ মাথায় গ্লু লাগিয়ে একটি ভিডিও পোস্ট করে রাতারাতি ভাইরাল হয়ে যাওয়া টেসিকা এখন একটু অন্যরকম। নিজের কঠিন পরিস্থিতির কথাও জানিয়েছেন তিনি। গ্লু লাগিয়ে যে সমস্যায় পড়েছিলেন, সেটাকেই নিজের শক্তিতে পরিণত করেছেন তিনি। যে সোয়েট-শার্টটি পরেছেন, সেখানে নিজের সেই ভাইরাল হওয়া ছবিটি আঁকা রয়েছে। এর মাধ্যমে তিনি গোটা বিশ্বকে সচেতনতার বার্তা দিতে চান। নিজের ভুল থেকে শিক্ষা নিয়ে মানুষজনকে সচেতন করতে চান। আর সেই সূত্র ধরেই এই অফিসিয়াল মার্চেন্ডাইজ লঞ্চ করতে চলেছেন টেসিকা। এই অনলাইন বিজনেস প্ল্যাটফর্মে রয়েছে ২৮ ডলারের টি-শার্ট, ৫০ ডলারের সোয়েট-শার্ট, ৪৫ ডলারের সোয়েট-প্যান্ট। সব মিলিয়ে ১২৩ ডলারের কম্বো আউটফিট। সব চেয়ে বড় বিষয় হল, এই জামা-কাপড়গুলিতে তাঁর সেই ভাইরাল হওয়া গ্লু মাথার ছবিটাই প্রিন্ট করানো রয়েছে। যা এত দিন নানা মজার খোরাক ছিল, এখন সেটাকেই নিজের পরিচিতি বানিয়ে নিয়েছেন তিনি। এ নিয়ে ইতিমধ্যেই সোশ্যাল মিডিয়ায় একাধিক পোস্ট শেয়ার করেছেন গ্লু গার্ল। টেসিকার এ হেন উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করেছেন নেটিজেনদের একাংশ।

প্রসঙ্গত, গ্লু মাথায় আটকে যাওয়ার পর রিমুভার সার্জারি করে টেসিকাকে বাঁচিয়েছেন ড. মাইকেল ওবেং (Michael Obeng)। টেসিকার খবরটা প্রকাশ্যে আসতেই শোরগোল পড়ে যায়। এমন সময়ে এগিয়ে আসেন চিকিৎসক মাইকেল ওবেং। প্লাস্টিক সার্জারি বিশেষজ্ঞ ওবেং বিনামূল্যেই এই চিকিৎসা করার কথা জানান। বেশ কয়েকদিনের চেষ্টায় গ্লু আটকে যাওয়ার সমস্যা থেকে মুক্তি পান টেসিকা। কিন্তু চিকিৎসক ওবেংয়ের এই পদক্ষেপ থেকে অনুপ্রাণিত হন তিনি। মুহূর্তেই সিদ্ধান্ত নেন টেসিকা। ঠিক করেন, নিজের চিকিৎসার জন্য GoFundMe অ্যাকাউন্টে ওঠা যাবতীয় অনুদানের বেশিরভাগ অংশই রিস্টোর ফাউন্ডেশনে (Restore Foundation) দিয়ে দেবেন। উল্লেখ্য, রিস্টোর ফাউন্ডেশন নামে এই NGO চালান চিকিৎসক ওবেং। TMZ-এর প্রতিবেদন অনুযায়ী, অনুদানের মাধ্যমে প্রায় ২১,০০০ ডলার টাকা উঠেছিল। এর মধ্যে ২০,০০০ ডলারের বেশি অর্থ NGO-তে দান করে দিয়েছেন টেসিকা।


সফল সার্জারির পর চিকিৎসক ড. ওবেংকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন টেসিকা। তাঁর কথায়, ড. ওবেংয়ের কাছে কৃতজ্ঞ তিনি। তাঁর জীবন ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য ওবেং যা করেছেন, তার জন্য কোনও শব্দই যথেষ্ট নয়। দু'জনের একটি ছবিও শেয়ার করেছেন টেসিকা।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published:

লেটেস্ট খবর