কমলা হ্যারিসের স্বামী পেলেন প্রথম সেকেন্ড জেন্টলম্যান ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট, ফলোয়ার ৪ লক্ষেরও বেশি!

কমলা হ্যারিসের স্বামী পেলেন প্রথম সেকেন্ড জেন্টলম্যান ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট, ফলোয়ার ৪ লক্ষেরও বেশি!
সেই মতো, ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিস হবেন সেকেন্ড লেডি। আর তাঁর স্বামী ডগলাস এমফ সেকেন্ড জেন্টলম্যান।

সেই মতো, ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিস হবেন সেকেন্ড লেডি। আর তাঁর স্বামী ডগলাস এমফ সেকেন্ড জেন্টলম্যান।

  • Share this:
#ওয়াশিংটন: জেন্টলম্যান তো তিনি বটেই! তার পরেও মার্কিন মুলুকের ভাইস প্রেসিডেন্ট ইলেক্ট কমলা হ্যারিসের (Kamala Harris) স্বামী ডগলাস এমফের (Douglas Emhoff) নামের সঙ্গে সেকেন্ড জেন্টলম্যান তকমাটা জুড়ে দেওয়ার অর্থ কী?

লিঙ্গবিদ্বেষ এবং পুরুষতান্ত্রিকতার বিষয়ে যে ভাবে পূর্ণ হয়ে আছে এই পৃথিবীর নানা প্রান্ত, সেখানে দাঁড়িয়ে এই তকমা নিঃসন্দেহেই তাৎপর্যবহ! ব্যাপারটা সামান্য হলেও ব্যাখ্যার দাবি রাখে।

যে কোনও দেশে শাসনব্যবস্থার শীর্ষে যিনি থাকেন, তাঁর জীবনসঙ্গী বা সঙ্গিনীর ক্ষেত্রে পদমর্যাদা বোঝাতে ফার্স্ট বিশেষণটি প্রথমে প্রয়োগ করা হয়। কেন না, তাঁর স্বামী বা স্ত্রী সংশ্লিষ্ট দেশের প্রথম পুরুষ বা নারী হিসেবে বিবেচিত হচ্ছেন। এই দিক থেকে দেখলে মার্কিন মুলুকের প্রেসিডেন্ট ইলেক্ট জো বাইডেন (Joe Biden) শপথ গ্রহণের পরে যখন প্রেসিডেন্ট হিসেবে বিবেচিত হবেন, তখন তাঁকে বলা হবে ফার্স্ট ম্যান। আর তাঁর স্ত্রী জিল বাইডেনকে (Jill Biden) বলা হবে ফার্স্ট লেডি।


সেই মতো, ভাইস প্রেসিডেন্ট হিসেবে কমলা হ্যারিস হবেন সেকেন্ড লেডি। আর তাঁর স্বামী ডগলাস এমফ সেকেন্ড জেন্টলম্যান। উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, শুধু ওই দেশই নয়, মাইক্রোব্লগিং সাইট ট্যুইটারও (Twitter) বিষয়টিকে স্বীকৃতি দিয়েছে এবং আনুষ্ঠানিক ভাবে এক অ্যাকাউন্ট উপহার দিয়েছে ডগলাস এমফকে। @SecondGentleman- এই সার্চের মাধ্যমে সোশ্যাল মিডিয়ায় সেটি খুঁজে পাওয়া যাবে। এই অ্যাকাউন্ট থেকে এখনও পর্যন্ত একটিও ট্যুইট করেননি ডগলাস এমফ। তা সত্ত্বেও সেকেন্ড জেন্টলম্যানের অফিসিয়াল এই ট্যুইটার অ্যাকাউন্টের ফলোয়ার সংখ্যা এর মধ্যেই ৪ লক্ষ ছাড়িয়ে গিয়েছে। তাঁর এই অ্যাকাউন্টের পরিচিতিতে লেখা রয়েছে- ভবিষ্যৎ সেকেন্ড জেন্টলম্যান। নিবেদিত পিতা। এবং ভাইস প্রেসিডেন্ট ইলেক্ট হ্যারিসের গর্বিত স্বামী।

এই ব্যাপারটিই মার্কিন মুলুকের অধিবাসীদের মন জয় করে নিয়েছে। কমলা শাসনকার্যে ব্যস্ত থাকলেও সন্তানদের দেখভালের যে অভাব হবে না বা হয়ও না, সে বিষয়টিই স্পষ্ট করে দিয়েছে ওই নিবেদিত পিতা শব্দদু'টো। আবার, স্ত্রী তাঁর চেয়ে বেশি সফল হলেও সেটা নিয়ে যে ডগলাস এমফের মনে কোনও দ্বেষ নেই, সেটাও বায়োতে জানান দেওয়া হয়েছে সগৌরবে। তাই এক দিকে যেমন পরিবারের সদস্যরা তাঁর এই অফিসিয়াল ট্যুইটার অ্যাকাউন্ট প্রাপ্তি নিয়ে আনন্দপ্রকাশ করেছেন, তেমনই আমেরিকানরাও চেয়ে আছেন তাঁর দিকে। তাঁদের আশা- দেশে লিঙ্গবৈষম্য এবং পুরুষতান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা রোধে সেকেন্ড জেন্টলম্যানের এই অ্যাকাউন্ট দৃষ্টান্ত স্থাপন করবে!

Published by:Pooja Basu
First published: