৬ বার ব্রেন সার্জারির পরেও ডাক্তার হওয়ার স্বপ্নে বিভোর, পড়ুন গায়ে কাঁটা দেওয়া কাহিনি

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:May 28, 2019 05:30 PM IST
৬ বার ব্রেন সার্জারির পরেও ডাক্তার হওয়ার স্বপ্নে বিভোর, পড়ুন গায়ে কাঁটা দেওয়া কাহিনি
photo: Snapped from video
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:May 28, 2019 05:30 PM IST

#হাউস্টন: ছোটবেলা থেকেই স্বপ্ন দেখতেন ডাক্তার হওয়ার৷ বারবার বাধা ছিনিয়ে নিতে চেয়েছে সেই স্বপ্ন৷ কিন্তু কোনও বাধার কাছেই হার মানতে রাজি ছিলেন না ক্লডিয়া মার্টিনেজ৷ ৬ বার মৃত্যুর মুখ থেকে ফিরে এসেও তাই ডাক্তার হওয়ার স্বপ্নে বিভোর ক্লডিয়া শোনালেন তার জীবন কাহিনি৷

হাউস্টন ইউনিভার্সিটি পড়ার সময় হঠাৎই মাথা যন্ত্রণা, বার বার ব্ল্যাক আউট হওয়ার সমস্যায় কাবু হয়ে পড়তে শুরু করেন ক্লডিয়া৷ চিকিৎসকরা জানান, দুরারোগ্য শিয়ারি ম্যালফরমেশনে আক্রান্ত ক্লডিয়া৷ যার ফলে তার ব্রেনের টিস্যু বিস্তৃত হচ্ছে শিরদাঁড়ায়৷ ক্রমশ প্যারালিসিসের দিকে এগোচ্ছিলেন ক্লডিয়া৷

তিনি বলেন, "নিউরোসার্জন জানিয়েছিলেন যত তাড়াতাড়ি সম্ভব অস্ত্রোপচার না করলে আমার ঘাড় থেকে পা পর্যন্ত প্যারালিসিস হয়ে যাবে৷ এক সপ্তাহের মধ্যে প্রথম ব্রেন সার্জারি হয় আমার৷"

তবে অসুস্থতা কোনও ভাবেই তাকে আটকে রাখতে পারেনি৷ স্নাতক হয়ে ভর্তি হয়ে যান ইউটিহেলথ ম্যাকগভার্ন মেডিক্যাল স্কুলে৷ পড়াশোনার পাশাপাশি চলতে থাকে একের পর এক অস্ত্রোপচার৷

ক্লডিয়া জানান, "এখনও পর্যন্ত আমার ৬ বার অস্ত্রোপচার হয়েছে৷ প্রতিবারই বুঝতে পারতাম জীবনে অনেক কিছুই বদলে যাবে৷ কিন্তু মেডিক্যাল স্কুল আমাকে যেতেই হবে৷ কোনও ভাবেই হার মানা চলবে না৷"

Loading...

২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে শেষবার অস্ত্রোপচারের পর গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন ক্লডিয়া৷ স্ট্রোক হয়ে ঘাড়ের নীচ থেকে প্যারালিসিস হয়ে যায়৷ "সেই সময় কোনও কিছুই একা করতে পারতাম না৷ মা আমাকে স্নান করিয়ে দিত, পোশাক পরিয়ে দিত৷" কিন্তু তারপরেও ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন ছাড়তে রাজি ছিলেন না ক্লডিয়া৷

টিআইআরপি মেমোরিয়াল হারমান রিহ্যাব হাসপাতালে এক্সোস্কেলেটনের সাহায্যে আবার হাঁটাচলা করতে শেখেন ক্লডিয়া৷ এই মুহূর্তে মেডিক্যাল স্কুলের ফাইনাল ইয়ারে রয়েছেন ক্লডিয়া৷ আগামী বছর ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন পূরণ হবে তার৷ প্রতি বছর হাউস্টনে কংকার শিয়ারি ওয়াক আয়োজন করেন ক্লডিয়া৷ বিরল এই রোগের গবেষণার জন্য ওয়াক থেকে ৫৫ হাজার মার্কিন ডলার সংগ্রহ করেছেন তিনি৷

First published: 05:30:58 PM May 28, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर