আমায় পিছন করে দেওয়ালে ঠেসে ধরে প্যান্টের চেন নামাল ট্রাম্প..., বিস্ফোরক অভিযোগ লেখিকার!

আমায় পিছন করে দেওয়ালে ঠেসে ধরে প্যান্টের চেন নামাল ট্রাম্প..., বিস্ফোরক অভিযোগ লেখিকার!
ডোনাল্ড ট্রাম্প

নিউ ইয়র্কের একটি ম্যাগাজিনে ক্যারোল তাঁর অভিজ্ঞতা লিখেছেন৷ ওই মহিলার দাবি, ম্যানহাটনের ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ট্রাম্প সে দিন তাঁর যা করেছিলেন, সেই ঘটনা তাঁকে সারা জীবন তাড়া করে বেড়াচ্ছে৷ মানসিক ভাবেই যন্ত্রণা দেয়৷

  • Share this:

#ওয়াশিংটন ডিসি: ফের যৌন হেনস্থার অভিযোগে বিদ্ধ মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প৷ এ বার ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন হেনস্থার অভিযোগ আনলেন নিউ ইয়র্কের এক প্রাক্তন লেখিকা ই জ্যাঁ ক্যারোল৷ তাঁর অভিযোগ, ৯০-এর দশকের মাঝামাঝি ম্যানহাটনের একটি ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ড্রেসিং রুমে তাঁর যৌনাঙ্গে হাত দেন ট্রাম্প৷ চূড়ান্ত যৌন হেনস্থাও করেন৷ এই নিয়ে ১৫ জন মহিলা ট্রাম্পের বিরুদ্ধে যৌন অত্যাচারের অভিযোগ আনলেন৷

নিউ ইয়র্কের একটি ম্যাগাজিনে ক্যারোল তাঁর অভিজ্ঞতা লিখেছেন৷ ওই মহিলার দাবি, ম্যানহাটনের ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে ট্রাম্প সে দিন তাঁর যা করেছিলেন, সেই ঘটনা তাঁকে সারা জীবন তাড়া করে বেড়াচ্ছে৷ মানসিক ভাবেই যন্ত্রণা দেয়৷

ক্যারোল ও ট্রাম্প ক্যারোল ও ট্রাম্প

যদিও অভিযোগ সম্পূর্ণ ভাবে অস্বীকার করে হোয়াইট হাউস থেকে এক বিবৃতিতে ট্রাম্পের দাবি, একেবারে মিথ্যে অভিযোগ করছেন ওই মহিলা৷ তিনি ওি মহিলাকে জীবনে চেনেন না৷ কোনও দিনও দেখাও হয়নি৷

কী লিখেছেন ওই মহিলা? নিউ ইয়র্কের একটি ম্যাগাজিনে ক্যারোল লিখেছেন, ' সালটা ১৯৯৫ বা ৯৬৷ ট্রাম্প তখন নিউ ইয়র্কের অন্যতম ধনী ব্যক্তি৷ আমার সঙ্গে একটা বন্ধুত্বপূর্ণ সংঘাত চলছিল৷ একদিন নিউ ইয়র্কেরবার্গডর্ফ গুডম্যানে ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে দেখা হয় ট্রাম্পের সঙ্গে৷ ড্রেসিং রুমে ট্রাম্প আমায় দেওয়ালে চেপে ধরে পিছন দিক করে৷ নিজের প্যান্টের জিপ খুলে যৌনাঙ্গ বের করে৷ তারপর আমায় পিছন থেকে ধর্ষণের চেষ্টা করে৷ সে দিন কোনও ক্রমে ওই বিভীষিকা থেকে পালিয়ে বাঁচি আমি৷'

Loading...

ডোনাল্ড ট্রাম্প ডোনাল্ড ট্রাম্প

এরপরই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আলোড়ন পড়ে গিয়েছে মার্কিন প্রেসিডেন্টের কেচ্ছা নিয়ে৷ ট্রাম্পের বক্তব্য, 'গোটাটাই ফেক নিউজ৷ কোনও প্রমাণ নেই৷ সিসিটিভি ফুটেজ নেই৷ কোনও ছবি নেই, ভিডিও নেই, পুলিশে রিপোর্ট নেই, ডিপার্টমেন্টাল স্টোরের কোনও কর্মীও তো নেই৷ বার্গডর্ফ গুডম্যানকে ধন্যবাদ, যে তারা এই ধরনের কোনও ঘটনার ভিডিও ফুটেজ তাদের কাছে নেই বলে জানানোর জন্য৷ কারণ, এরকম কখনও ঘটেইনি৷'

First published: 09:14:09 AM Jun 22, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर